ঢাকা, রোববার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আওয়ামী লীগের নতুন ‘এলিট’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ শনিবার, ০৬:০০ পিএম
আওয়ামী লীগের নতুন ‘এলিট’

আওয়ামী লীগের প্রধান নেতৃত্ব হলো সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু দলের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও বিভিন্ন সময় প্রভাবশালী নেতারা থাকেন, তাদেরকে বলা হয় ‘এলিট’ নেতা। যেমন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে যখন আওয়ামী লীগ ছিল তখন বঙ্গবন্ধু এবং দলের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন আহমেদের বাইরেও একটি বিরাট ‘এলিট’ শ্রেনীর নেতা ছিলেন। যাদের মধ্যে ছিলেন ক্যাপ্টেন (অব:) মনসুর আলী, কামরুজ্জামান, সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

মুক্তিযুদ্ধের শুরুতে জাতির পিতা যখন গ্রেপ্তার হন তখনও প্রভাবশালী এলিট শ্রেনীর আওয়ামী লীগের নেতা ছিলেন। তাদের মধ্যে জাতীয় ৪ নেতা ছাড়াও ছিলেন খন্দকার মুশতাক আহমেদের মত কিছু নেতা।

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের পর যখন আওয়ামী লীগ লণ্ডভণ্ড, তখনও আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী কিছু ‘এলিট’ নেতা ছিল। এদের মধ্যে ছিলেন জোহরা তাজউদ্দীন, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, ড. কামাল হোসেন প্রমুখ।

১৯৮১ সালে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করার পর আওয়ামী লীগে একটি প্রভাবশালী গ্রুপ তৈরী হয়। এ সময় আওয়ামী লীগের ‘এলিট’ নেতা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিলেন তাদের মধ্যে ছিলেন ড. কামাল হোসেন, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।

দেখা যাচ্ছে যে, আওয়ামী লীগে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের বাইরে কিছু নেতা থাকেন যারা দলটির নীতি নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। দলের মধ্যে তাদের অপরিসীম প্রভাব থাকে। সাম্প্রতিক সময় আওয়ামী লীগের নতুন ‘এলিট’ নেতৃত্ব তৈরী হয়েছে। আওয়ামী লীগে এর আগে যারা হেভিওয়েট নেতা ছিলে সাজেদা চৌধুরী, তোফায়েল আহমেদ, আমির হোসেন আমু, মোহাম্মদ নাসিম তারা এখন প্রায় ম্রিয়মান। এখন নতুন এলিট নেতা কারা দেখে নেওয়া যাক;

কাজী জাফরউল্লাহ

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ। আওয়ামী লীগ সভাপতির অত্যন্ত ঘনিষ্ঠও তিনি। আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নীতি-নির্ধারকদের মধ্যে তিনি অন্যতম।

কর্ণেল (অব.) ফারুক খান

কর্ণেল (অব.) ফারুক খানও শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ এবং আস্থাভাজন রাজনৈতিক নেতা। তিনি আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং দলের অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ সভাপতি তার ওপর নির্ভর করেন বলে জানা যায়।

ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী

ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী যদিও আওয়ামী লীগের বড় কোনো নেতা নন, তিনি স্পিকার। তারপরেও তিনি আওয়ামী লীগের এলিট নেতাদের অন্তর্ভূক্ত হয়েছেন তিনি। দলের অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণে শেখ হাসিনা তার সঙ্গে পরামর্শ করেন বলেও জানা যায়।

ড. আব্দুর রাজ্জাক

ড. আব্দুর রাজ্জাক আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হলেও দলের অন্যসব প্রেসিডিয়াম সদস্যের মতো তিনি নিস্ক্রিয় নন। বরং দলের সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। দলের সভাপতির নির্দেশে অনেক দায়িত্বও পালন করেন।

নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন

বর্তমান চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটনও আওয়ামী লীগের নতুন এলিট নেতা। আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী দলের অনেক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন বলেই জানা যায়।

বাংলা ইনসাইডার