ঢাকা, রোববার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ২১ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

তাঁরাই নারী নেতৃত্বের আদর্শ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ বুধবার, ০৮:০০ পিএম
তাঁরাই নারী নেতৃত্বের আদর্শ

পাপিয়াকে নিয়ে এখন রাজনৈতিক অঙ্গনে তোলপাড় চলছে। বলা হচ্ছে, এরা যদি নারী নেতৃত্ব হয় তাহলে নারী নেতৃত্বের ভবিষ্যত কি? বিশেষ করে শুধুমাত্র পাপিয়া নয়, পাপিয়ার সঙ্গে সচিবালয়সহ বিভিন্ন আভিজাত এলাকায় রাজনৈতিক পরিচয় ব্যবহার করে যারা নানারকম অনৈতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত, তাদের কারণে নারীদের জন্য রাজনৈতিক অঙ্গন দুরহ হয়ে উঠছে বলে অনেকে মনে করছেন। অনেকে মনে করছেন যে, রাজনীতিকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে অনেক নারীই এখন নানারকম অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ছে এবং পদপদবী হাতিয়ে নিয়ে দলের বদনাম করছে। কিন্তু রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এরা নারী নেতৃত্বের প্রতীক নয়, নারী নেতৃত্বের আদর্শও নয়, বরং এরা মূলধারাও নয়। বরং বাংলাদেশের নারী নেতৃত্ব স্বমহিমায় উদ্ভাসিত। বাংলাদেশের উল্লেখ করার মতোন নারী নেতৃত্ব রয়েছে এবং যারা এই বাংলাদেশের নারী নেতৃত্বের আদর্শ। এদের মধ্যে রয়েছেন;

শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা শুধু একজন রাষ্ট্রনায়ক নন, বর্তমানে তিনি বিশ্বনেতা। শুধু বাংলাদেশে নয়, সারাবিশ্বে নারী নেতৃত্বের আদর্শ তিনি। তার ব্যক্তিত্ব, প্রাজ্ঞতা এবং প্রত্যুৎপন্নমতিত্বর কারণে তিনি আজ সারাবিশ্বের অনুকরণীয় নেতৃত্ব। শেখ হাসিনার কারণেই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উদ্ভব হয়েছে। যাদের কথা আলোচিত হয় না, নীরবে নিভৃতে কাজ করছেন। এরকম অনেক নারীর আদর্শের উৎস শেখ হাসিনা।

প্রয়াত সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন

আওয়ামী লীগের কঠিন সময়ে জোহরা তাজউদ্দীন ছিলেন নারী নেতৃত্বের এক অনুকরণীয় উদাহরণ। তার হাত দিয়ে আওয়ামী লীগ পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে রাজনীতিতে পুনর্জন্ম লাভ করেছিল। তিনিও একজন প্রাজ্ঞ, দক্ষ এবং দু:সময়ের হাল ধরার মতো শক্তিমান নারী নেত্রী। তিনি নারী সমাজের আদর্শ। তার মেয়েও এখন আওয়ামী লীগের এমপি। তারা টেন্ডারবাজি বা কোন অপকর্মের সঙ্গে যুক্ত নন। কিন্তু নীরবে তারা জনগনের মধ্যে নারী জাগরণে কাজ করছেন।

বেগম সাজেদা চৌধুরী

দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের নারী নেতৃত্বের অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে আছেন। তিনি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন, এখন সংসদ উপনেতা। ব্যক্তিত্ববান, নির্লোভ, সারাজীবন মানুষের জন্য কাজ করার এক অনন্য নজির স্থাপন করেছেন বেগম সাজেদা চৌধুরি।

প্রয়াত আইভী রহমান

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত আইভী রহমান নারী নেতৃত্বের এক আকর্ষণীয় উদাহরণ। একদিকে তিনি যেমন দলের আদর্শ এবং নীতির প্রশ্নে ছিলেন অবিচল, অন্যদিকে তার ব্যক্তিত্ব, রুচিবোধ ছিল সকলের কাছে অনুকরণীয়।

মতিয়া চৌধুরী

উনসত্তরের অগ্নিকন্যা বেগম মতিয়া চৌধুরী নির্লোভ, সাদামাটা জীবন কিন্তু দৃঢ় ব্যক্তিত্বের অধিকারী। নারীর সৌন্দর্য যে তার ব্যক্তিত্বে, এটাই হলো মতিয়া চৌধুরীর প্রভাব।

ডা. দীপু মনি

আওয়ামী লীগ সরকারের শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি। আদর্শ নারী নেতৃত্বের ক্ষেত্রে তিনিও একটি অনুকরণীয় উদাহরণ।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এরাই বাংলাদেশের নারী নেতৃত্বের অনুকরণীয় এবং পূজনীয় দৃষ্টান্ত, পাপিয়ারা নয়। পাপিয়ারা হলো বিচ্ছিন্ন, এবং কিছু রাজনৈতিক অপভ্রংশ। যাদের কারণে রাজনীতি কলুষিত হয়েছে। যত বেশি পাপিয়াদের সরিয়ে শেখ হাসিনা, জোহরা তাজউদ্দীন, সাজেদা চৌধুরীদের মতো নেতৃত্বের আদর্শকে অনুসরণ করবেন নারী সমাজ, তত বেশি নারী নেতৃত্ব বিকশিত হবে বাংলাদেশে।