ঢাকা, বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, ৭ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

কি হচ্ছে বসুর হাটে?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৪:৫৮ পিএম
কি হচ্ছে বসুর হাটে?

আগামী ১৬ জানুয়ারি নোয়াখালীর বসুর হাট পৌরসভার নির্বাচন। দেশের অন্যসব পৌরসভার নির্বাচন ছাপিয়ে এখন সারাদেশের মানুষের দৃষ্টি বসুর হাটের দিকে। রাজনীতির অন্যতম আকর্ষনের কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে সবুর হাট। এর কারণ, এখানে নির্বাচনী প্রচারণা নয়। আওয়ামী লীগ আর বিএনপির হাড্ডাহাড্ডি লড়াইও নয়। বসুর হাট পৌরসভার নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিচিত্র বিস্ফোরক মন্তব্যে উত্তপ্ত দেশ। তার কথা বার্তা শৈত্য প্রবাহকে ছাপিয়ে গরম রাজনৈকি পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। বসুর হাটে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা। আওয়ামী লীগের প্রার্থী, এর চেয়েও তার বড় পরিচয় হলো, তিনি আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই। নির্বাচনী প্রচারনার শুরু থেকেই বিতর্কিত মন্তব্যে তিনি সবার নজর কেড়েছেন। তার বক্তব্য প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের বিরুদ্ধে নয়, আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে। আওয়ামী লীগ অনুপ্রবেশকারী, চাটুকারদের দাপট। কোন কোন নেতার দুর্নীতি, ভাইকে (আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক) সাবধান বানী, প্রধানমন্ত্রীর সংগে সাক্ষাত করে কি বলবেন তার ফিরিস্তি, আওয়ামী লীগের পাতি নেতারাও আমেরিকায় বাড়ী বানিয়েছে বলে বিস্ফোরক মন্তব্য করে কাদের মির্জা এখন দেশের রাজনীতিতে আলোচিত নাম।

তার বক্তব্যে আওয়ামী লীগের অধিকাংশ কেন্দ্রীয় নেতা বিরক্ত, বিব্রত। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়ামের একজন সদস্য বলেছেন ‘তার বক্তব্য আপত্তিকর এবং দলের জন্য অবমাননাকর। এসব বক্তব্য গণমাধ্যমে ব্যাপক ভাবে প্রচারিত হচ্ছে, তা যদি অন্যান্য পৌরসভা, জেলার স্থানীয় নেতৃবৃন্দ রাখা শুরু করে, তাহলে কি হবে? এই সব বক্তব্য বিরোধি দলের হাতে তুলে দেয়ার সামিল।’ এই সব বিতর্কের কেন্দ্রে যার ভাই, তিনি এবিষয়ে সম্পূর্ণ নীরব। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলেন ‘কাদের ভাইয়ের শুরুতেই তার ভাইকে সামলানো উচিত ছিলো। দলের জন্য এসব মর্যাদাহানিকর বক্তব্যের বিরুদ্ধে তাকে সাবধান করা উচিত ছিলো। নির্বাচনী কৌশল হিসেবেই মির্জা কাদের আত্মসমালোচনার এই কৌশল নিয়েছেন। কিন্ত দীর্ঘ ১২ বছর টানা ক্ষমতায় থাকার কারণে, স্থানীয় পর্যায়ে আওয়ামী লীগের অনেক নেতার মধ্যেই নানা ক্ষোভ রয়েছে। এখন তারা যদি মির্জা কাদেরের মতো কথা বলা শুরু করে, তা হলে কি হবে? তখন তাদের মুখ বন্ধ করা হবে কোন যুক্তিতে? বসুর হাটে যা হচ্ছে, তা আওয়ামী লীগের জন্য অশনী সংকেত বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।