ঢাকা, শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

প্রধানমন্ত্রী চুড়ান্ত করবেন ঢাকা মহানগরী কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৫ অক্টোবর ২০২০ রবিবার, ০৪:৫৯ পিএম
প্রধানমন্ত্রী চুড়ান্ত করবেন ঢাকা মহানগরী কমিটি

ঢাকা মহানগরীর আওয়ামী লীগের দুই কমিটি চুড়ান্ত করবেন প্রধানমন্ত্রী। কমিটি চুড়ান্ত করার কাজ শেষ পর্যায়ে। ঢাকা মহানগর উত্তরের কমিটি মোটামুটি চুড়ান্ত, এই কমিটি নিয়ে বিতর্ক কম। আওয়ামী লীগ সভাপতি এটি যাচাই বাছাই করছেন। সমস্যা দেখা দিয়েছে ঢাকা মহানগর দক্ষিনের কমিটি নিয়ে। এই কমিটির ব্যাপারে ঢাকা দক্ষিণের সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন আনুষ্ঠানিক আপত্তি করেছেন। তার আপত্তির প্রেক্ষিতে, আওয়ামী লীগ সভাপতি কমিটি যাচাই বাছাই করার জন্য স্বারাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালকে দায়িত্ব দিয়েছেন। তার মতামতের পরই, এই কমিটি চুড়ান্ত হবে বলে জানা গেছে। আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, ঢাকা মহানগর সহ ৩১টি জেলার কমিটি গঠনের কাজ করছে আওয়ামী লীগ। গত বছর ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের দ্বি বার্ষিক জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। এই কাউন্সিলের আগে, আওয়ামী লীগ ৩১টি জেলায় সম্মেলন সম্পন্ন করতে সক্ষম হয়। ঐ সব জেলায় সম্মেলনের পরপরই সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের নাম ঘোষনা করা হয়। সভাপতি এবং সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব হলো পূর্নাঙ্গ কমিটির প্রস্তাবনা কেন্দ্রীয় কমিটিতে পাঠানো। করোনা এবং নানা জটিলতার কারনে জেলা থেকে গত আগস্ট পর্যন্ত কোন প্রস্তাবিত কমিটির নাম জমা পরেনি। সেপ্টেম্বরে প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি কমিটির নাম ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে দেয়ার নির্দেশনা দেন। এরপর ঐ সময় সীমা ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়। আওয়ামী লীগের একজন কেন্দ্রীয় নেতা বলেছেন, কমিটি নিয়ে গুরুতর সব অভিযোগ এসেছে। 

অনুসন্ধানে জানা গেছে, সবচেয়ে বেশী অভিযোগ এসেছে কমিটি ভাগ বাটোয়ারা। সভাপতি এবং সাধারন সম্পাদক, জেলা কমিটির পদগুলো নিজেদের মধ্যে ভাগ বাটোয়ারা করেছেন। তাদের বিরুদ্ধ পক্ষের কাউকেই কমিটিতে রাখা হয়নি। আবার কোথাও কোথাও জেলা সভাপতি এবং সাধারন সম্পাদকের বিরোধ থাকায়, আলাদা আলাদা কমিটির প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়াও বহিরাগত, অনুপ্রবেশকারী এবং বিতর্কিত ব্যক্তিদের কমিটিতে অন্তভুক্ত রাখার অভিযোগ উঠেছে। আর একরম অভিযোগের প্রেক্ষিতে এখন এইসব অভিযোগ নিয়ে শুনানী অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, জেলা কমিটি গুলো এখনই চুড়ান্ত হবার সম্ভাবনা কম। আওয়ামী লীগের একনজ প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেছেন, ‘আমরা চাই দেরী হোক, কিন্তু প্রশ্নবিদ্ধ কোন কমিটি যেন না হয়।’