ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ফরহাদ মযহারঃ ‘রহস্য নিখোঁজ’ থেকে ‘স্বেচ্ছা নিখোঁজ’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ বুধবার, ০৮:৫৯ পিএম
ফরহাদ মযহারঃ ‘রহস্য নিখোঁজ’ থেকে ‘স্বেচ্ছা নিখোঁজ’

 

একদা কট্টর বাম। অতঃপর ইউ-টার্ন নিয়ে কট্টর দক্ষিণপন্থী। এক সময়ের বামপন্থী নাস্তিক এখন বিভ্রান্ত ধর্মগুরু। কিন্তু ২০১৭ সালের শেষ থেকে খবরহীন এই পথহারা কবি।

ফরহাদ মযহার মানেই যেন বিতর্ক। বিভ্রান্তি সৃষ্টিই যেন তার আনন্দ। প্রেম, প্রতারণা, লাম্পট্য, পরকীয়া সব সিঁড়ি পেরিয়েই তিনি নষ্টের শিরোমনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগে লেখাপড়া করেন। মার্কিন মুল্লকে গিয়ে বিয়ে করেন। কিন্তু দেশে ফিরে এসেই মার্কসবাদের প্রচারক হন। আগের স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটিয়ে, নতুন সংসার পাতেন নারী উন্নয়ন কর্মী ফরিদা আক্তারের সঙ্গে। প্রতিভার অভাব ছিলো না তার। কবি হিসেবেই তিনি পেয়ে যেতেন অনন্য মর্যাদা। লেখক হিসেবেও তিনি খ্যাতিমান হয়ে উঠতে পারতেন।

কিন্তু উবিনীগের আড়ালে তিনি সমাজতন্ত্রের ধ্বজা দেখিয়ে আসলে করেছেন সাম্রাজবাদের দালালি। কিন্তু ২০১০ সাল থেকে তিনি ক্রমশ ধর্মে আকৃষ্ট হন। ধর্মপ্রাণ গণ, রাজনীতিতে ধর্মান্দ্ব, মৌলবাদী গোষ্ঠীর অপরিহার্যতার প্রচারক হন ফরহাদ। এর কতটা আদর্শিক আর কতটা অর্থের লোভে- এই বিতর্ক থাকতেই পারে।

কিন্তু ২০১৪ সালে তিনি হেফাজতের মুখপাত্রে পরিণত হন। বিএনপিকে জামাত এবং দক্ষিণপন্থীদের দলের রাখতে যারা মরিয়া চেষ্টা করেছেন, তাদের মধ্যে ফরহাদ মযহার অন্যতম। কিন্তু ২০১৭ ‘র অক্টোবরে তার আকস্মিক নিখোঁজ হয়ে যাওয়া ছিলো সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। তার নিখোঁজ সবার সাথে সাথে বিএনপি-জামাত তারস্বরে চিৎকার করে বলতে থাকে, ফরহাদ মযহারকে অপহরণ করা হয়েছে। সারাদেশে হুলস্থুল পরে যায়। কিন্তু একদিন পরই তাকে পাওয়া যায় দেশের দক্ষিণাঞ্চলের জেলা খুলনায়। এক নারী সেবিকার সঙ্গে সখ্যতার জেরেই তিনি ঘর ছেড়েছিলেন, বলে গুঞ্জন শোনা যায়।

কিন্তু ঐ ঘটনার পর সরব ফরহাদ নীরব হয়ে যায়। তার নিখোঁজ হওয়া নিয়ে যেমন রহস্য আছে, তেমনি তার এখন স্বেচ্ছা নির্বাসন নিয়েও রহস্য কম না। অনেকেই মনে করেন, তার খুলনা সফর ছিলো ‘হৃদয় ঘটিত’। আর এটি যখন সরকার জেনে ফেলেছে, তখন তা সরকারের জালে তিনি এক রকম বন্দীই বটে। যার এতো অপকর্ম তিনি কিভাবে আর সরকারের কঠোর সমালোচনা করবেন। আর সরকার যদি তার ৪৮ ঘন্টার প্রণয়কাহিনী প্রকাশ করে, তাহলে তো ফরহাদ মযহারের সর্বশান্ত হতে বাকি থাকবে না কিছুই। তাইতো, কে হায় হৃদয় খুড়ে বেদনা জাগাতে চায়।