ঢাকা, বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ২ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

নির্বাচনের পথে দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৫:৫৯ পিএম
নির্বাচনের পথে দেশ

মূলত আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা মুক্তি পাওয়ার পর থেকেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান কাজ হয়ে দাঁড়ায় একটি অর্থবহ নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতা হস্তান্তর করা। কিন্তু সে সময় আওয়ামী লীগ নির্বাচনের পথে হাটলেও বিএনপিকে নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছিলো।  শেখ হাসিনা কারগার থেকে বেড়িয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান এবং দলকে নির্বাচনী কর্মকাণ্ড করার জন্য নির্দেশনা দেন। একইসাথে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে বসে নির্বাচনী ইশতেহারসহ নির্বাচনের বিভিন্ন বিষয়গুলো নিয়ে হোম ওয়ার্ক করার সুযোগ পান। শেখ হাসিনার জন্য এটি ভালো হয়েছিলো কারণ তিনি নিরিবিলি পরিবেশে প্রার্থী বাছাই, নির্বাচনী ইশতেহার প্রণয়ণসহ নির্বাচনী কৈশল প্রণয়ণের কাজটি করতে পেরেছিলেন।

বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আগ পর্যন্ত বিএনপি ছিলো বিভক্ত এবং নির্বাচন করতে বিএনপির মধ্যে দুই রকমের মত ছিলো। অন্যদিকে সাইফুর রহমান এবং মেজর হাফিজ উদ্দিনের নেতৃত্বের বিএনপির নির্বাচনে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত ছিলো। নির্বাচন কমিশন তাদের ধানের শীষ প্রতিকও বরাদ্দ দিয়েছিলো। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির পর পুরো প্রেক্ষাপট পাল্টে যায়। খালেদা জিয়ার মুক্তির সঙ্গে সঙ্গে বিএনপির সংস্কারপন্থীরা কোনঠাসা হয়ে পড়ে এবং তখনই মান্নান ভূঁইয়া ও তার পন্থীদের বিএনপির রাজনীতিতে অবশান ঘটে।  

এই সময় খালেদা জিয়ার নেতৃত্বের বিএনপি আত্মপ্রকাশ করে। এই সময় নির্বাচন কমিশন তাদের ভুল বুঝতে পারে এবং দ্রুত সাইফুর রহমান এবং মেজর হাফিজ উদ্দিনের ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্দ প্রত্যাহার করে নেন। নির্বাচন কমিশনের এই অবস্থানের পর বিএনপি ২০ সেপ্টেম্বর নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বৈঠকে অংশগ্রহণ করে। তবে খালেদা জিয়া বুঝতে পারেন যে বিএনপির অবস্থা নাজুক এবং এই নির্বাচনে গিয়ে তার খুব একটা সুবিধা হবে না। তাই তিনি নির্বাচন কমিশনকে নানা রকম শর্ত আরোপ করেন। শেষ পর্যন্ত বিএনপিকে নির্বাচনে আনতে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উদ্যোগে সংলাপ অনুষ্ঠিত হয় এবং এর মধ্য দিয়ে সকল দলের অংশগ্রহণে নির্বাচনের পথ প্রশস্ত হয়। একদিকে বিএনপির অন্তর্কলহ ও নেতৃত্বের জোটেও নানা রকমন টানাপোড়েন। এসমস্ত টানাপোড়েনের মধ্যেই নির্বাচনের পথে হাটতে শুরু করে বিএনপি। 

১/১১ সরকারের প্রথম অবস্থান ছিলো ৪টি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। ওই চারটি নির্বাচেনর মাধ্যমে একটি বিষয় স্পষ্ট হয়ে যায় যে সারাদেশে আওয়ামী লীগের পক্ষে একটি জনমত তৈরি হয়েছে। এখন প্রশ্ন থাকে বিএনপির এই জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে কিভাবে নির্বাচনী বৈতরণী পার হবে।

আগামীকাল পর্ব-৪১ : অবশেষে দেখা হলো দুই নেত্রীর