ইনসাইড পলিটিক্স

কর্নেল তাহের: ভ্রান্তি এবং বিশ্বাসঘাতকতা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৯:৫৯ পিএম, ২০ জুলাই, ২০২১


Thumbnail

আগামীকাল ২১ জুলাই। ১৯৭৬ সালের এই দিনে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে এক প্রহসনের বিচারের মাধ্যমে ফাঁসি দেওয়া হয় বীর মুক্তিযোদ্ধা কর্নেল তাহেরকে। কর্নেল তাহের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাই শুধু নন, তিনি মুক্তিযুদ্ধে তার একটি পা হারিয়েছিলেন। একজন পঙ্গু মানুষকে ফাঁসি দেওয়া অমানবিক এবং ন্যায়বিচারের পরিপন্থী। তারপর তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। সবচেয়ে বড় কথা হলো যে, এই বিচারটি ছিল একটি তামাশা এবং প্রহসনের বিচার। বিচারের দীর্ঘদিন পর পঞ্চম সংশোধনীতে চ্যালেঞ্জ করে রিট পিটিশনে কর্নেল তাহেরের বিচারকে একটি হত্যাকাণ্ড হিসেবে আদালতে চিহ্নিত করেছে এবং সেই বিবেচনায় এই দিন কর্নেল তাহেরকে হত্যা করা হয়েছিল বলেই আইনের দৃষ্টিতে পরিগণিত হচ্ছে। কর্নেল তাহেরের সঙ্গে জিয়াউর রহমান যে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল তা ইতিহাসে নজিরবিহীন এবং এর মাধ্যমে রাজনীতিতে বিশ্বাসঘাতকতার এক নতুন উদাহরণ সৃষ্টি হয়েছে। কর্নেল তাহেরের কারণেই ৭ ই নভেম্বরের সামরিক ক্যু সম্পাদিত হয়েছিল। সিপাহীদেরকে উস্কে দিয়ে কর্নেল তাহেরেই জিয়াউর রহমানকে বন্দিদশা থেকে উদ্ধার করেছিলেন। আর জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে তাহেরকেই হত্যা করে প্রমাণ করেছিলেন স্বৈরাচারী রাজনীতিতে বিশ্বাস বলে কোন শব্দ নেই। কিন্তু কর্নেল তাহেরের এই পরিণামের জন্য তার অতীত রাজনীতি যে কম দায়ী নয় সেটা আজ অকপটে স্বীকার করতে হয়। ৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের পর যারা বঙ্গবন্ধুর বিরোধিতা করেছিলেন, বাংলাদেশের অগ্রগতি এবং অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করার জন্য কাজ করেছিলেন তাদের মধ্যে কর্নেল তাহের ছিলেন অন্যতম। কর্নেল তাহের বিদেশি এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য জাতির পিতার বিরুদ্ধে গণবাহিনী গঠন করেছিলেন নাকি তিনি সত্যি সত্যি সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের এক রঙিন স্বপ্ন দেখেছিলেন সেটি অমীমাংসিত প্রশ্ন।

ইতিহাস নিশ্চয়ই সেই প্রশ্নের উত্তর একদিন খুঁজে বের করবে। কিন্তু কর্নেল তাহেরের রাজনীতি যে ভ্রান্ত ছিল, কর্নেল তাহের যে দেশের ক্ষতি করেছিলেন সেটি আজ জাসদের নেতারাও অকপটে স্বীকার করে। কর্নেল তাহের সেই সময় জাসদে একটি সশস্ত্র উইং করেছিলেন। সশস্ত্র বিপ্লবের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু সরকারকে হটিয়ে দেয়া হয়েছিল তার লক্ষ্য। সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক ব্যাপার হচ্ছে যে, খুনি ফারুক-রশিদরা যে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিলেন সেই পরিকল্পনার কথা তাহের জানতেন এবং এ ব্যাপারে তার সম্মতি ছিল। এমনকি বঙ্গবন্ধু যখন পঁচাত্তরের পনেরোই আগস্ট হত্যা করা হয় সেই হত্যার পর কর্নেল তাহের হলেন সেই ব্যক্তি যিনি বলেছিলেন যে বঙ্গবন্ধুর মরদেহ যেন সমুদ্রে ভাসিয়ে দেয়া হয়। তার লাশ দাফন করা হয় তাহলে সেখানে মাজার হবে। অর্থাৎ এইরকম একটি নিষ্ঠুর উক্তি থেকে প্রমাণিত হয় যে, তাহের কতটা বঙ্গবন্ধু বিদ্বেষী ছিলেন।

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের ঘটনা কোন বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছিল না। এর পেছনে আন্তর্জাতিক এবং দেশীয় ষড়যন্ত্র ছিল। এই ঘটনায় সঙ্গে যারা জড়িত ছিল তাদের একটাই এজেন্ডা ছিল বাংলাদেশেকে আবার পাকিস্তান বানানোর। কর্নেল তাহের সেই পরিকল্পনার অংশ হয়েছিলেন তার ভ্রান্ত রাজনীতির জন্য। কর্নেল তাহের হয়তো মনে করেছিলেন যে, যদি বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয় তাহলে হয়তো তার বিপ্লব সফল হবে। এটি ছিল তার ভ্রান্ত রাজনীতি। আর ভ্রান্ত রাজনীতির মূল্য তাকে দিতে হয়েছে তার জীবন দিয়ে। খালেদ মোশাররফ যখন অভ্যুত্থান করে জিয়াউর রহমানকে বন্দী করেছিলেন এবং একটি নতুন সরকার গঠনের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তখনই তাহেরের গণবাহিনীর সমর্থকরা সেনা অভ্যুত্থান ঘটায় এবং কর্নেল তাহেরকে হত্যা করেন। এরপরই তারা জিয়াউর রহমানকে উদ্ধার করে এবং সেনাপ্রধান বানায়। কর্নেল তাহের হয়তো চেয়েছিলেন জিয়াউর রহমানকে নেতৃত্বে রেখে বিপ্লব সম্পন্ন করতে। কিন্তু কর্নেল তাহেরের ভ্রান্ত রাজনীতি যে শুধু ভুলই করে তার প্রমাণ হলেন জিয়াউর রহমান। জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে তাহেরের প্রহসনের বিচার করে ইতিহাসে প্রমাণ করেছিলেন ভ্রান্তির রাজনীতি কেবল বিশ্বাসঘাতকতাকেই আলিঙ্গন করে।



মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যার তদন্ত চায় বিএনপি

প্রকাশ: ০৭:৪৮ পিএম, ১৮ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যার তদন্ত চায় বিএনপি

বিএনপি জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যার তদন্ত চায় বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, আমরা জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে স্বাধীন তদন্ত এবং জড়িতদের বিচার চাই।

বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, সরকারকে একটি আলাদা কমিশন গঠন করে গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যার ঘটনাগুলো তদন্ত করার সুপারিশ করেছেন জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট। তাদের দেওয়া বিবৃতিতে যা উঠে এসেছে সেটা আমরা দীর্ঘদিন ধরেই বলে আসছি। আমরা জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে স্বাধীন তদন্ত চাই, জড়িতদের বিচার চাই।

মানবাধিকার ইস্যুতে বিএনপি যতগুলো অভিযোগ করেছে সবকিছু রাজনৈতিক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, তারা কি এ কথা স্বীকার করবে? ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গুম অপহরণের বিচার করার ক্ষমতা জাতিসংঘের নেই। এ বক্তব্যে তিনি স্বীকার করে নিয়েছেন, এগুলো সংঘটিত হয়েছে। এতেই বোঝা যায় এই ঘটনাগুলো ঘটেছে। নেত্র নিউজের প্রতিবেদনে আরও বেশি প্রমাণিত হয়েছে।

বিশৃঙ্খল করলে বিএনপিকে রাজপথে মোকাবিলা করা হবে, আওয়ামী লীগের এমপি-মন্ত্রীদের এমন বক্তব্যের প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, এমন হুমকি সন্ত্রাসের শামিল।

দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে বিএনপির মন্তব্য রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, আওয়ামী লীগ নেতাদের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এত দিন গুম-খুনের বিষয়ে বিএনপি যে কথাগুলো বলে আসছে, তারই প্রমাণ মিলেছে জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারের মন্তব্যে। এটাই দেশের বাস্তবতা।

বাংলাদেশে সংলাপের কোনো পরিবেশ নেই দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশের রাজনৈতিক সংকট সমাধানে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত কোনো সংলাপ হতে পারে না। যতক্ষণ পর্যন্ত এই সরকার পদত্যাগ না করবে, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর না করবে, সংসদ বিলুপ্ত না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত সংলাপের প্রশ্নই ওঠে না।

‘যে বুলেট শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানাকে এতিম করেছে, খালেদা জিয়া আপনাকেও সেই বুলেট ছাড়বে না’, ওবায়দুল কাদেরের এ বক্তব্যের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে মির্জা ফখরুল বলেন, এটা তো ভয়ংকর কথা, এই বুলেটের কথা যদি তিনি বলে থাকেন তাহলে আমার সন্দেহ হয়, হয়ত তিনিও এ চক্রান্তের সঙ্গে জড়িত আছেন। খালেদা জিয়াকে তারা রাজনীতি থেকে সরিয়ে দিতে চায়। এবার জীবন থেকে সরিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে কিনা সেই প্রশ্ন আসে। তাকে এটার অবশ্যই জবাব দিতে হবে।

জাতিসংঘ   বিচারবহির্ভূত   হত্যা   বিএনপি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

মিশেলের বক্তব্য, বিএনপিতে হতাশা

প্রকাশ: ০৭:০০ পিএম, ১৮ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail মিশেলের বক্তব্য, বিএনপিতে হতাশা

জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট চারদিনের বাংলাদেশ সফর শেষ করে গতকাল চলে গেছেন। যাওয়ার আগে তিনি সংবাদ সম্মেলনে জাতিসংঘ এবং তার অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন। বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে তিনি কী ভাবেন সে সম্পর্কে একটি ধারণা পাওয়া যায় তার বিদায়ী সংবাদ সম্মেলনে। এই সফর ছিলো নানাদিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ। এ সফরে মিশেল ব্যাচেলেটের সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে বিএনপির একটি উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদলও সাক্ষাৎ করেছিলো কিন্তু এ নিয়ে বিএনপির মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। এ সাক্ষাতে বিএনপির পক্ষ থেকে মোটাদাগে পাঁচটি বিষয় উপস্থাপন করা হয়েছিলো। তার মধ্যে একটি ছিলো বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি। মুক্তিটিকে বিএনপি নেতারা তার মানবাধিকার হিসেবে চিহ্নিত করেছিলো। বিএনপি নেতারা মিশেল ব্যাচেলেটের সাথে বৈঠকে সরাসরিভাবে বলেছিলো যে, বেগম খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থ এবং তার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেয়া প্রয়োজন। এ জন্য জাতিসংঘ যেন এ ব্যাপারে সরকারকে সুস্পষ্ট একটি বার্তা দেয়। বিএনপি নেতৃবৃন্দ এছাড়াও বিএনপি নেতাদের গণহারে গ্রেফতার, তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রসঙ্গটি উত্থাপন করেছিলেন এবং এ ব্যাপারেও জাতিসংঘের হস্তক্ষেপ চেয়েছিলেন। বিএনপির তৃতীয় ইস্যুটি ছিলো গুম এবং সেখানে ইলিয়াস আলীর পুত্র তার বাবার গুম হওয়ার অভিজ্ঞতাটি বর্ণনা করেছিলেন। বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছিলো যে, সরকারের পক্ষ থেকে যে গুমের ঘটনা গুলোকে এক ধরনের অস্বীকৃতি দেয়া হচ্ছে এ ব্যাপারে যেন জাতিসংঘ ব্যবস্থা গ্রহণ করে। বিএনপির চতুর্থ বিষয় ছিলো অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন মানবাধিকারের একটি অংশ এবং এই লক্ষ্যে যেন জাতিসংঘ আগামী নির্বাচন নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে করার ব্যাপারে সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করে। বিএনপির পক্ষ থেকে সর্বশেষ দাবী সভা-সমাবেশ ইত্যাদি করার ক্ষেত্রে জন্য কোনরকম প্রতিবন্ধকতা না দেওয়া হয়। বিশেষ করে বিরোধী মত দমন প্রতিরোধে জাতিসংঘ যেন দৃশ্যমান উদ্যোগ গ্রহণ করে।

বিএনপি নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর মিশেল ব্যাচেলেট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন এবং সেই বৈঠকে মিশেল বাংলাদেশের অগ্রগতি এবং উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেন। প্রধানমন্ত্রী তাকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের ইতিহাসের নিকৃষ্টতম মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা এবং তারপর থেকে বাংলাদেশে দীর্ঘদিনের সামরিক শাসনের ফলে যে মানবাধিকার পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে সে সম্পর্কে বিশদ ব্যাখ্যা দেন। এই সফরে মিশেলের সঙ্গে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকটি ছিলো সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সাথে গত ১৫ আগস্ট। ওই দিন জাতীয় শোক দিবসে ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেল ওই বৈঠকে সুশীল সমাজের পক্ষ থেকে সুনির্দিষ্টভাবে মানবাধিকারের কিছু বিষয় উল্লেখিত হয়। এর মধ্যে ছিলো গুম এবং বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এবং সংখ্যালঘুদের ওপর নিপীড়ন। এই তিনটি পক্ষের বক্তব্যের পর মিশেল যে সংবাদ সম্মেলন করেন তাতে বিএনপি হতাশই হয়েছে। কারণ, বিএনপির যে প্রধান আকাঙ্ক্ষা ছিলো যে জাতিসংঘ বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশ যাওয়ার ব্যাপারে আহ্বান জানাবেন, মানবিক কারণে যেন তাকে সরকার অনুমতি দেয় সে সম্পর্কে একটি কথা থাকবে কিন্তু মিশেল তার সংবাদ সম্মেলনে বেগম খালেদা জিয়ার প্রসঙ্গটি পুরোপুরি ভাবে এড়িয়ে গেছেন। বিএনপির আরেকটি প্রত্যাশা ছিলো যে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবির প্রতি জাতিসংঘের সমর্থন। তবে সেই সমর্থনও মিশেল দেননি। বরং মিশেল বাংলাদেশের নির্বাচনে জন-অংশগ্রহণ যেন নিশ্চিত হয় সে ব্যাপারে তারা আকাঙ্ক্ষার কথা ব্যক্ত করেছেন। এই বৈঠকের জন্য তাই হতাশাজনক। তারা কোনোকিছুই অর্জন করতে পারেনি। বরং এই বৈঠকের মাধ্যমে সুশীল সমাজ লাভবান হয়েছে বলেই বিএনপির কোনো কোনো নেতা মনে করছেন।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

খালেদা জিয়ার অসুস্থতার বিষয়টি গুজব: শায়রুল কবির

প্রকাশ: ০৬:১১ পিএম, ১৮ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail খালেদা জিয়ার অসুস্থতার বিষয়টি গুজব: শায়রুল কবির

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েছেন-এমন সংবাদের কোনো ভিত্তি নেই বলে জানিয়েছেন বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য শায়রুল কবির খান। তিনি এটিকে নিছক গুজব বলে দাবি করেন।

বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) বিকালে শায়রুল কবির খান জানান, উদ্দেশ্যমূলকভাবে এই মিথ্যা খবর ছড়ানো হচ্ছে। দেশের মানুষের দৃষ্টি ভিন্ন দিকে সরানোর ষড়যন্ত্রের অংশ এটি। 

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই প্রচার হতে থাকে খালেদা জিয়া হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এ কারণে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হতে পারে। খবরে আরও বলা হয়, খালেদা জিয়ার শরীরের তাপমাত্রা ওঠানামা করছে এবং ডায়াবেটিসও আগের চেয়ে বেড়েছে। এ কারণে তাকে আজই হাসপাতালে নেওয়া হতে পারে।

খালেদা জিয়া   অসুস্থ   শায়রুল কবির  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

ফিরিয়ে আনা হচ্ছে জাহাঙ্গীরকে

প্রকাশ: ০৫:০০ পিএম, ১৮ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail ফিরিয়ে আনা হচ্ছে জাহাঙ্গীরকে

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের বহিস্কৃত মেয়র এবং গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হচ্ছে। আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে এবং গাজীপুরে সংগঠনকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে আওয়ামী লীগ এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বলে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। গত ১৪ আগস্ট আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের সাংগঠনিক সম্পাদকদের সঙ্গে এক বৈঠকে মিলিত হন। এই বৈঠকে বিভিন্ন জেলার সাংগঠনিক অবস্থা নিয়ে আলাপ-আলোচনা হয়। এই আলাপ-আলোচনার মধ্যেই গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের আওয়ামী লীগের কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা হয় এবং সেই আলোচনায় জাহাঙ্গীরকে ফিরিয়ে নিয়ে আসার বিষয়টি নিয়ে কথা হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। উল্লেখ্য যে, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে কটুক্তি এবং নানা রকম বিতর্কিত আপত্তিকর মন্তব্য অভিযোগে ২০২১ সালের ১৯ নভেম্বর দল থেকে প্রথমে বহিষ্কার করা হয়। ওই দিন অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে এই বহিস্কারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই বৈঠকে সভাপতিত্ব করেছিলেন।

ওই বৈঠকের সিদ্ধান্তে বলা হয়েছিল যে, জাহাঙ্গীর আলম যে অপরাধ করেছে তা অমার্জনীয় এবং অগ্রহণযোগ্য। যদিও জাহাঙ্গীর আলাম বারবার বলেছিলেন যে, নেতার বক্তব্য টেম্পারড করা হয়েছে এবং খণ্ডিতভাবে তার বক্তব্য উপস্থাপন করা হয়েছে। তাকে ফাঁসানোর জন্যই তথ্য বিকৃতি করা হয়েছে। এই বহিস্কারাদেশের পর পর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় জাহাঙ্গীর আলমকে সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের পদ থেকেও অব্যাহতি দেন এবং তার বিরুদ্ধে মামলা করা হবে বলেও ঘোষণা করা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুকে কটুক্তি করা কিংবা দুর্নীতির অভিযোগে কোনো মামলাই দায়ের করা হয়নি। বরং জাহাঙ্গীর আলম তার নিজস্ব গণ্ডির আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে দলীয় কার্যক্রম পরিচালনা অব্যাহত রেখেছেন। একাধিক সূত্র বলছে যে, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনে জাহাঙ্গীর আলমের একটা প্রভাব বলয় রয়েছে এবং তার জনপ্রিয়তাও রয়েছে নেতাকর্মীদের মধ্যে। জাহাঙ্গীর আলম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হওয়ার আগে থেকেই এলাকায় আওয়ামী লীগের জন্য কাজ করতেন এবং প্রচুর অর্থ ব্যয় করতেন। এ কারণে তার নিজস্ব একটি সমর্থক গ্রুপ তৈরি হয়েছিল। যেকারনে তার এলাকায় প্রভাব ছিল অত্যন্ত বেশি।

আর এ কারণেই আজমত উল্লাহকে বাদ দিয়ে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে জাহাঙ্গীর আলমকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু মনোনয়ন দেয়ার পর জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে বিভিন্ন রকম অভিযোগ উঠেছিল। তার প্রধান অভিযোগ হলো ক্ষমতার অপব্যবহার করা। আর এ প্রেক্ষিতেই একজন কর্মীর সঙ্গে তার কথোপকথন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ভাইরাল হয়ে যায়। যে কথোপকথনের ভিত্তিতে তাকে সরে যেতে হয়। কিন্তু জাহাঙ্গীর আলাম সরে যাওয়ার পর গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগ অনেকটাই দুর্বল হয়ে পড়েছে বলে আওয়ামী লীগের নেতারা জানিয়েছেন এবং আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে জাহাঙ্গীর আলমের সমর্থকদের প্রয়োজন বলেও কেউ কেউ অভিমত ব্যক্ত করেছেন। তবে আওয়ামী লীগের অন্য একটি সূত্র বলছে, জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুকে কটুক্তি সংক্রান্ত যে অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছিল তা গভীরভাবে খতিয়ে দেখা হয়েছে এবং দেখা গেছে যে এই বক্তব্যকে বিকৃত করা হয়েছিল। কিছু কিছু শব্দ বাদ দিয়ে শব্দ সংযোজন বিয়োজন করে সুপার এডিটিং এর মাধ্যমে এটিকে জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হয়েছিল। আর এ কারণেই জাহাঙ্গীর আলমকে এখন ফিরিয়ে আনা হচ্ছে বলে বিভিন্ন সূত্র নিশ্চিত করেছে। তবে কবে তাকে ফিরিয়ে আনা হবে সে সম্পর্কে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি বলেই জানা গেছে।

গাজীপুর   আওয়ামী লীগ   জাহাঙ্গীর আলম  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

'বিএনপির কাছে সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার মতো কিছু নেই'

প্রকাশ: ০৪:৩৬ পিএম, ১৮ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail 'বিএনপির কাছে সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার মতো কিছু নেই'

দেশে যাদের গুম করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হচ্ছে তাদের মধ্যে অনেকে ৬ মাস বা এক বছর পর বাড়ি ফিরে এসেছে। এদের অনেকে সামাজিক বা পারিবারিক কারণে আত্মগোপনে থাকেন। বিএনপি এটাকে গুম হিসেবে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে। আসলে বিএনপির কাছে সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার মতো কিছু নেই বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ।

বৃহস্পতিবার (১৮ আগস্ট) দুপুরে কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু বন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বিএনপির তথাকথিত আন্দোলনের সঙ্গে দেশবাসীর কোনো সম্পর্ক নেই। কারণ বিএনপি ব্যক্তিগত ইস্যু নিয়ে আন্দোলন করছে। তাদের দুর্নীতিবাজ নেতা দেশের সম্পদ লণ্ঠুন, হত্যা ও খুনের দায়ে অভিযুক্ত হয়ে দণ্ডপ্রাপ্ত হয়ে বিদেশে পলাতক আছেন। সে পলাতক নেতার জন্য কি এদেশের মানুষ আন্দোলন করবে?

হানিফ বলেন, বলেন, বিএনপির ষড়যন্ত্র হলো দেশের মধ্যে নানা ধরণের অপপ্রচার করে মানুষকে বিভ্রান্ত করা এবং বিদেশের কাছে ধর্না দিয়ে সরকারের পতন ঘটানো যায় কিনা সেটাই তাদের স্বপ্ন। তাদের এ অপতৎপরতা বাংলাদেশে কোন দিন সফলতা লাভ করবে না।

জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরফাতের সভাপতিত্বে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. আব্দুস সালাম, উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহাবুবুর রহমানসহ আরও অনেকে।

আওয়ামী লীগ   যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক   মাহবুবউল আলম হানিফ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন