ঢাকা, সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ৭ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

যাদের নিয়ে বিএনপিতে আতঙ্ক

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৮:৫৭ পিএম
যাদের নিয়ে বিএনপিতে আতঙ্ক

বিএনপি একটি বড় ধরনের আন্দোলন করতে চায়। কিন্তু আন্দোলন করার ক্ষেত্রে বিএনপির সব থেকে বড় বাধা হলো আতঙ্ক এবং দল ভাঙ্গার শঙ্কা।  বিএনপির একাধিক নেতা মনে করেন যে বড় ধরনের আন্দোলনে গেলেই সরকার বিএনপির ভাঙ্গনের চেষ্টা করবে এবং বিএনপির যে সাংগঠনিক বিন্যাস এখন রয়েছে, সেই সাংগঠনিক বিন্যাসে বিএনপি যেকোনো সময় ভেঙ্গে যেতে পারে।  

২০১৮ সালের নির্বাচনের পর থেকেই বিএনপির মধ্যে প্রকাশ্য কোন্দল দেখা দিচ্ছে। বিশেষ করে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের প্রতি অনুগত নয় দলের অধিকাংশ সিনিয়র নেতা।  তারপরও দলের ভারসাম্য রক্ষার জন্য এখন পর্যন্ত মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে দলের মহাসচিব হিসেবে রাখা হয়েছে। দলের কেন্দ্রীয় কমিটির অনেক সদস্যই স্থায়ী কমিটির ভুমিকা নিয়ে ক্ষুব্ধ। তারা মনে করে যে, স্থায়ী কমিটিতে অসুস্থ এবং মৃতপ্রায় ব্যক্তিদের রাখা হয়েছে। যার জন্য স্থায়ী কমিটি কোনো কাজ করতে পারছে না। আর এই নাজুক অবস্থার মধ্যে কিছু কিছু লোকের তৎপড়তায় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা উদ্বিগ্ন। 

বিশেষ করে লন্ডনে পলাতক দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া মনে করেন, এই লোকগুলো বিএনপির ভাঙ্গনের জন্য কাজ করছে এবং আসলে তারা সরকারের এজেন্ট।  যাদেরকে নিয়ে বিএনপি আতঙ্কিত তাদের মধ্যে রয়েছে:

১. অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী: বিকল্প ধারার এই নেতা বেশ কিছুদিন ধরেই চুপচাপ ছিলেন। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে তাকে আবার তৎপর দেখা যাচ্ছে। বিএনপির বিভিন্ন নেতৃবৃন্দের সঙ্গে তার যোগাযোগের খবর পাচ্ছেন বিএনপি নেতারা। বিএনপিকে পরিবারতন্ত্র ছেড়ে একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক দল হিসেবে গড়ে ওঠার পরামর্শ তিনি দিচ্ছেন।  জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের আগেও অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে নিয়ে বিএনপিতে শঙ্কা ছিলো। সেই সময় একটি জোট গঠনের ক্ষেত্রে অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী এগিয়ে ছিলেন। পরে লন্ডন থেকে তারেক জিয়া অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে বাদ দিয়ে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে জোট করার জন্য নির্দেশনা দিলে বদরুদ্দোজা চৌধুরী ছিটকে পড়েন। পরে তিনি আওয়ামী লীগের মহাজোটে যোগ দান করেন এবং ঐ নির্বাচনে মাহি বি চৌধুরী এবং আব্দুল মান্নান এমপি হিসেবে নির্বাচিত হন।  এখন অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী বিএনপিতে পরিবারতন্ত্র বিরোধী একটি মোর্চা করার জন্য বিভিন্ন নেতাকে উস্কে দিচ্ছেন বলে বিএনপি নেতারা অভিযোগ করছেন। 

২. কর্ণেল (অবঃ) অলি আহমেদ: কর্ণেল অলি আহমেদ বিএনপির এক সময়ের প্রভাবশালী নেতা ছিলেন। এখন তিনি এলডিপির চেয়ারম্যান। কর্ণেল অলি আহমেদ ২০ দলীয় জোটে থাকলেও প্রকাশ্যে বিএনপির নেতৃত্বের সমালোচনা করছেন এবং বিএনপিকে বিভিন্নভাবে উপদেশ দিচ্ছেন। এটিকে বিএনপির অনেক নেতা দল ভাঙ্গার ষড়যন্ত্র হিসেবে দেখছেন।  কর্ণেল অলি আহমেদের সঙ্গে বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের অনেক নেতার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে।  তিনি প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে বিএনপির সঙ্গেই যুক্ত। আর এ কারণে বিএনপির অনেক নেতা মনে করেন যে, সরকার হয়ত তাকে ব্যবহার করে বিএনপি ভাঙ্গার জন্য চেষ্টা করতে পারে। 

৩. মেজর জেনারেল (অবঃ) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম: সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম কল্যাণ পার্টির নেতা। তিনি ২০ দলীয় জোটের সদস্য। যদিও তিনি কখনোই বিএনপি করতেন না।  তবে বিএনপির অনেক নেতৃবৃন্দের সঙ্গেই তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে এবং সাম্প্রতিক সময়ে তিনিই সবচেয়ে বেশি তৎপর। বিশেষ করে সুশীল সমাজ, সেনাবাহিনীর প্রাক্তন কর্মকমর্তা, প্রশাসনের সাবেক কর্মকর্তাদের নিয়ে তিনি যেভাবে একের পর এক গেট টুগেদার করছেন তা বিএনপির বড় মাথাব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।  বিএনপি নেতারা মনে করছে এটা সরকারবিরোধী কােনো প্লাটফর্ম না বরং বিএনপি ভাঙ্গার ষড়যন্ত্র। 

আর এই সমস্ত ব্যক্তিদের আতঙ্কেই বিএনপি এখনই বড় ধরনের কোনো আন্দোলনে যাওয়ার ব্যাপারে দ্বিধান্বিত। কারণ তারা মনে করছে যখনই বড় ধরনের কোনো আন্দোলন হবে এবং আন্দোলন যদি নেতৃত্বের নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে যায় সেক্ষেত্রে এই ব্যক্তিরা দল ভাঙ্গার ক্ষেত্রে সামনে চলে আসবেন।  এবং তখন বিএনপি সরকার পতনের আন্দোলন করছে তার চেয়ে নিজেই ক্ষতিগ্রস্থ হবে বেশি।