ঢাকা, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জিতলেও ক্ষতি হারলেও ক্ষতি

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৯ জানুয়ারি ২০২০ রবিবার, ০৮:০০ পিএম
জিতলেও ক্ষতি হারলেও ক্ষতি

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ অংশগ্রহণ করেছিল আওয়ামী লীগকে বেকায়দায় ফেলার জন্য। বিএনপি নেতারাও প্রকাশ্যে বলছেন আন্দোলনের অংশ হিসেবেই এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন। বিএনপি নেতারা এটাও বলছেন এই সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের অধীনে যে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব না সেটা আরেকবার প্রমাণ করার জন্যই তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছে। যুক্তির ক্ষেত্রে এই বিষয়গুলো যতই মুখরোচক হোক না কেনো বাস্তবে বিএনপির সিদ্ধান্ত হিতে বিপরীত হয়ে যাচ্ছে। তাদের জন্য বুমেরাং হয়ে যাচ্ছে। কারণ নির্বাচন প্রচারণায় অর্ধেক সময় পর্যন্ত বিএনপি যেটা আশা করেছিল একটি আন্দোলন করার জন্য বা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার বা যে ঘটনাগুলো অনুমান করেছিল তার মধ্যে একটিও সংগঠিত হয়নি। এমনিক বিএনপির অনুমান ভুল প্রমাণিত হয়েছে।

বিএনপি আশা করেছিল নির্বাচন প্রচারণার পর থেকেই তাদের নেতাকর্মীদের উপর গ্রেপ্তার শুরু হবে, তাদের প্রচারণায় বাঁধা দেওয়া হবে, তাদের পোস্টার দেয়ালে লাগাতে দেওয়া হবে না। কিন্তু নির্বাচন প্রচারণার এখন পর্যন্ত সময়ে বিএনপি প্রার্থীরাই বলেছেন নির্বাচনী প্রচারণায় তারা সমান সুযোগ পাচ্ছেন। গ্রেপ্তারি ও হয়রানির বিষয়টিও এখন আর বিএনপি প্রার্থীদের মুখ থেকে উচ্চারিত হচ্ছে না। ফলে একটা লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড যেটা আপাতপক্ষে বিএনপির অনুকূলে। কারণ বিএনপির নেতারা এই নির্বাচনে হেভিওয়েট নেতারা এই নির্বাচনে প্রচারণার সুযোগ পাচ্ছে। তবে আওয়ামী লীগের নেতারা এই নির্বাচনে প্রচারণার কোনো সুযোগ পাচ্ছেন না।

এরকম একটি পরিস্থিতিতে এই নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে বিএনপি কি অর্জন করতে চায়, জয়ী হলে কি হবে বা হারলে কি হবে সেই বিচার বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন যে, নির্বাচনের ফলাফল যাই হোক না কেন তা বিএনপির জন্য হিতে বিপরীত হতে পারে। নির্বাচনে বিএনপি তিনটি ফলাফল অর্জন করতে পারে।

প্রথমত, দুটি আসনেই বিএনপি জয়যুক্ত হতে পারে। দুটি আসনেই জয়ী হলে প্রমাণিত হবে যে, বিএনপি যে অভিযোগ করেছিল তা ছিল অসত্য। বিএনপি ৩০শে ডিসেম্বরের নির্বাচনকে মধ্যরাতের নির্বাচন বলে অভিহিত করতে চায় এবং তাঁরা বলে যে, ঐ নির্বাচনে জনগণ ভোট দেয়নি, ভোট ডাকাতি হয়েছে। তাঁরা এটাও বলে যে, এই নির্বাচন কমিশন এবং সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। কিন্তু যদি দুউই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি বিজয়ী হয় তাহলে ৩০শে ডিসেম্বরের নির্বাচন নিয়ে বিএনপি যে অভিযোগগুলো তুলেছিল তা অসত্য আর ভিত্তিহীন হিসেবে প্রমাণিত হবে। তখন এই সংসদকে বৈধতা দেয়া ছাড়া বিএনপির আর কোন পথ থাকবে না।

বিএনপির দ্বিতীয় অভিযোগ ইভিএম নিয়ে। ইদানীং বিএনপি ইভিএমের বিপক্ষে সোচ্চার। তবে এই নির্বাচনে যদি বিএনপি জয়ী হয় তাহলে এটাও প্রমাণিত হবে যে, ইভিএম নিয়ে বিএনপির অভিযোগ বাস্তবতা বিবর্জিত। কাজেই এই নির্বাচনে যদি বিএনপি দুই সিটিতে জয়ী হয় তাহলেও বিএনপির জন্যই ক্ষতি। কারণ নির্বাচন নিয়ে বিএনপির যে অভিযোগ-অনুযোগ সবই জলে যাবে নির্বাচনে জয়ী হলে। একই রকমভাবে নির্বাচনের দ্বিতীয় ফলাফল হতে পারে একটি সিটিতে বিএনপি এবং একটি সিটিতে আওয়ামী লীগ জয়ী হলেও লাভজনক হবেনা বিএনপির জন্য। তাহলে কারচুপি কিংবা ভোটারদের বাঁধা দেবার ইত্যাদি অভিযোগগুলো ধোপে টিকবে না।

একইসাথে ৩০শে ডিসেম্বরের নির্বাচন নিয়ে বিএনপির যে প্রশ্ন, সেই প্রশ্নগুলো অন্তঃসারশূন্য প্রশ্ন হিসেবে বিবেচিত হবে।

আর তৃতীয় বিষয় হলো, বিএনপি এই নির্বাচনে দুটি আসনেই পরাজিত হতে পারে। আর পরাজিত হলে দলটির রাজনীতিতে অন্তসারশূন্যতা, ভুল রাজনীতি এবং জেনে বুঝে বিষ পান করা নিয়ে আবারো তোলপাড় শুরু হবে। বিএনপির অধিকাংশ নেতা যারা নির্বাচনের বিরোধীতা করেছিলেন বা বলেছিলেন এই নির্বাচনে যাওয়া অর্থহীন তারা বিএনপিতে শক্তিশালী হবেন।  আর বিএনপি একটি অনিবার্য বিভক্তির দিকে ধাবিত হবে।

কারণ ইতোমধ্যেই সিটি নির্বাচন নিয়ে বিএনপির অস্বস্থি, অনৈক্য এবং মত বিরোধ প্রায় প্রকাশ্য। বিএনপির একটি বড় অংশ মনে করে আওয়ামী সরকারের অধীনে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্তটা ভুল ছিল। এই সরকারের অধীনে সংসদে যাওয়া ভুল ছিল। একইভাবে তারা এই নির্বাচনে যাওয়ার বিরোধীতা করেছিল।

তারপরেও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়ার ইচ্ছাতেই বিএনপি নির্বাচনে গিয়েছিল। আর সিটি নির্বাচনে একই ফলাফল হবে বলেও বিএনপির অধিকাংশ নেতা মনে করেন। সেক্ষেত্রে নির্বাচনের ফলাফলের দাবিতেও বিএনপি যেমন আন্দোলন করতে পারবে না তেমন বিএনপির মধ্যে হাতাশা আরো দীর্ঘায়িত হবে। কাজেই এই নির্বাচনের ফলাফল যাই হোক না কেনো তা বিএনপির জন্য কোনো ইতিবাচত ফলাফল বয়ে আনবে না বলেই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন।  আর এটির ফলে বিএনপির কফিনে আরেকটি পেরেকই ঠোকা হবে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

ঢাকা সিটি নির্বাচনে উত্তর ও দক্ষিণ দুইটিতে যদি বিএনপি পরাজিত হয় তাহলে দলটির রাজনীতিতে অন্তসারশূন্যতা, ভুল রাজনীতি এবং জেনে বুঝে বিষ পান করা নিয়ে আবারো তোলপাড় শুরু হবে। বিএনপির অধিকাংশ নেতা যারা নির্বাচনের বিরোধীতা করেছিলেন বা বলেছিলেন এই নির্বাচনে যাওয়া অর্থহীন তারা বিএনপিতে শক্তিশালী হবেন।  আর বিএনপি একটি অনিবার্য বিবিক্তর দিকে ধাবিত হবে।

কারণ ইতোমধ্যেই সিটি নির্বাচন নিয়ে বিএনপির অস্বস্থি, অনৈক্য এবং মত বিরোধ প্রায় প্রকাশ্য। বিএনপির একটি বড় অংশ মনে করে আওয়ামী সরকারের অধীনে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্তটা ভুল ছিল। এই সরকারের অধীনে সংসদে যাওয়া ভুল ছিল। একইভাবে তারা এই নির্বাচনে যাওয়ার বিরোধীতা করেছিল।

তারপরেও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়ার ইচ্ছাতেই বিএনপি নির্বাচনে গিয়েছিল। আর সিটি নির্বাচনে একই ফলাফল হবে বলেও বিএনপির অধিকাংশ নেতা মনে করেন। সেক্ষেত্রে নির্বাচনের ফলাফলের দাবিতেও বিএনপি যেমন আন্দোলন করতে পারবে না তেমন বিএনপির মধ্যে হাতাশা আরো দীর্ঘায়িত হবে। কাজেই এই নির্বাচনের ফলাফল যাই হোক না কেনো তা বিএনপির জন্য কোনো ইতিবাচত ফলাফল বয়ে আনবে না বলেই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন।  আর এটির ফলে বিএনপির কফিনে আরেকটি পেরেকই ঠোকা হবে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।