ঢাকা, শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবেন খালেদা জিয়ার পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২ আগস্ট ২০২০ রবিবার, ১০:৫৮ এএম
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবেন খালেদা জিয়ার পরিবার

৬ মাসের বিশেষ বিবেচনায় জামিনে আছেন বেগম খালেদা জিয়া। গত ২৫ মার্চ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুকম্পায় বিশেষ বিবেচনায় তাঁকে ৬ মাসের জামিন দেওয়া হয় এবং দুই শর্তে বেগম খালেদা জিয়া এই জামিন পেয়েছিলেন এবং এখন পর্যন্ত বেগম খালেদা জিয়া তাঁর চিকিৎসার জন্যে কোন হাসপাতালে ভর্তি হননি, বাসায় থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছেন। তাঁর বিদেশ যাওয়া নিয়ে গুঞ্জন শোনা গেলেও শেষ পর্যন্ত তিনি বিদেশে যাননি এবং আপাতত তাঁর বিদেশ যাওয়ার সম্ভাবনা নেই বলেই মনে করছেন বেগম খালেদা জিয়ার আত্মীয় এবং বিএনপির নেতৃবৃন্দ।

এদিকে বেগম খালেদা জিয়া যে ৬ মাসের জামিন পেয়েছিলেন তা শেষ হচ্ছে আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর। বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা বলছেন যে, বেগম খালেদা জিয়া এখনো অসুস্থ এবং মানবিক কারণে তাঁর জামিনের মেয়াদ বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। আর তা করতে তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত করবেন বলে জানিয়েছেন। গতকাল ঈদের দিন সকালে বেগম খালেদা জিয়ার ফিরোজার বাসভবনে তাঁর বোন সেলিনা ইসলাম ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার এবং শামীম ইস্কান্দারের স্ত্রী কানিজ ফাতেমা বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে যান এবং সেখানে তাঁরা দুপুরের খাবার গ্রহণ করেন একসঙ্গে। জানা গেছে যে, এই সময়ে বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ বৃদ্ধির জন্যে সরকারের কাছে আবেদন করার ব্যাপারে বেগম খালেদা জিয়া ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছেন। বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্য জানিয়েছেন যে, বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের বিষয়টি সরাসরি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেখেন এবং গতবার তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত করে মানবিক কারণে বেগম খালেদা জিয়ার জন্যে জামিন চেয়েছিলেন। এরপরেই আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় এবং দুই শর্তে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হয়।

জানা গেছে ইতিমধ্যে বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা তাঁর জামিনের মেয়াদ বৃদ্ধির জন্যে সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন এবং এই ব্যাপারে সরকারের মনোভাব স্পষ্ট নয় বলে বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের একজন সদস্য জানিয়েছেন। এজন্যে আগামীকাল প্রথম কার্যদিবসে তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর এপয়েন্টমেন্ট চেয়ে আবেদন করবেন বলে জানা গেছে এবং প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাঁরা বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যগত পরিস্থিতি এবং আরো কিছুদিন তাঁর মুক্ত থাকার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে অবহিত করবেন এবং প্রধানমন্ত্রীর কৃপা প্রার্থনা করবেন। তবে সরকার তাঁর ব্যাপারে কি সিদ্ধান্ত নিবেন তা এখনো স্পষ্ট নয়।

সরকারের একজন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী বলেছেন যে, এটা নির্বাহী আদেশের জামিন কাজেই নির্বাহী প্রধান এই ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবেন। তবে সেই মন্ত্রী আরো বলেছেন যে, বেগম খালেদা জিয়া জামিন পাওয়ার পর এখন পর্যন্ত যেভাবে সময় কাটিয়েছে তাঁতে বাহ্যত প্রতীয়মান হয় যে, তিনি শুধুমাত্র স্বাস্থ্যগত কারণেই জামিন নিয়েছেন, কোন রাজনৈতিক তৎপরতার অংশগ্রহণ করছেন না- যা কিনা ইতিবাচক। তবে তাঁর আসলেই কি চিকিৎসা হয়েছে এবং যে কারণে তিনি জামিন নিয়েছেন সেই কার্যকারণ বাস্তবায়িত হয়েছে কিনা সেটাও দেখার বিষয় রয়েছে।