ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আমলাদের হাতে আওয়ামী লীগের যত সর্বনাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১ জুলাই ২০২০ শনিবার, ০৮:৫৭ পিএম
আমলাদের হাতে আওয়ামী লীগের যত সর্বনাশ

আওয়ামী লীগের মধ্যে এখন তোলপাড় চলছে। আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীরা কিভাবে ঢুকলো এবং ঢুকে দুর্নীতি ও অপকর্ম করছে সে ব্যাপারে মুখ খুলছেন আওয়ামী লীগ নেতারা। আর এই সমস্ত মুখ খোলায় সমালোচনার মুখে পড়েছে আমলারা। যে সমস্ত আমলারা আওয়ামী লীগের দলীয় কর্মকাণ্ডে হস্তক্ষেপ করছে বা আমলা হওয়ার পরে যারা দলীয় বিভিন্ন ফোরামে জায়গা পাচ্ছে তাঁদের হাতেই আওয়ামী লীগের সর্বনাশ হয়েছে বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের তৃণমূলের নেতৃবৃন্দ এবং পূর্ণকালীন রাজনীতিবিদরা।

আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেছেন যে, একজন আমলা ওয়ান ইলেভেনের পরে জাঁকিয়ে বসেছিলেন এবং ২০০৯ সালে তিনি প্রায় উপ প্রধানমন্ত্রীর পদমর্যাদা গ্রহণ করেছিলেন। সেই আমলার দলের ভেতরের বর্তমান অবস্থা নড়বড়ে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে আস্থাভাজন না হওয়ার পরেও দলের বিভিন্ন অপকর্মের সঙ্গে জড়িত এবং তাঁর হাত ধরে অনেক দুর্বৃত্তরা আওয়ামী লীগে প্রবেশ করছে। লক্ষ্মীপুর-২ আসনের স্বতন্ত্র এমপি কাজী শহীদ ইসলাম পাপুলকে সমর্থন দেওয়ার পেছনে ঐ প্রাক্তন আমলার হাত রয়েছে বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের অনেক নেতারা।

আওয়ামী লীগের একটি সূত্র বলছে যে, ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের আগে আমলাদের তৎপরতা এবং হস্তক্ষেপ ছিল নজিরবিহীন এবং তাঁরা বিভিন্ন জায়গায় তথাকথিত জরিপ করে জামালপুরের দীর্ঘদিনের ত্যাগী রাজনীতিবিদ এবং সাবেক ভূমিমন্ত্রী রেজাউল করিম হীরাকে বাদ দেওয়া হয়েছিল। তাঁর বদলের একজন ব্যবসায়ীকে নেওয়া হয়েছিল। সে সময়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগে থাকা একজন গুরুত্বপূর্ণ আমলা জামালপুরের রাজনীতিতে সরাসরি হস্তক্ষেপ করেছিলেন এবং তাঁর পৃষ্ঠপোষকতায় সেই ভূয়া জরিপ করে রেজাউল করিম হীরাকে মনোনয়ন বঞ্চিত করা হয়েছিল। দীর্ঘদিনের ত্যাগী নেতাকে বাদ দিয়ে একজন ব্যবসায়ীকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল স্রেফ এক ভূয়া জরিপের মাধ্যমে। এই নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে ক্ষোভ-অসন্তোষ প্রকাশ্যে কান পাতলেই শোনা যায়। ঐ আমলা শুধুমাত্র রেজাউল করিম হীরাকে বাদ দেয়নি। অনেক স্থানেই তিনি ব্যবসায়ীদের প্রতিস্থাপন করেছে এবং সেই ব্যবসায়ীর হাত ধরে প্রতারক সাহেদ দলে ঢুকেছে বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

প্রতারক সাহেদকে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন বৈঠকে পাঠানোর ক্ষেত্রে ঐ আমলা সরাসরি টেলিফোন করতেন এমন তথ্যও এখন পাওয়া যাচ্ছে। আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেছেন যে, ঐ আমলা তাঁকে টেলিফোন করে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন কার্যক্রমে যুক্ত করার জন্য অনুরোধ করেছিলেন এবং ঐ আমলার রুমেই দিনের অর্ধেক সময় থাকতেন প্রতারক সাহেদ। তাঁর মাধ্যমেই বিভিন্ন জায়গায় ডালপালা বিস্তার করেছিলেন সাহেদ এবং এই আমলার কারণেই আওয়ামী লীগের এমন বদনাম হয়েছে।

রাজশাহী অঞ্চলের আরেক আমলা যিনি একসময় ঢাকার ডিসি এবং ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার ছিলেন, তিনি রাজশাহীতে আওয়ামী লীগের হর্তাকর্তা হয়ে উঠেছিলেন যখন তিনি সচিব ছিলেন। কে মনোনয়ন পাবে কে পাবেনা সেসব বিষয়ে তিনি নানারকম পরামর্শ দিতেন। তাঁর কারণে সেখানে স্বাধীনতাবিরোধী জামাতের অনেক নেতা আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করেছে বলে এমন কথা রাজশাহীতে প্রকাশ্যে আলোচিত হয়। যদিও অবসর গ্রহণের পরে সেই আমলার রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ এখন কমেছে।

স্বাস্থ্যখাতের আরেক দুর্বৃত্ত মিঠুর উত্থানের পেছনেও ঐ আমলার ভূমিকা রয়েছে এবং জনশ্রুতি আছে যে ঐ আমলাকে মিঠু কানাডায় একটি বাড়ি উপহার দিয়েছে। ঐ আমলা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে দীর্ঘদিন যাবত ছিলেন এবং সেসময় মিঠুর ইচ্ছেমতো স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ডেস্কে লোক নেওয়া হতো। মিঠুর ইচ্ছা-অনিচ্ছায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের শেষ কথা হিসেবে বিবেচিত হতো।

বর্তমানে আরেকজন আমলার হাত ধরে সিরাজগঞ্জের রাজনীতিতে অশান্তি সৃষ্টি হচ্ছে বলে কথা এসেছে। সিরাজগঞ্জের রাজনীতিতে মোহাম্মদ নাসিম এবং ডা. মো. হাবিবে মিল্লাতের মধ্যে বিভক্তি করা এবং দুজনকে প্রতিপক্ষ তৈরি করার ক্ষেত্রে ঐ আমলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুর পর সিরাজগঞ্জে যে বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে সেই ঘটনার পেছনেও ওই আমলার হাত রয়েছে বলে  সিরাজগঞ্জের একাধিক নেতা এবং এমপি অভিযোগ করেছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীর কাছে।

এরকম বাস্তবতায় আমলারা কেন রাজনীতিতে নাক গলিয়ে রাজনীতিকে দূষিত করছেন এই প্রশ্ন আওয়ামী লীগের মধ্যে উঠেছে। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলেছে যে, সরকারি কর্মকর্তারা সরকারি কর্মকর্তাদের জায়গায় থাকবে। সরকারি কর্মকর্তাদের অফিস কখনো আওয়ামী লীগ অফিস হতে দেওয়া যায় না এবং আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতা মনে করেন যে, আমলাদের অতি মাখামাখি এবং অতি আওয়ামী লীগার হয়ে যাওয়ার কারণে প্রশাসনের যেমন সর্বনাশ হচ্ছে, আওয়ামী লীগেরও তেমন ক্ষতি হচ্ছে।