ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৮ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

হঠাৎ চাপে আওয়ামী লীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৯ জানুয়ারি ২০২০ বুধবার, ০৮:০০ পিএম
হঠাৎ চাপে আওয়ামী লীগ

২০০৮ সালের নির্বাচনের পর প্রথমবারের মতো নির্বাচনী চাপ অনুভব করছে আওয়ামী লীগ। ঢাকা দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে এসে শেষ মুহূর্তে দলটির মধ্যে নার্ভাসনেস, অস্বস্তি ও উৎকণ্ঠা সবই দৃশ্যমান হচ্ছে। যদিও প্রকাশ্যে আওয়ামী লীগ বলছে নির্বাচনে তারা দুজন ভালো প্রার্থী দিয়েছে। তাই এই নির্বাচনে তারা পরাজয়ের কোনো কারণ দেখেন না। কিন্তু নির্বাচনে জয় পরাজয়ের চেয়ে আওয়ামী লীগ নানা কারণে অস্বস্তি অনুভব করছে।

প্রথমত, বিএনপি এই নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ প্রমাণ করার জন্য নানা রকম কৌশল গ্রহণ করছে। আর শেষ পর্যন্ত এই নির্বাচন যদি প্রশ্নবিদ্ধ হয় তাহলে দুই সিটির নির্বাচনে জিতলেও আওয়ামী লীগের ক্ষতি হবে।

দ্বিতীয়ত, এই নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপি যে শো ডাউন করছে এবং যে ধরণের কর্মী সমাবেশ করছে, নির্বাচনের পর ভোট কারচুপির অভিযোগ বিএনপি যদি রাজপথে আন্দোলন শুরু করলে সেই আন্দোলন দমন করাও আওয়ামী লীগের কঠিন হবে। আওয়ামী লীগ জনগণের ভোটে বিজয়ী হয়নি এই প্রপাগান্ডা আরো বৃদ্ধি পাবে।

তৃতীয়ত, এই নির্বাচনে কুটনৈতিক মহলে একটা সরব তৎপরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। একটা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে কুটনৈতিকরা কেনো এত সরব এ নিয়েও আওয়ামী লীগের মধ্যে অস্বস্তি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আওয়ামী লীগ মনে করছে কুটনৈতিকদের এই সরব তৎপরতার পেছনে বিএনপির এবং জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের একটি ইন্ধন রয়েছে। তাদের আগ্রহের কারণেই কুটনৈতিকরা নির্বাচন নিয়ে এত আগ্রহী হয়েছে।

আর এই সমস্ত বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়েই আওয়ামী লীগ মনে করছে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন তাদের জন্য একটি কঠিন চ্যালেঞ্জর। চ্যালেঞ্জ হওয়ার কারণ এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নিশ্চয়ই জয়ী হতে চায় কিন্তু সেই জয়টি তারা বিতর্কমুক্ত চায়। আওয়ামী লীগ একটি বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের মাধ্যমে জয়ী হতে চায়। কিন্তু যদি কোনো রকমের অঘটন ঘটে, কোনো রকমের সহিংসতার সৃষ্টি হয়, ভোটাররা যদি ভোট কেন্দ্রে যায় কিংবা ভোটে যদি কোনো রকমের কারচুপির অভিযোগ উৎথাপিত হয়, সেটা আওয়ামী লীগের অস্বস্তির কারণ হবে। তখন ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন থেকে সব নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ জোড়ালো ভাবে উপস্থাপন করবে বিএনপি। এর পাশাপাশি এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনই অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভাবে সম্ভব না সেরকম একটি মতবাদ প্রতিষ্ঠা করা সহজ হবে।

আওয়ামী লীগের অন্য একটি পক্ষ বলছে চাপ অনুভর করার আরেকটি কারন হচ্ছে বিরোধী দল বিশেষ করে বিএনপির প্রচার প্রচারণা। কারণ এবার বিএনপি প্রায় আওয়ামী লীগের সমান্তরাল গতিতে প্রচারণা চালিয়েছে। আর বার বার তারা ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে আসার আহ্বান জানিয়েছে নির্ভয়ে ভোট দিতে বলেছে।

টানা ১১ বছর আওয়ামী ক্ষমতায় রয়েছে। তাই স্বাভাবিক ভাবেই ক্ষমতাসীন দলের ব্যাপারে এক ধরনের নেতিবাচক মনোভাব জনগণের মধ্যে থাকে। তাই শেষ পর্যন্ত বিএনপি যদি নির্বাচনে কোনো আশাতীত ফলাফল করে ফেলে সেটাও আওয়ামী লীগের জন্য বিপদের কারণ হবে। কারণ সে সময় বিএনপি বলবে নিরপেক্ষ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জিততে পারে না তার প্রমাণ হলো সিটি নির্বাচন। অথবা এটা বলা সহজ হবে আওয়ামী লীগ তার জনপ্রিয়তা হারিয়েছে।

সবচেয়ে বড় কথা হলো, ঢাকায় দুই সিটির একটিতেও বিএনপির মেয়র নির্বাচিত হয় তাহলে দলটি সাংগঠনিক ভাবে নিজেদের শক্তিশালী করার একটি বড় ধরনের সুযোগ পাবে। আর এ কারণেই উভয় সংকটে রয়েছে আওয়ামী লীগ। একদিকে নির্বাচনে জয়ী হলে তাদের বিরুদ্ধে কারচুপির অভিযোগ। অন্যদিকে নির্বাচনে হারলে তাদের জনপ্রিয়তা নষ্ট হয়েছে এমন অভিযোগ শুনতে হবে। আর এই দ্বিমুখী চাপ সামলে আওয়ামী লীগ নির্বাচনে তাদের কাঙ্ক্ষিত ফলাফল বিতর্কহীন ভাবে কিভাবে নেবে সেটাই দেখার বিষয়।

বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ