ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

রাজনীতিতে আছেন, আওয়ামী লীগে নেই যারা

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২২ জুন ২০২১ মঙ্গলবার, ১০:০০ পিএম
রাজনীতিতে আছেন, আওয়ামী লীগে নেই যারা

আওয়ামী লীগ তার প্রতিষ্ঠার ৭২ তম বার্ষিকী পালন করবে আগামীকাল। বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং প্রাচীনতম এ রাজনৈতিক সংগঠনটিতে বহু নেতা এসেছেন গেছেন, বহু নেতা ত্যাগ স্বীকার করেছেন, কারাবরণ করেছেন কিন্তু বিচ্যুত নেতার সংখ্যাও কম নয়। খন্দকার মোশতাক বা তাহেরউদ্দিন ঠাকুরের মত মীর জাফরও আওয়ামী লীগেই জন্ম হয়েছিল। বাংলাদেশের রাজনীতি এমন কিছু নেতা আছে যারা একসময় আওয়ামী লীগ করতেন কিন্তু এখন আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ, আওয়ামী লীগে তারা নেই। কেউ কেউ আওয়ামী লীগের সমালোচকও বটে। এদের মধ্যে কয়েকজনকে নিয়ে এই প্রতিবেদন।

ড. কামাল হোসেন: ড. কামাল হোসেন এখন গণফোরামের নেতা। তিনি বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তিনি ১০ই জানুয়ারি পাকিস্তান থেকে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু তাকে প্রথম আইনমন্ত্রী নিযুক্ত করেছিলেন। জাতির পিতার নির্দেশ পালন করেই তিনি বাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়ন করেছিলেন। কিন্তু ১৯৯১ সালে তিনি আওয়ামী লীগ থেকে বেরিয়ে যান। গণফোরাম গঠন করেন। এই গণফোরাম এখন অস্তিত্বহীন একটি রাজনৈতিক সংগঠন হলেও সংগঠনটি এখন আওয়ামী লীগের কট্টরবিরোধী।

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী: বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী ছিলেন সেই নেতাদের অন্যতম যিনি ৭৫ এর পরে অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছিলেন, দেশ ত্যাগ করেছিলেন এবং বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিশোধের জন্য সাহসী উচ্চারণ করেছিলেন। কিন্তু তিনিও আওয়ামী লীগের রাজনীতি এখন নেই। তিনি কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগ নামে একটি রাজনৈতিক দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। আওয়ামী লীগের সঙ্গে তার আদর্শিক দূরত্ব না থাকলেও মনস্তাত্ত্বিক দূরত্ব রয়েছে।

অধ্যাপক আবু সাইয়িদ: অধ্যাপক আবু সাইয়িদ আওয়ামী লীগের একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা ছিলেন। বঙ্গবন্ধু তাকে গভর্নর নিযুক্ত করেছিলেন। ৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকারে তিনি তথ্য প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন। কিন্তু ওয়ান-ইলেভেনের সময় সংস্কারপন্থী হওয়ার কারণে তিনি আওয়ামী লীগ থেকে বিচ্যুত হন। এরপর ২০১৪ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত হন। এখন তিনি গণফোরামের একাংশের নেতা।

সুলতান মোহাম্মদ মনসুর: সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আওয়ামী লীগের ৭৫ পরবর্তী রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ একজন ব্যক্তি ছিলেন। তিনি ৭৫ পরবর্তীতে প্রথম ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে ডাকসুর ভিপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। কিন্তু ওয়ান-ইলেভেনে তিনি সংস্কারপন্থী হওয়ার কারণে তিনি দলে দুর্বল হয়ে পড়েন, এক পর্যায়ে তিনি দল ত্যাগ করেন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে থেকে গত নির্বাচনে তিনি ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেন। এখন এমপি হলেও কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত নন তিনি।

মাহমুদুর রহমান মান্না: মাহমুদুর রহমান মান্না ডাকসুর ভিপি ছিলেন। তিনি আওয়ামী লীগে এসেছিলেন। ৭৫ পরবর্তী সময়ে তিনি আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকও হয়েছিলেন। ওয়ান-ইলেভেনে সংস্কারপন্থী হওয়ার কারণে তিনি আওয়ামী লীগে কোণঠাসা হয়ে পড়েন। তারপর তিনি আওয়ামী লীগ থেকে বেরিয়ে যান এবং নাগরিক ঐক্য বলে একটি নামসর্বস্ব সংগঠন করে সেটি নিয়েই বেঁচে আছেন।

শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন: শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন পঁচাত্তরের আত্মস্বীকৃত খুনিদের অন্যতম সহযোগী বলে বিবেচিত এবং খন্দকার মোশতাকের অনুসারী ছিলেন। ৭৫ পরবর্তীতে তিনি আওয়ামী লীগ থেকে বেরিয়ে যান। এখন তিনি বিএনপির একজন নামসর্বস্ব নেতা হিসেবে আছেন।

কাজী ফিরোজ রশীদ: কাজী ফিরোজ রশীদ ৭৫ পূর্ব আওয়ামী লীগের একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা ছিলেন। তিনি ছাত্রলীগ-যুবলীগ করতেন। ৭৫ পরবর্তী রাজনীতিতে তিনি আর আওয়ামী লীগে থাকেননি। এখন জাতীয় পার্টির নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

শেখ শহীদুল ইসলাম: শেখ শহীদুল ইসলাম সম্ভবত বঙ্গবন্ধু পরিবারের একমাত্র সদস্য যিনি এখন আওয়ামী লীগ করছেন না। ৭৫ পরবর্তী তিনি জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন। এরশাদ সরকারের শিক্ষামন্ত্রী ছিলেন। এখন জেপি নামে একটি সংগঠনের অন্যতম নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

মোস্তফা মোহসীন মন্টু: মোস্তফা মোহসীন মন্টু আওয়ামী লীগের একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা ছিলেন। বিশেষ করে পঁচাত্তর-পরবর্তী আওয়ামী লীগ পূনঃসংগঠনের ক্ষেত্রে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ থেকে তিনি সন্ত্রাসী তৎপরতার অভিযোগে বহিষ্কৃত হন। পরে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে দীর্ঘদিন গণফোরাম করেছেন। এখন তিনি কামাল হোসেন থেকে আলাদা হয়ে গেছেন।

হাবিবুর রহমান হাবিব: হাবিবুর রহমান হাবিব ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন এবং স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যজোটের নেতা ছিলেন। এরপর তিনি মনোনয়ন না পেয়ে বিএনপিতে যান এবং এখনও তিনি বিএনপিতে ধুঁকে ধুঁকে রয়েছেন।

এরকম আরো অনেক নেতাই আছেন যারা এখনো রাজনীতিতে আছেন কিন্তু আওয়ামী লীগের সঙ্গে নেই। তারা আওয়ামী লীগের বিরোধিতা করলেও একটি বৈশিষ্ট্য লক্ষ্য করা যায়, তারা বঙ্গবন্ধুর ব্যাপারে আপসহীন এবং অন্যদল করলেও বঙ্গবন্ধুর নামটি উচ্চারণ তারা সবসময় করেন।

বিষয়: আওয়ামী-লীগ