ঢাকা, বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আওয়ামী লীগের নানা মত, নানা পথ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২১ এপ্রিল ২০২১ বুধবার, ০৭:৫৯ পিএম
আওয়ামী লীগের নানা মত, নানা পথ

একটি রাজনৈতিক দল চলে একটি সুনির্দিষ্ট আদর্শ নিয়ে। প্রত্যেকটি ইস্যুতে রাজনৈতিক দলটির অভিন্ন মতামত এবং চিন্তা থাকে। রাজনৈতিক দলের পরিচালনার কৌশল হলো রাজনৈতিক দলগুলো ভেতরে একটি সুস্পষ্ট বিষয় নিয়ে বিতর্ক করবে। নানা রকম মত,পথ নিয়ে আলোচনা হবে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দলীয়ভাবে যে সিদ্ধান্ত হবে সেটি হলো দলীয় সিদ্ধান্ত এবং সেই আলোকেই সকল নেতা কথা বলবে। এটিই গণতান্ত্রিক শিষ্ঠাচার নীতি। কিন্তু দেশের প্রধান রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের মধ্যে এখন এই গণতান্ত্রিক রীতি নীতির ছিটেফোঁটাও দেখা যাচ্ছে না। বরং আওয়ামী লীগের নেতারা ফ্রিস্টাইলে কথা বলছেন। সব ইস্যুতেই আওয়ামী লীগের নেতাদের নানা মত নানা পথ। এই নানা মত নানা পথের মধ্যে আওয়ামী লীগের মত কোনটা, আওয়ামী লীগের অবস্থান কি, এই নিয়েই প্রশ্ন উঠেছে। 

আওয়ামী লীগের মধ্যে এখন প্রধানত দুটি সুস্পষ্ট ধারা রয়েছে। একটি হলো সরকার লীগ, অন্যটি হলো আওয়ামী লীগ। সরকার লীগে যারা প্রভাবশালী মন্ত্রী তারা সরকার লীগের মূল হর্তাকর্তা। তারা কথাবার্তা বলেন আমলাদের মতো, সরকারের মতো এবং এই সমস্ত কথাবার্তার মধ্যে আওয়ামী লীগের চিন্তা-চেতনা রাজনীতির বিন্দুবিসর্গ উপস্থিত নেই। আর অন্যদিকে আওয়ামী লীগের যারা নেতা তারা সরকার থেকে নক্ষত্রের দূরে এবং তাদের কথাবার্তা সরকারের মন্ত্রীরা কানে তোলেন বলে মনে হয় না। এমনকি আওয়ামী লীগের যারা গুরুত্বপূর্ণ নেতা আবার সরকারেও গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী তাদের মধ্যে দু`একজন ছাড়া যেমন, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ এরকম দু`একজন ছাড়া কেউই রাজনৈতিক বিষয়ে কোনো বক্তব্য রাখেন না। একদিকে যখন আওয়ামী লীগের নেতারা বলেন যে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে হবে, দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল করতে হবে তখন সরকার লীগের নেতারা বলেন দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আছে। আওয়ামী লীগের নেতারা যখন বলেন, হেফাজতকে দমন করতে হবে তখন সরকার লীগের মন্ত্রীরা বলেন, হেফাজত তাদের শত্রু নয়, দুষ্কৃতিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। আওয়ামী লীগের নেতারা যখন বলেন যে, দুর্নীতি এবং দুর্বৃত্তায়ন বন্ধ করতে হবে তখন সরকার লীগের নেতারা বলেন যে, সরকার দুর্নীতিমুক্ত। 

এই যে বিভিন্ন রকম বিষয় নিয়ে নানামুখী মত সেই মতগুলোই এখন আওয়ামী লীগের জন্য বিব্রতকর অবস্থা হয়েছে। সবচেয়ে বড় ব্যাপার হচ্ছে যে, সরকারের যারা মন্ত্রী তাদের সঙ্গে যেমন দলের নেতাদের সমন্বয় নেই তেমনি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সঙ্গে তৃণমূলের সমন্বয় নেই। তৃণমূলের মধ্যে এখন যে যেভাবে পারছেন ফ্রি স্টাইলে কথাবার্তা বলছেন। এমন কি কেউ কেউ ফেসবুকে এসে গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের বিরুদ্ধে এমন সব অসংলগ্ন কথাবার্তা বলছেন যেগুলি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। কিন্তু এখন পর্যন্ত তাদের বিরুদ্ধে কোনো রকম ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানা যায়নি। 

এ প্রসঙ্গে একটি উদাহরণ দিতেই হয়। আওয়ামী লীগের টিকিটে জেতা বসুরহাট পৌরসভার মেয়র ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই কাদের মির্জা সম্প্রতি বলেছেন যে, ওবায়দুল কাদেরের স্ত্রী হাজার হাজার কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক হয়েছেন। এ ধরনের কথা তিনি কেনো বলেন, কিভাবে বলেন এবং এসব কথার ভিত্তি কি তা নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে কোনো কথাবার্তা দেখা যায়নি। কেন কথাবার্তা দেখা যায়নি সেটি নিয়েও আওয়ামী লীগের ভেতরে নানা প্রশ্ন রয়েছে। আওয়ামী লীগের নেতারাই বলছেন যে, আমি লীগ একটি ফ্রি স্টাইল দলে পরিণত হয়েছে। যেখানে যে যা পারছে তা বলছে। নানা মত নানা পথ যখন বলা হচ্ছে তখন আওয়ামী লীগের আসলে বিভিন্ন ইস্যুতে অবস্থান কি এ নিয়ে সাধারণ মানুষ একটু চিন্তায় পড়েছে। আসলে আওয়ামী লীগের অবস্থান কি?