ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠরা কেন নেই আওয়ামী লীগে?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২ আগস্ট ২০২০ রবিবার, ০৭:০০ পিএম
বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠরা কেন নেই আওয়ামী লীগে?

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি। শুধু সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি নন, তিনি সর্বকালের সেরা বাঙালি রাজনীতিবিদও বটে। তাঁর হাত ধরেই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং জনবান্ধব রাজনৈতিক দল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আওয়ামী লীগ জাতির পিতার আদর্শেই অনুপ্রাণিত একটি দল। বঙ্গবন্ধু তাঁর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে যেমন নির্যাতিত হয়েছেন, কারাবরণ করেছেন, পশ্চিমা হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে আপোসহীন সংগ্রাম করেছেন, তেমনি তিনি সংগঠনকে শক্তিশালী করেছিলেন, সংগঠনকে তৃণমূল পর্যন্ত বিস্তৃত করেছিলেন। জাতির পিতা স্পষ্টই অনুধাবন করেছিলেন যে, সবকিছুর উর্ধ্বে একটি ভালো সংগঠন, একটি আদর্শবান সংগঠন লাগবে। জাতির পিতার অসমাপ্ত আত্মজীবনী, কারাগারের রোজনামচা পাঠ করলে বোঝা যায় যে, তিনি সংগঠনের ব্যাপারে কতটা মনযোগী ছিলেন। তিনি নিজের হাতে অনেক রাজনীতিবিদ তৈরি করতেন, বিভিন্ন পেশার অনেক প্রতিভাবান ব্যক্তিকে তিনি রাজনীতিতে যুক্ত করেছিলেন। বাংলাদেশের রাজনীতিতে এখনও বহু নেতা আছে যারা জাতির পিতার স্নেহধন্য, জাতির পিতা যাঁদের রাজনীতিতে এনেছিলেন এবং জাতির পিতার সঙ্গে যারা ঘনিষ্ঠ ছিলেন। এদের অনেকে মৃত্যুবরণ করেছেন, কেউ কেউ এখনো আওয়ামী লীগে আছেন, আর কেউ কেউ এখন আওয়ামী লীগে নেই। প্রশ্ন ওঠে যে, বঙ্গবন্ধুর যারা ঘনিষ্ঠ, যারা এখনো বঙ্গবন্ধুর ভক্ত, বঙ্গবন্ধুর ব্যাপারে যাঁদের মনে কোন প্রশ্ন নেই, বঙ্গবন্ধুর ব্যাপারে যাঁদের আবেগ-ভালোবাসার কমতি না থাকার পরেও তাঁরা আওয়ামী লীগে নেই কেন? এরকম কয়েকজন ব্যক্তিকে নিয়েই আমাদের এই প্রতিবেদন।

ড. কামাল হোসেন

ড. কামাল হোসেনকে বঙ্গবন্ধু হাতে ধরে রাজনীতিতে এনেছিলেন। উত্তাল গণআন্দোলনের পরপরই বঙ্গবন্ধু ড. কামাল হোসেনকে আওয়ামী লীগে নিয়ে এসেছিলেন। ড. কামাল হোসেন সেই সময় সদ্য আইন পেশায় যোগ দিয়েছিলেন এবং যুক্তরাজ্য থেকে ফিরেছেন। ড. কামাল হোসেন তাঁর এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন যে, বঙ্গবন্ধু যখন তাঁকে রাজনীতিতে আসার আমন্ত্রণ জানালো তখন তাঁর দৃঢ়তা এমন ছিল যে, সেই আমন্ত্রণ তিনি প্রত্যাখ্যান করতে পারেননি। ত্রিশোর্ধ্ব বয়সেই বঙ্গবন্ধু তাঁকে আইনমন্ত্রীর দায়িত্ব দিয়েছিলেন। কিন্তু ডা. কামাল হোসেন এখন আওয়ামী লীগে নেই। ১৯৭৫ এর পরবর্তী সময়ে যেমন তাঁর ভূমিকা ছিল রহস্যময়, তেমনি ১৯৯১ সালে তিনি আওয়ামী লীগ ত্যাগ করে গণফোরাম গঠন করেন। এখন এই গণফোরাম টিকে না থাকার মতোই একটি নামসর্বস্ব রাজনৈতিক দল হিসেবে আছে। ড. কামাল হোসেন আওয়ামী লীগে নেই কেন তা নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে। তবে এর মূল কারণ হলো ড. কামাল হোসেন হয়তো বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে আর এগিয়ে নিতে চাননি বা আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়ায় তিনি একজন ক্রীড়নক হিসেবে কাজ করেন।

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী কেবল বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠই ছিলেন না, তিনি ৭৫ এর ১৫ই আগস্টের পর যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার প্রতিবাদ করেছিলেন তাঁদের মধ্যে তিনি অন্যতম ছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর তিনি ভারতে আশ্রয় নেন, আওয়ামী লীগের সকলের সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকলেও এখন কাদের সিদ্দিকী আওয়ামী লীগে নেই। জানা যায় যে, বঙ্গবন্ধুর প্রতি কাদের সিদ্দিকীর শ্রদ্ধা-আনুগত্যতা নিয়ে সন্দেহ নেই, এমনকি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিও তাঁর ভালোবাসার কমতি নেই। কিন্তু একটি রাজনৈতিক দলে যে নিয়মনীতি মেনে চলতে হয় সেরকম বিধিনিষেধ মানার লোক কাদের সিদ্দিকী নন। তিনি তাঁর নিজের কথা স্পষ্টভাবেই বলেন এবং রাজনৈতিক শৃঙ্খলা, সাংগঠনিক শৃঙ্খলা পালনের ক্ষেত্রে তাঁর কিছু সমস্যা থাকার কারণেই তাঁকে আওয়ামী লীগ ছেঁড়ে চলে যেতে হয় এবং এখনো তিনি দলের বাইরে আছেন।

শেখ শহিদুল ইসলাম

জাতীয় পার্টির একাংশের নেতা শেখ শহিদুল ইসলাম জাতির পিতার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ছিলেন। মেধাবী ছাত্রনেতা-যুবনেতা হিসেবে শেখ শহিদুলকে বঙ্গবন্ধু নিজের হাতে গড়ে তুলেছিলেন। ৭৫ পরবর্তী সময়ে শেখ শহিদুল ইসলাম এরশাদের জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন। জাতীয় পার্টিতে নানা টানাপোড়েন এবং ভাঙ্গন প্রক্রিয়ার তিনি আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর জাতীয় পার্টিতে রয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ব্যাপারে তিনি যেমন আপোসহীন, ঠিক তেমনি বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠদের মধ্যে যারা শিক্ষিত এবং রাজনৈতিক বিচক্ষণতায় এগিয়ে তাঁদের মধ্যে শেখ শহিদুল ইসলাম অন্যতম। বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সদস্য হয়েও তিনি কেন আওয়ামী লীগে নেই সেই এক বড় প্রশ্ন।

কাজী ফিরোজ রশীদ

কাজী ফিরোজ রশীদ বঙ্গবন্ধুর প্রিয়ভাজন এক ছাত্রনেতা এবং যুবনেতা ছিলেন। ৭৫ এর ১৫ই আগস্টের আগের রাতেও কাজী ফিরোজ রশীদের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর সাক্ষাত হয়েছিল। তারপর কাজী ফিরোজ রশীদ রাজনীতির নানা চড়াই-উতরাইয়ে আওয়ামী লীগে টিকে থাকতে পারেননি, যেকোন কারণেই হোক তিনি আদর্শচ্যুত হয়েছেন এবং এখন তিনি জাতীয় পার্টির অন্যতম নেতা।

অধ্যাপক আবু সাইয়িদ

অধ্যাপক আবু সাইয়িদ ছিলেন তরুণ শিক্ষক, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রাজশাহী সফরে গেলে বঙ্গবন্ধুর দৃষ্টি পড়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এই তরুণ শিক্ষকের ওপর। তাঁকে তিনি রাজনীতিতে যোগদানের অনুরোধ জানান। অধ্যাপক আবু সাইয়িদ রাজনীতিতে যোগ দেন। ১৯৭৫ এর পরেও অধ্যাপক আবু সাইয়িদ একজন গবেষক হিসেবে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ করেছেন। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধু হত্যার পেছনে যে ষড়যন্ত্র, অকথিত অধ্যায় ইত্যাদি নিয়ে প্রচুর গবেষণা এবং লেখালিখি করেছেন অধ্যাপক আবু সাইয়িদ। ১৯৯৬ সালে ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে অধ্যাপক আবু সাইয়িদ তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেন এবং গণমাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর অকথিত বিষয়গুলোকে উপস্থাপন করা, বঙ্গবন্ধুর গুরুত্বপূর্ণ ভাষণগুলোকে খুঁজে বের করে আবার প্রকাশ করার ক্ষেত্রে তিনি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। কিন্তু এখন তিনি আওয়ামী লীগে নেই। ২০০৭ সালে সংস্কারপন্থি হওয়ার পর আওয়ামী লীগের সঙ্গে তাঁর টানাপোড়েন তৈরি হয় এবং এখন এই টানাপোড়েনের ধারায় তিনি এখন কেবল আওয়ামী লীগের রাজনীতি থেকে নয়, রাজনৈতিক অঙ্গন থেকেই বিতাড়িত প্রায়।

এরকম আরো কিছু ব্যক্তি আছেন যারা জাতির পিতার ঘনিষ্ঠ ছিলেন, কিন্তু নানা কারণে তাঁরা পথভ্রষ্ট হয়েছেন কিংবা নানা বাস্তবতায় আওয়ামী লীগের সঙ্গে তাঁরা নেই।