ঢাকা, শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ঘটনার দিন মাতাল ছিলেন ইরফান

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৯ অক্টোবর ২০২০ বৃহস্পতিবার, ১০:৫৩ এএম
ঘটনার দিন মাতাল ছিলেন ইরফান

ইরফান সেলিম সবসময় মাতাল থাকতেন। গত রোববার সন্ধায় কলাবাগান ক্রসিং এলাকায় হাজী সেলিমের সংসদ সদস্য স্টিকারযুক্ত গাড়ির সঙ্গে নৌবাহিনী কর্মকর্তার মোটর সাইকেলের ধাক্কা লাগে। নৌবাহিনীর কর্মকর্তা তার স্ত্রীসহ ওই মটরসাইকেলে যাচ্ছিলেন। এরপর হাজী সেলিমের ছেলে ও তার নিরাপত্তাকর্মী গাড়ি থেকে নেমে ওই কর্মকর্তাকে মারধর করেন। ওই গাড়িটির মালিক হাজী সেলিম হলেও গাড়িটি ব্যবহার করতেন তার পুত্র ইরফান সেলিম।

কলাবাগানের ওই ঘটনার আগেই ইরফান মদ্যপান করেছিলেন এবং মাতাল অবস্থায় ছিলেন। ইরফান সেলিম ও তার সহযোগীদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে। জিজ্ঞাসাবাদে ইরফান সেলিমের দেহরক্ষী ও গাড়িচালক দুজনেই বলেছেন, ঘটনার আগে মাতাল অবস্থায় ছিলেন ইরফান সেলিম। এছাড়া ইরফান প্রায়ই মাতাল থাকতেন।

র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে ইরফান সেলিম নিজেই শিকার করেছেন ওই ঘটনার দিন তিনি মাতাল ছিলেন। এরপর তিনি বাসায় ফিরে ঘটনার জন্য অনুতপ্ত হয়ে বিষয়টি তার মাকে জানান। মায়ের সঙ্গে কথপোকথনের একপর্যায়ে কথা কাটাকাটি হলে চান সরদার দাদা বাড়িতে বসেই সারারাত মদ্যপান করেন তিনি।

সোমবার র‌্যাব যখন তার বাসায় অভিযান পরিচালনা করে সেসময় র‌্যাবের কাছে ইরফান শিকার করেন যে তিনি মাদকাসক্ত ছিলেন এবং মদ্যপ অবস্থায় গাড়িতে ছিলেন, এজন্য তিনি উত্তেজিত ছিলেন। ইরফান সেলিম এটাও শিকার করেন যে তিনি রোববারের ঘটনার পর বাসায় ফিরে সারারাত মদ্যপান করেছেন। এরপর র‌্যাবের ডোপ টেস্টেও ধরা পড়ে তিনি মাতাল ছিলেন। ইরফান সেলিমের দেহরক্ষীর ও গাড়িচালক জানিয়েছেন, শুধু বাইরের লোকজনকেই নয় মদ্যপ অবস্থায় উত্তেজিত হয়ে গাড়ি চালকদেরও কথায় কথায় মারধর, গালিগালাজ করতেন ইরফান।

উল্লেখ্য, ওই ঘটনায় নৌবাহিনী কর্মকর্তাকে মারধর এবং হত্যার হুমকিতে একটি মামলা দায়ের করা হয়। ওই মামলার পর র‌্যাব অভিযান পরিচালনা করে। বড় কাটরায় হাজী সেলিমের রাজকীয় ভবন চান সরদার দাদা বাড়ি নামের ওই বাড়িতে র‌্যাব অভিযান পরিচালনা করে বিপুল পরিমাণ মাদক, ইয়াবা, অস্ত্র এবং পেশাদার ওয়াকিটকি পেয়েছে। এছাড়া চকবাজারে হাজী সেলিমের ব্যবসায়ীক কার্যালয়েও পাওয়া গেছে টর্চার সেল। এখন র‌্যাবের পক্ষ থেকে বেশ কয়েকটি মামলায় ইরফান রিমান্ডে আছেন।