ঢাকা, রোববার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিএনপি-জামাত জোট আমলের মক্ষীরানীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ মঙ্গলবার, ০৭:০০ পিএম
বিএনপি-জামাত জোট আমলের মক্ষীরানীরা

পাপিয়ার ঘটনা নিয়ে গত দুদিন ধরে যথেষ্ট তোলপাড় চলছে। বলা হচ্ছে যে এটা আওয়ামী লীগের অবক্ষয় এবং আওয়ামী লীগের যে আদর্শিক চর্চা কমে গেছে তার একটি বড় প্রমাণ হলো পাপিয়ার এই ঘটনা। কিন্তু রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছে যে, পাপিয়ার এই ঘটনার অনেকগুলো ইতিবাচক দিক রয়েছে। বিশেষ করে সবচেয়ে ইতিবাচক দিক হলো যারা অপরাধ এবং দুর্বৃত্তায়ন করে তারা যে রাজনৈতিক আশ্রয়-প্রশ্রয় পায় না- পাপিয়া, ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট, খালেদ মাহমুদ ভূইয়া তার বড় উদাহরণ।

কারণ যাদের বিরুদ্ধে অপরাধের প্রমাণ পাওয়া গেছে, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তখনই তাদের আইনের আওতায় এনেছে। তাদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হয়েছে। এখানে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বা আওয়ামী লীগের কোনো নেতা কোনোরকম বাধা প্রদান করেনি। এটি সুশাসন এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে একটি বড় ইতিবাচক দিক বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সালেও এরকম মাদক, দুর্বৃত্তায়ন, নারীদের টেন্ডারসহ বিভিন্ন অপকর্মে ব্যবহার করার ঘটনা হরহামেশাই ঘটেছিল। সেসময় বিদেশ থেকেও অনেক নায়িকাদেরকে নিয়ে আসা হয়েছিল। হাওয়া ভবনের তত্ত্বাবধানে গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের বাগানবাড়ি ‘খোয়াব ভবনে’ বিভিন্ন রকম অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হতো। সেখানে রাতভর চলতো উদ্দাম নাচ, মদের উৎসব।

বিএনপি জামাতের আমলে অনেক পাপিয়াই ছিল ধরাছোঁয়ার বাইরে। তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। এদের মধ্যে রয়েছেন;

অদিতি সেনগুপ্ত

যিনি গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের ‘গার্লফেন্ড’ ছিলেন। সেসময় তিনি অন্যতম ‘মক্ষীরানী’ ছিলেন বলে একাধিক গোয়েন্দা অনুসন্ধানে পাওয়া যায়। অদিতি সেনগুপ্ত চ্যানেল ওয়ানের কর্মকর্তা ছিলেন। পরবর্তীতে গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। তিনি পরবর্তীতে সরকারের বিভিন্ন মহলে প্রভাব বিস্তার করতেন। তার কাছে অনেক প্রভাবশালী রাজনীতিবিদরা আসতো, বিশেষ করে খালেদা জিয়ার পুত্র তারেক জিয়ার সঙ্গেও তাঁর অনৈতিক সম্পর্ক ছিল। এছাড়া অদিতি সেন গুপ্তর কাছে অনেকে ধর্ণা দিতেন বিভিন্ন কাজ, টেন্ডার, পদোন্নতি পাবার জন্য। আলোচিত এই অদিতি সেন গুপ্ত পরবর্তীতে গিয়াস উদ্দিন আল মামুনকে বিয়ে করেছিলেন বলেও জনশ্রুতি রয়েছে।

বেবি নাজনীন

আলোচিত গায়িকা বেবি নাজনীনও সেই সময়ের আলোচিত মক্ষীরানি ছিলেন। তিনিও পাপিয়ার মতো তৎকালীন শেরাটন হোটেল বুক করে দীর্ঘদিন ছিলেন। তাঁর সঙ্গেও বিভিন্ন মহলের দহরম-মহরম ছিল। এবং তাঁর কাছে অনেকে বিভিন্ন টেন্ডার, ব্যবসার জন্য তদবির করতেন বলে জানা গেছে।

চিত্রনায়িকা জনা

চিত্রনায়িকা জনাও বিএনপি-জামায়াতের জোট সরকারের আমলে আলোচিত মক্ষীরানি ছিলেন। তাঁর বাসভবনেও বিএনপির অনেক প্রভাবশালীর মহলের যাতায়াত ছিল এবং তাদেরকে বাগিয়ে তিনি অনেক কাজ বাগাতেন বলে জানা গেছে। 

এছাড়াও এই সময়ে গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের হাওয়া ভবনকে ঘিরে অনেক অপকর্ম হতো বলে বিভিন্ন গোয়ান্দা সূত্রে জানা গেছে। সেই সময় ভারত থেকে অনেক নাম করা শিল্পীদের নিয়ে আসা হতো এবং তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের নির্দেশে এয়ারপোর্ট থেকে ভিআইপি প্রোটোকলে সরাসরি গাজীপুরের হাওয়া ভবনে নিয়ে যাওয়া হতো। সেখানে তারেক জিয়া এবং গিয়াস উদ্দিন আল মামুনরা নানারকম উৎসব এবং রাতভর অনৈতিক কর্মকাণ্ডের পর আবারও বিদেশে ফেরত পাঠানো হতো।

দুটো ঘটনার পার্থক্য হলো, সেই সময় এরা ছিলেন ধরাছোঁয়ার বাইরে। আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার লোকজন তাদেরকে ধরা তো দূরে থাক, ভয়ে তাদের দিকে তাকাতেও পারতো না। আর সাম্প্রতিক সময়ে যখন যারা এসব অপকর্মে জড়াচ্ছে, যখনই আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার নজরে আসছে, তখনই নির্মোহভাবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে। আর এইসব ব্যাপারে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার উপর কোন রাজনৈতিক চাপ নেই। এবং এটাই হলো সবথেকে বড় পার্থক্য। ফলে এখন এসমস্ত ঘটনা বিক্ষিপ্তভাবে হলেও তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আইন বা রাষ্ট্র কার্পন্য করছে না।