ঢাকা, বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সঙ্কটে কেন ঐক্যবদ্ধ থাকতে পারেনা আওয়ামী লীগ?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৪ আগস্ট ২০২০ শুক্রবার, ০৭:৫৮ পিএম
সঙ্কটে কেন ঐক্যবদ্ধ থাকতে পারেনা আওয়ামী লীগ?

কাল জাতীয় শোক দিবস। ১৯৭৫ এর এই দিনে বাঙালি জাতির সবথেকে বড় দুর্ঘটনাটি ঘটে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি। বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে, কিন্তু বঙ্গবন্ধু হত্যার পেছনে যে ষড়যন্ত্র, সেই ষড়যন্ত্রের নেপথ্যে যে রহস্য, তা এখনো উন্মোচিত হয়নি। প্রতি বছর আগস্ট মাস আসলেই যারা বঙ্গবন্ধু হত্যার পেছনে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে জড়িত ছিল, প্রশাসনে যারা নিরব দর্শকের মতো দাঁড়িয়েছিল, যারা দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছিল তাঁদের ব্যাপারে নির্মোহ তদন্তের দাবি করা হয়। একাধিক ব্যক্তিত্ব এই ব্যাপারে একটি ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি গঠনেরও দাবি করেছেন, এর আগেও করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করে এই ব্যাপারে একটি পূর্ণাংগ কমিশন করে তদন্তের দাবি উত্থাপন করেছিলেন।

তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন যে, ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি যেমন করা দরকার তেমনি আওয়ামী লীগের ভূমিকাও বিশ্লেষণ করা দরকার। কারণ ৭৫-এর ১৫ আগস্টে আওয়ামী লীগ রুখে দাঁড়াতে তো পারেইনি, বরং খুনী মোশতাকের মন্ত্রিসভায় আওয়ামী লীগের ৭ জন ছাড়া প্রায় সবাই যোগদান করেছিলেন। আওয়ামী লীগের অধিকাংশ এমপি মোশতাকের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেছিলেন, কেন? এই প্রশ্নের উত্তর খোঁজা জরুরী। তবে শুধু ৭৫-এর ১৫ আগস্ট নয়, ইতিহাস বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে, কোন সঙ্কটেই আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ থাকতে পারেনা, আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্বের মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়ে। বিশেষ করে যখন দলের প্রধান নেতা আক্রান্ত হন, তখন দলের ভেতর বিভ্রান্তি তৈরি হয়। আওয়ামী লীগের এই বিভ্রান্তির ইতিহাস অনেক দীর্ঘ এবং পুরনো। এক্ষেত্রে তিনটি বিভ্রান্তির ঘটনা উল্লেখ করা যেতে পারে।

যখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতির পিতা হয়ে ওঠেননি, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় বন্দি হয়ে কারান্তরীণ। তখন আওয়ামী লীগের মধ্যে বিভ্রান্তি দেখা দিয়েছিল। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধুকে প্যারোলে মুক্তি দিয়ে আলোচনার জন্যে যখন আমন্ত্রন জানানো হয়েছিল, সেই প্রশ্নে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা দ্বিধাবিভক্ত হয়েছিলেন। শুধুমাত্র বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের দৃঢ়তাঁর কারণে সেই সময়ে আপোসকামীতার চোরাবালিতে পা রাখেনি আওয়ামী লীগ। ঐ সময়ে অনেক সিনিয়র নেতা বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে এক ধরণের বিশ্বাসঘাতকতাই করেছিলেন।

এরপর ৭৫ এর ঘটনা। ৭৫-এ আওয়ামী লীগের অনেক বড় বড় নেতারা ব্যক্তিত্বহীন, দায়িত্বহীন এবং কাপুরুষের মতো আচরণ করেছিল তা আজ প্রকাশ্য। পরবর্তীতে এরা আওয়ামী লীগ করেছেন এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা যখন ২১ বছর পর আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় এনেছেন তখন এদের কেউ কেউ এমপিও হয়েছেন। কিন্তু কেন তাঁরা সেদিন খুনী মোশতাকের মন্ত্রিসভায় গিয়েছিল সেই প্রশ্নের উত্তর নেই।

শুধু তাই নয় ৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর থেকে আওয়ামী লীগের ভেতর বহুধাবিভক্ত দেখা দিয়েছিল। জোহরা তাজউদ্দীন যখন আওয়ামী লীগকে পুনর্গঠিত করেন, তখন মিজানুর রহমান আলাদা আওয়ামী লীগ গঠন করেছিলেন। এমনকি মোজাফফর হোসেন পল্টুর নেতৃত্বেও একটা ভগ্ন আওয়ামী লীগ হয়েছে। আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই মনে করেন যে, শেখ হাসিনা যদি দলের হাল না ধরতেন তাহলে আওয়ামী লীগ এতদিনে কালের গর্ভে বিলীন হয়ে যেত।

আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের এই ব্যর্থতার ইতিহাস আরো দীর্ঘ এবং সর্বশেষ উদাহরণ হলো ২০০৭ সালে যখন ওয়ান ইলেভেন আসে তখন। এই সময়ে গণতন্ত্র যখন সঙ্কটে পড়ে, গণতন্ত্রকে রক্ষার জন্য যখন শেখ হাসিনা দৃঢ় অবস্থান গ্রহণ করেন, তখনো তাঁর পাশে থাকেননি আওয়ামী লীগের অনেক শীর্ষ নেতারা। বরং আওয়ামী লীগের চার শীর্ষ নেতা তাদের জায়গা থেকে সংস্কার প্রস্তাব দিয়েছিলেন, যে সংস্কার প্রস্তাব আদতে মাইনাস ফর্মুলা। আওয়ামী লীগের এই শীর্ষ নেতারা এখনো দলে আছে। এদের কেউ কেউ মন্ত্রীও হয়েছেন।

আওয়ামী লীগের তৃণমূলের অনেক নেতাই মনে করেন যে, আওয়ামী লীগের সঙ্কটে, বিশেষ করে প্রধান নেতা যখন আক্রান্ত হন তখন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা দায়িত্বশীল আচরণ করতে পারেনা। কিন্তু তৃণমূলের শক্তিতেই আওয়ামী লীগ বলীয়ান এবং তৃণমূল ঐক্যবদ্ধ থাকে। যার উদাহরণ ২০০৭ সালে দেখা গেছে। এই তৃণমূলের শক্তিতেই আওয়ামী লীগ এখনো টিকে আছে।

আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা, ৭৫ এর ঘটনা এবং ২০০৭ সালের ঘটনা একটি বিষয়ে ইঙ্গিত করে যে,  আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা, যারা দলের পরিচয়ে পরিচিত, দলের জন্য যারা মন্ত্রী হন, দলের জন্যে যারা জনগনের কাছে পরিচিত হন তাঁরা যোগ্য ভূমিকা পালন করতে পারেন না এবং ১৫ আগস্টের জাতীয় শোক দিবসে এই নিয়ে নির্মোহ বিশ্লেষন, গবেষণা এবং অনুসন্ধান প্রয়োজন বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।