ঢাকা, রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আবুল কি আসছেন?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০২১ বুধবার, ০৮:৫৬ পিএম
আবুল কি আসছেন?

সৈয়দ আবুল হোসেন। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পান। নিজ এলাকায় ব্যাপক জনপ্রিয় এবং প্রায় অপ্রতিদ্বন্দ্বি তিনি। তার হাতেই আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর দায়িত্ব তুলেদিয়েছেন।

ওয়ান ইলেভেন পরবর্তী সময়ে আওয়ামী লীগের সবচেয়ে ভাগ্যবান নেতাদের অন্যতম ছিলেন সৈয়দ আবুল হোসেন। একাধারে আওয়ামী লীগের সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য, এমপি এবং গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী। কিন্তু পদ্মা সেতু বিতর্কে সব কিছু যেন লন্ডভন্ড হয়ে যায় সৈয়দ আবুল হোসেনের। মন্ত্রীত্ব চেড়ে দিতে বাধ্য হন। পরে তার আসনে আবদুস সোবহান গোপালপকে মনোনয়ন দেয়া হয়। এমনকি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব থেকেও তাকে সরিয়ে দেয়া হয়। যদিও পদ্মা সেতু নিয়ে বিশ্বব্যাংকে অভিযোগ যে মনগড়া, ভিত্তিহীন ছিলো তা প্রমাণিত হয়েছে।

সেতু বিতর্কে ‘নির্যাতিত’ হবার কারণে তৎকালীন সেতু সচিব পুরুস্কৃত হয়েছেন। কিন্তু আবুল হোসেন অপাক্তেয়ই রয়ে গেলেন। তবে, সৈয়দ আবুল হোসেন আবার ফিরে আসছেন এমন গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে আওয়ামী লীগেই। গত কিছুদিন ধরেই তিনি সরব। বিশেষ করে পদ্মা সেতুতে পুরো পুরি দৃশ্যমান হবার পর গণমাধ্যমে সরব দেখা যাচ্ছে সৈয়দ আবুল হোসেনকে। মন্ত্রীত্ব হারানোর পর নিজস্ব ব্যবসা এবং সামাজিক সেবা মূলক কর্মকান্ডে নিজেকে ব্যস্ত রেখেছিলেন। এখন রাজনৈতকি অঙ্গনেও আস্তে আস্তে সরব হচ্ছেন। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তিনি প্রধান অতিথি থাকছেন। পদ্মা সেতু সহ সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড নিয়ে বক্তব্য রাখছেন।

আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র বলছেন, দলের হাইকমান্ডের সংগে সেয়দ আবুল হোসেনের সব সময় ভালো যোগাযোগ ছিলো। তাদের পরামর্শেই রাজনৈতিক কর্মকান্ড থেকে তিনি নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছিলেন। এখন আবার তাদের নির্দেশেই আস্তে আস্তে রাজনীতির মাঠে পা রাখছেন সৈয়দ আবুল হোসেন। গুঞ্জন আছে, আবার মন্ত্রী হতে পারেন তিনি। আবার তাকে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের সদস্য করা হতে পারে এমন কথাও শোনা যায়। তবে, সৈয়দ আবুল হোসেন এসব পাওয়া না পাওয়া নিয়ে ভাবে না বলেই জানিয়েছেন।

পদ্মা সেতু হচ্ছে এটাই তার বড় শান্তি। তিনি মনে করেন ‘আওয়ামী লীগ সভাপতি আমাকে যখন যে দায়িত্ব দিয়েছে তা নিষ্ঠার সংগে পালন করেছি। ভবিষ্যতেও করবো।’