ঢাকা, রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

বাংলাদেশকে টিকা না দিতে বিভিন্ন দেশে বিএনপি`র লবিং

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৩ জুন ২০২১ রবিবার, ০৭:০০ পিএম
বাংলাদেশকে টিকা না দিতে বিভিন্ন দেশে বিএনপি`র লবিং

বাংলাদেশ টিকার জন্য হন্য হয়ে ঘুরছে। বিভিন্ন দেশে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় চিঠি লিখছে, কথা বলছে। আর এর মধ্যেই চীনের সঙ্গে গতকাল চুক্তি হয়েছে। কিন্তু এর মধ্যে বিএনপিপন্থী একটি মহল বিভিন্ন দেশে দেনদরবার করছে যেন বাংলাদেশ টিকা না পায়। টিকার সংকট সৃষ্টি হলে সরকারের ওপর জনগণের অনাস্থা হবে আর এই অনাস্থা থেকে শেষ পর্যন্ত জনগণের মধ্যে সরকারের জনপ্রিয়তা নষ্ট হবে, এরকম একটি চিন্তা থেকে বিদেশে অবস্থানরত কিছু কিছু ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ যেনো টিকা না পায় সেজন্য আন্তর্জাতিক লবিং করছে। কূটনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এটি ঠিক পদ্মা সেতুর মতো ঘটনা। বাংলাদেশ যেনো বিশ্বব্যাংক এবং জাইকা থেকে অর্থ না পায় সেজন্য যেমন আন্তর্জাতিক লবিং করা হয়েছিল, দুর্নীতির অভিযোগ তোলা হয়েছিল, ঠিক একই রকমভাবে বাংলাদেশ যেন টিকা না পায় সেই জন্য লবিং করা হচ্ছে।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে যে, বাংলাদেশে অবস্থানরত চীনা দূতাবাস এবং চীনের প্রভাবশালী কিছু ব্যক্তির সঙ্গে বিএনপিপন্থী কয়েকজন ব্যক্তি যোগাযোগ করেছেন এবং তাদেরকে বাংলাদেশকে টিকা প্রদান প্রক্রিয়া বিলম্বিত করার জন্য অনুরোধ করেছেন। আর এই সমস্ত লবিং এর কারণেই বাংলাদেশে অবস্থানরত চীনা দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের চুক্তি হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন।  কূটনৈতিক মহল মনে করছেন, যদি বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের চুক্তি না হয় সেটি ফেসবুকে জানান দেওয়ার বিষয় নয়। কারণ বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন বিষয়। এরকম একটি প্রক্রিয়াধীন বিষয় সম্পর্কে এরকম মন্তব্য কূটনৈতিক শিষ্টাচার বিরোধী। ধারণা করা হচ্ছে যে, বিএনপি`র একটি মহল এ ব্যাপারে তৎপরতা চালিয়েছে। শুধু বাংলাদেশে চীনা দূতাবাসই নয়, বিএনপি`র পালিয়ে থাকা বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ যারা দুই দেশে অবস্থান করছেন তারা চীনকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন যেন চীন বাংলাদেশকে টিকা না দেয়। এ নিয়ে একাধিক দেনদরবারের তথ্য পাওয়া গেছে। শুধু চীনকে নয় ভারত যেন বাংলাদেশের টিকা সহসা না দেয় সেজন্য বিএনপি`র একটি মহল লবিং করছে। লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপি`র একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা ভারতীয় কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন এবং তারা অনুরোধ করেছেন যে বাংলাদেশকে যেন সহসা টিকা না দেয়া হয়। 

ভারত যে টিকাটি সরবরাহ করতো সেটি হল অক্সফোর্ড আবিষ্কৃত অ্যাস্ট্রাজেনেকার ফর্মুলার টিকা যেটি সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে উৎপাদিত হতো। সেরাম ইনস্টিটিউটের এই টিকা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ অনেক দেশই তৈরি করছে। এই সমস্ত দেশগুলোর সঙ্গেও বাংলাদেশ যোগাযোগ করতে। ইতিমধ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে যে ২০ লাখ ডোজ টিকা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দিতে পারে। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধাপরাধীদের পরিবারের যে গোষ্ঠীগুলো আছে তারা এখন লবিস্ট ফার্ম নিযুক্ত করেছে যেন, যুক্তরাষ্ট্রের সহসা বাংলাদেশকে টিকা না দেয়। যুক্তরাজ্যেও অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা উৎপাদন হচ্ছে। সেখানেও বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় চেষ্টা করছে। সেখানেও একটি মহল তদবির করছে যেন বাংলাদেশ সহসা টিকা না পায়।  এরকম বিভিন্ন দেশে বিএনপি`র লবিষ্টরা তদবির করছে বাংলাদেশকে যেন টিকা দেওয়া না হয়।

এটি একটি চরম দেশবিরোধী তৎপরতা বলে মনে করা হচ্ছে। আওয়ামী লীগের একজন নেতা এ তথ্য জানিয়ে বলেছেন যে, বিএনপি যদি সত্যি সত্যিই একটি দেশপ্রেমিক রাজনৈতিক দল হতো তাহলে তারা উল্টো বাংলাদেশ যেন টিকা পায় সেজন্য দেনদরবার চেষ্টা করত। কিন্তু তারা বিভিন্নভাবে যে তদবির করছেন তাতে তার মূল বিষয় হল যে, বাংলাদেশ যেন টিকা থেকে বঞ্চিত হয়। আর এটি একটি রাজনৈতিক দলের কাছ থেকে অনাকাঙ্ক্ষিত এবং অনভিপ্রেত বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল।