ঢাকা, সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১১ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

দোরাইস্বামী কি কঠিন বার্তা নিয়ে আসছেন?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ বুধবার, ০৯:৫৯ পিএম
দোরাইস্বামী কি কঠিন বার্তা নিয়ে আসছেন?

 

আগামী রোববার বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলী দাশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বিদায়ী সাক্ষাৎ করবেন। এর মাধ্যমেই মূলতঃ শেষ হয়ে যাবে রীভার বাংলাদেশে কূটনীতিক মিশন। ২০১৯ সালের ১৯ মার্চ বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব নিয়েছিলেন রীভা গাঙ্গুলী। একজন রাষ্ট্রদূত সাধারণত তিন বছর মেয়াদের জন্য দায়িত্ব নেন। কিন্তু অর্ধেক সময় পরপরই রীভাকে ফেরত নেয়া হচ্ছে।

নতুন রাষ্ট্রদূত হিসেবে বিক্রম কুমার দোরাইস্বামীর নাম ইতোমধ্যে ঘোষণা করা হয়েছে। কূটনৈতিক ব্যাকরণ অনুযায়ী এই পরিবর্তন একটি স্বাভাবিক পরিবর্তন নয়। বরং এটি বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের বাঁক পরিবর্তনের ইঙ্গিতবাহী। পরিবর্তিত মিশনে এবং নতুন বার্তা নিয়েই দোরাইস্বামী বাংলাদেশে আসছেন। কূটনীতিক মহল বলছেন, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক যদি সব কিছু ঠিকঠাক থাকতো, সেক্ষেত্রে রীভাকে পরিবর্তন করা হতো না।

ভারতীয় বিভিন্ন সূত্র বলছে, হর্ষবর্ধন শ্রিংলা যেভাবে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে গেছেন, রীভা গাঙ্গুলি সেটা পারেননি। আর এক্ষেত্রে নতুন কৌশল এবং বার্তা নিয়েই যে দোরাইস্বামী আসছেন, তাতে কোন সন্দেহ নেই। বাংলাদেশে ভারতের মূল লক্ষ্য তিনটিঃ

১। বাংলাদেশের মাটি ভারতীয় বিচ্ছিন্নতাবাদীদের জন্য ব্যবহৃত হবে না।

২। বাংলাদেশ-চীন সম্পর্ক সীমা অতিক্রম করবে না।

৩। বাংলাদেশে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে ভারত অগ্রাধিকার পাবে।

ভারতের কূটনীতিকরা মনে করেন, প্রথমটির জন্য কোন রাষ্ট্রদূতের প্রয়োজন নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ব্যাপারে অনঢ়, দৃঢ়। এটাই হলো ভারতের প্রধান আস্থার জায়গা।

অন্য দুটি ক্ষেত্রে রাষ্ট্রদূতদের অনেক কিছুই করণীয় আছে, যা শ্রিংলা করেছেন। কিন্তু রীভা করতে পারেননি। বাংলাদেশে একাধিক বড় টেন্ডার ভারতের হাতছাড়া হয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে চীন নির্ভরতা বেড়েছে। এ কারণেই দোরাইস্বামী এই দুই লক্ষ্য পূরণের মিশনে বাংলাদেশ আসছে।

দোরাই স্বামী যুগ্ম সচিব থাকাকালীন সময়ে বাংলাদেশ, শ্রীলংকা ও মিয়ানমার ডেস্ক দেখতেন। তাই বাংলাদেশ-মিয়ানমার সম্পর্কের টানাপোড়েনের মাঝে, চীনকে দুরে রাখার কৌশল হিসেবে ভারত নতুন কোন কৌশল করেছে কিনা- তা বোঝা যাবে দোরাই স্বামী এলে। তবে, বাংলাদেশকে বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চাপ দিয়ে যে কিছু আদায় করা যায় না। এটা ভারতের সাউথ ব্লকের অজানা নয়।