ঢাকা, বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

বেঁধে দেওয়া সময়ে হলো না উপকমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার, ০৫:৫৯ পিএম
বেঁধে দেওয়া সময়ে হলো না উপকমিটি

আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজকের (১৫ সেপ্টেম্বর) মধ্যে উপকমিটির নাম জমা দেওয়ার জন্যে সময়সীমা বেঁধে দিয়েছিলেন। দুই সপ্তাহ আগে সম্পাদক মণ্ডলীর সঙ্গে এক বৈঠকে তিনি এই নির্দেশনা জারি করেছিলেন। প্রতিটি উপকমিটি ৩৫ জনের বেশি হবেনা- এরকম একটি নির্দেশনাও দিয়েছিলেন। কিন্তু আজ ১৫ সেপ্টেম্বর শেষ হচ্ছে। আওয়ামী লীগের দপ্তর সূত্রে জানা গেছে যে, মাত্র এক তৃতীয়াংশ উপকমিটির নাম দপ্তরে জমা পড়েছে, এখনো দুই তৃতীয়াংশ উপকমিটির নাম জমা দেওয়া হয়নি। এরফলে এই উপকমিটি গঠনের প্রক্রিয়া আরও পিছিয়ে গেল।

আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে যে, করোনার কারণে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন কমিটিগুলো গঠন এবং আনুষ্ঠানিক ঘোষণার প্রক্রিয়া থমকে ছিল, এখন করোনার সঙ্গে বসবাসের যে কৌশল নিয়ে সরকার এগোচ্ছে তার ফলে সবক্ষেত্রেই স্বাভাবিক কাজকর্ম শুরু হয়েছে এবং একারণে আওয়ামী লীগ সভাপতি সেপ্টেম্বরের মধ্যে উপকমিটি থেকে শুরু করে আওয়ামী লীগের অঙ্গসহযোগী সংগঠনের কমিটি এবং জেলা কমিটি গঠন সম্পন্ন করার নির্দেশনা দিয়েছিলেন। এটার জন্য তিনটি ধাপ ছিল।

প্রথমত, সংশ্লিষ্টরা কমিটিগুলোর নাম প্রস্তাব করে একটি খসড়া দেবে এবং এটা সম্পাদক মণ্ডলীতে যাচাইবাছাই হবে, আলোচনা হবে। তারপর সেটি আওয়ামী লীগ সভাপতির কাছে পাঠানো হবে এবং তিনি এটা যাচাইবাছাই করার পর চূড়ান্তভাবে অনুমোদন দেবেন। এই অনুমোদন প্রক্রিয়াটি ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আওয়ামী লীগ শেষ করতে চেয়েছিল। তারই অংশ হিসাবে আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বিভিন্ন সম্পাদকদের জন্য পৃথক উপকমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগের এরকম ১৭ টি উপকমিটি গঠনের কথা এবং সেটা করার জন্যে প্রত্যেক সম্পাদককে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল এবং তাদেরকে নাম প্রস্তাব করতে বলা হয়েছিল।

আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে যে, সম্পাদক মণ্ডলীদের এটাও বলা হয়েছিল যে, কোন প্রস্তাবিত নামে যদি বিতর্কিত ব্যক্তি থাকে তাহলে তাঁর দায়দায়িত্ব তাকেই বহন করতে হবে। সাম্প্রতিক সময়ে সাহেদ-পাপিয়ার ঘটনার প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগ এবার উপকমিটিগুলোর ব্যাপারে অনেক সতর্ক। এই বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নজরদারির মধ্যে আছে বলেও আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানিয়েছেন। সেই কারণেই উপকমিটি গঠনে খানিকটা ভয় এবং দ্বিধান্বিত আওয়ামী লীগের সম্পাদকরা। তারা নাম দেওয়ার ক্ষেত্রে নানা রকম দ্বিধা দ্বন্ধে ভুগছেন। তারা ভাবছেন যে, যদি কোন বিতর্কিত ব্যক্তির নাম দেওয়া হয় তাহলে তারাই বিপদে পড়তে পারেন। আর এই কারণে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করছেন নাম নির্বাচনের ক্ষেত্রে। আর এটিও উপ কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বিড়ম্বনার সৃষ্টি করেছে বলে জানা গেছে। আবার জেলা পর্যায়ের কমিটিগুলো গঠনের ক্ষেত্রেও দেখা গেছে যে, অনুপ্রবেশকারী এবং সুবিধাভোগীদের সাথে দলের ত্যাগী পরীক্ষিতদের নানা রকম বিরোধ তৈরি হচ্ছে। এই প্রেক্ষাপটে দেশের বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগের উপদলীয় কোন্দল প্রকাশ্য হয়ে উঠেছে। প্রকাশ্যেই আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের খবরও পাওয়া যাচ্ছে। আর এ সমস্ত কারণে আওয়ামী লীগ সভাপতি কমিটিগুলো গঠনের ক্ষেত্রে কঠোর অবস্থানে যেতে পারে বলেও একাধিক সূত্র জানিয়েছে। আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলছেন যে, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্যরা তাদের নিজস্ব উপকমিটি গঠনের ক্ষেত্রে ভয় পাচ্ছেন। আর এজন্যই তারা মনে করছেন যে, আওয়ামী লীগ সভাপতিই যদি কমিটিগুলো গঠন করে দিতেন, তাহলে তাদের জন্য ভালো হতো।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম একজন সদস্য বলেছেন যে, সম্পাদকমণ্ডলীকেই ঠিক করতে হবে তারা কাদেরকে নিয়ে কাজ করতে চান। প্রতিটি সম্পাদকমণ্ডলীর সুনির্দিষ্ট কাজ আছে এবং এই কাজের জন্যই উপকমিটিগুলো গঠন করা হয়। এটি একজন সম্পাদকের টিম, কাজেই সম্পাদককেই ঠিক করতে হবে। জানা গেছে, যারা এখন পর্যন্ত কমিটির নাম জমা দিয়েছেন, তাদের অনেকেই ৩৫ জনের বেশি নাম দিয়েছেন। যদি কাউকে বাদ দেওয়া হয়, তাহলে যেন সংখ্যা কম না হয়। আগে আওয়ামী লীগের একটি উপ কমিটিতে একশ জন বা তারও বেশি থাকার নজির ছিল। এবার বিধি নিষেধ আরোপ করারও একটি বড় সমস্যা রয়েছে, কারণ আওয়ামী লীগে এই ধরণের উপকমিটিতে থাকবার জন্য অনেক কর্মী মুখিয়ে আছেন। এই কারণেই একটা চাপের মধ্যে পড়েছেন সম্পাদকমণ্ডলীরা। তবে আওয়ামী লীগের নেতারা জানিয়েছেন আগামী ৫-৭ দিনের মধ্যেই এই উপকমিটিগুলো চূড়ান্ত হবে।