ঢাকা, শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

হাজী সেলিমের ঘটনায় ক্ষুদ্ধ সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৬ অক্টোবর ২০২০ সোমবার, ১০:৫৯ এএম
হাজী সেলিমের ঘটনায় ক্ষুদ্ধ সরকার

গতকাল হাজী সেলিমের সংসদ সদস্য স্টিকারযুক্ত গাড়ির সঙ্গে নৌবাহিনীর কর্মকর্তার মোটরসাইকেলের ধাক্কা হয়। এরপর একটি অনভিপ্রেত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। প্রত্যক্ষদর্শীদের বিবরন থেকে জানা যায় রোববার সন্ধায় কলাবাগান ক্রচিং এর কাছে এই ঘটনা ঘটে। এই ঘটনার পর গাড়ি থেকে কয়েকজন নেমে ওই নৌ কর্মকর্তাকে মারধর করেন। ওই কর্মকর্তা বারবার তার পরিচয় দেয়ার পরও তাকে মারধর অবহ্যহত রাখে। এরপর পুলিশ সংসদের গাড়ি ও নৌ বাহিনী কর্মকর্তার মটরসাইকেল ধানমন্ডি নিয়ে তাদের মধ্যে সমঝোতার চেষ্টা করা হয়।

একাধিক প্রত্যক্ষর্দী মুঠোফোনে ভিডিও করে। নৌবাহিনীর একজন কর্মকর্তাকে এ ধরনের মারধর করার ঘটনা নজিরবিহীন। এটি সরকারের জন্য বিব্রতকর বলে মনে করছেন সরকারের একাধিক নীতিনির্ধারকরা। যদিও ওই ঘটনার সময় হাজী সেলিম গড়িতে ছিলেন না কিন্তু তার ছেলে সেসময় গাড়িতে ছিলেন বলে জানা গেছে। তার ছেলের নিরাপত্তারক্ষীরা ওই নৌ কর্মকর্তাকে মারধর করেন।

আওয়ামী লীগের একজন শীর্ষ নেতা বলেছেন যদি কোনো অনভিপ্রেত ঘটনা ঘটে তাহলে সংসদ সদস্যের ছেলে পুলিশের সহায়তা নিতে পারতেন। কিন্তু আইন নিজের হাতে তুলে নেয়া এবং একজন মানুষকে মারধর করা একটি জঘন্য অপরাধ। আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারক মহল  এ ব্যাপারে আইনকে নিজেস্ব গতিতে চলার নির্দেশনা দিয়েছেন। যারা নৌবাহিনীর কর্মকর্তার ওপর হামলা করেছে তাদেরকে আইনের আওতায় আনার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। আওয়ামী লীগ মনে করছে করোনার পরিস্থিতিতে নানা সমস্যায় রয়েছে সরকার। এই অবস্থায় একজন নৌবাহিনীর কর্মকর্তার গায়ে হাত তোলা অবিশ্বাস্য এবং দায়িত্বহীন আচরণ।

আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেছেন যে এই ঘটনার পর হাজী সেলিম তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে পারতেন। তার ছেলেকে নিবৃত করতে পারতেন কিন্তু সেখানে তার ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে বলে আওয়ামী লীগের নেতারা বলেছেন। একাধিক সূত্র বলেছে যে আইন নিজের হাতে তুলে নেয়া এবং একজন্য ব্যক্তিকে মারধর করার ঘটনায় হাজী সেলিমের ছেলে ও নিরাপত্তারক্ষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।