ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ৩ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আওয়ামী লীগও প্রস্তুত হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৯:৫৯ পিএম
আওয়ামী লীগও প্রস্তুত হচ্ছে

আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারক মহল মনে করছেন, সরকারের ওপর আঞ্চলিক চাপ সৃষ্টি করা হতে পারে এবং সরকার যে পদক্ষেপগুলো নিচ্ছে, সে পদক্ষেপের কারণে রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তাপ হতে পারে। রাজনৈতিক এই উত্তাপকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করার জন্য আওয়ামী লীগও প্রস্তুত হচ্ছে। ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগ সারাদেশে সাংগঠনিক তৎপরতা বৃদ্ধির উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। পাশাপাশি আগামী ২১শে ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত মুজিব বর্ষ উদযাপন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ রাজনীতির মাঠ দখলে রাখতে চায়। এখানে বিএনপিকে কোন সুযোগ দিতে চায় না।

সম্প্রতি জিয়াউর রহমানের বীর উত্তম খেতাব বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়ছে। সরকার ইতিমধ্যেই বিএনপি’র ব্যাপারে তাদের কঠোর অবস্থান জানিয়েছেন। বিশেষ করে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনগুলো নিয়ে বিএনপি যে মাঠ গরম করার চেষ্টা করছে সেটি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করার চিন্তাভাবনা করছে এবং সে অনুযায়ী উদ্যোগ গ্রহণ করছে। এ কারণেই ২১শে ফেব্রুয়ারির পরপরই আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দলের ভেতর বিশৃঙ্খলা, বিরোধ এবং অন্তঃকলহ বন্ধ করার জন্য কঠোরভাবে নির্দেশনা দিচ্ছেন। আগামী কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে এ ব্যাপারে আরো বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। সংগঠনের অন্তঃকলহ বন্ধ করে বিরোধী রাজনৈতিক দল যেন রাজপথ দখলে না নিতে পারে, সেজন্য আওয়ামী লীগ কঠোর অবস্থানে যাবে বলেও আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো জানিয়েছে।

জিয়াউর রহমানের বীর উত্তম খেতাব বাতিল হলে আওয়ামী লীগ রাজপথে সভা-সমাবেশ এবং বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে এই সরকারি পদক্ষেপকে অভিনন্দন এবং স্বাগত জানাবে বলেও আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড মনে করে যে রাজনৈতিক কর্মসূচির মাধ্যমে সংগঠনকে উজ্জীবিত রাখা যায় এবং রাজনৈতিক কর্মসূচি থাকলেই সংগঠনের অন্তঃকলহ দূর হয়ে যায়। ইতিমধ্যেই অন্য সহযোগী সংগঠনগুলোকে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগের একজন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, করোনার কারণে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কর্মসূচি বন্ধ ছিল। পরবর্তীতে সীমিতভাবে কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। এখন ধীরে ধীরে আমরা বিভিন্ন সাংগঠনিক কার্যক্রমের মধ্যে যাব। তিনি বলেন, যেহেতু মুজিব বর্ষ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে এবং ১৭ মার্চ জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী, সেজন্য আওয়ামীলীগ কিছু বর্ণাঢ্য কর্মসূচি রাখবে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, এসব কর্মসূচি মূলত রাজপথ দখলকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ বিএনপিকে কোনো সুযোগ দিতে চায়না। কারণ, বিএনপি এখন নির্বাচন, জিয়াউর রহমানের বীর উত্তম খেতাব বাতিলসহ বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আন্দোলনের কর্মসূচি দিতে চাইছে। এই কর্মসূচি রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করার জন্য আওয়ামী লীগও প্রস্তুত হচ্ছে।