ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আন্দোলনের ইস্যু আছে নেতৃত্ব নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২২ জুলাই ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৭:৫৯ পিএম
আন্দোলনের ইস্যু আছে নেতৃত্ব নেই

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন যে, টানা তিন মেয়াদে ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ সরকার সাম্প্রতিক সময়ে অনেকগুলো ইস্যু সামনে উপস্থাপন করেছেন যে ইস্যুগুলো নিয়ে অবলীলায় আন্দোলন করা যায়। আওয়ামী লীগ যদি বিরোধীদলে থাকতো তাহলে এই ইস্যু নিয়ে তোলপাড় আন্দোলন গড়ে তুলতে পারত। কিন্তু বিরোধী দল সেই ইস্যুগুলোকে পুঁজি করতে পারছে না আন্দোলনও গড়ে তুলতে পারছে না। আন্দোলন গড়ে না তোলার ব্যর্থতা নানারকম রয়েছে। কিন্তু সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা নেতৃত্বহীনতা বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল। সাম্প্রতিক সময়ে আড়াই বছরের বেশি বয়সী আওয়ামী লীগ সরকার অনেকগুলো কাজের জন্য সমালোচিত হচ্ছে এবং সাধারণ জনগণ মনে করছে যে, এই কাজগুলো সঠিকভাবে প্রতিপালিত হচ্ছে না। কিন্তু এই ইস্যুগুলোকে নিয়ে যেভাবে বিরোধী দলের সরব হওয়া উচিত সেটি বিরোধী দল হতে পারছে না। যেকোনো ইস্যু নিয়ে সরকারের সমালোচনা মানেই সরকারের পতন নয় বরং এই ধরনের সমালোচনা সরকারকে জবাবদিহিতার মধ্যে রাখে এবং সঠিক পথে কাজ করতে সহায়তা করে। তাই একটি শক্তিশালী বিরোধী দল এবং বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে দাঁড়ানো একটি রাজনৈতিক দলের অন্যতম কাজ এবং এই ধারাই বাংলাদেশে চলে এসেছিল।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর সবসময়ই শক্তিশালী একটি বিরোধী অবস্থান লক্ষ্য করা গেছে। কিন্তু গত ১২ বছরে বিরোধী দলগুলো সংকুচিত হতে হতে নিঃশেষিত প্রায় এবং যে কারণে আন্দোলনের অনেক ইস্যু থাকার সত্ত্বেও বিরোধী দল মাঠে নামতে পারছে না। বিরোধী দলের পক্ষ থেকে নানা অভিযোগ করা হয়। বলা হয় যে সরকার দমন-পীড়ন করছে সেই জন্য বিরোধী দল আন্দোলন করতে পারছে না। কিন্তু এরকম বক্তব্য মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়। কারণ এরশাদের আমলে কিংবা জিয়াউর রহমানের আমলে এর চেয়েও বেশি ধরনের দমন-পীড়ন করা হয়েছিল। এমনকি ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলের দমন-পীড়নের মাত্রা সামরিক সরকারের চেয়েও বেশি ছিল। কিন্তু সেই পরিস্থিতিতেও আন্দোলন গড়ে তুলতে পেরেছিল বিরোধী দলগুলো। বিরোধী দলের পক্ষ থেকে আরেকটি অভিযোগ করা হয় যে, সাংগঠনিক দুর্বলতা বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো সাংগঠনিকভাবে গুছানো নয়। যে কারণে তারা আন্দোলন গড়ে তুলতে পারছে না। কিন্তু এ রকম যুক্তিও গ্রহণযোগ্য নয়। কারণ একটি আন্দোলন কেবল সংগঠন দিয়ে হয় না জনগণকে সম্পৃক্ত করতে হয়। আর জনগণকে সম্পৃক্ত করতে না পারার জন্যই আন্দোলনগুলো হচ্ছে না। আর জনগণকে সম্পৃক্ত করার জন্য প্রয়োজন নেতৃত্ব। সেই নেতৃত্ব এখন কোনো দলেই নেই।

অনেক রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ বলেন, জনগণ এখন আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত নয়। কারণ জনগণ এখন জীবন জীবিকা নিয়েই ব্যস্ত থাকে। কে ক্ষমতায় আসলো বা কে কি করছে সে নিয়ে তাদের মনোযোগ নেই। তারা নিজেকে নিয়েই ব্যস্ত। এরকম বক্তব্যের সঙ্গেও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা একমত নন। কারণ তারা মনে করেন যে, জনগণকে যদি তার স্বার্থ এবং অধিকার সম্পর্কে সচেতন করা যায় তাহলে পরে জনগণ যেকোন আন্দোলনের জন্য সবসময় প্রস্তুত থাকে। প্রশ্ন উঠেছে যে, সরকার কি এমন কাজ করছে যাতে আন্দোলনের কোনো ইস্যু নেই? এমন বক্তব্য সঙ্গে একমত নয়। সরকার সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন রকম পদক্ষেপ নিয়েছে যে পদক্ষেপগুলো সমালোচিত হয়েছে এবং যেগুলো থেকে অবলীলায় একটি আন্দোলন গড়ে উঠতে পারে। যেমন ধরা যাক গণটিকা কর্মসূচি প্রদানে ব্যর্থতা, লকডাউন নিয়ে একের পর এক সমন্বয়হীনতা, স্বাস্থ্যখাতে অব্যবস্থাপনা ইত্যাদি ইস্যু নিয়ে যেকোন সময় আন্দোলন হতে পারে। কিন্তু এরকম ইস্যুগুলোকে কাজে লাগাতে পারছে না বিরোধী দলগুলো। বাংলাদেশের এখন এক ধরণের নেতৃত্বশূন্যতা বিরাজ করছে। গোটা দেশে একমাত্র গ্রহণযোগ্য এবং আস্থাভাজন নেতার নাম হলেন শেখ হাসিনা। জনগণ তার ওপরে আস্থাশীল। কিন্তু শেখ হাসিনার সমকক্ষ বিরোধী দলের নেতা বা তার অর্ধেক সমকক্ষ বিরোধীদলের নেতা এখন নেই।

বাংলাদেশে কাগজে কলমে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি। জাতীয় পার্টিতে এরশাদের মৃত্যুর পর জি এম কাদের নেতা। জি এম কাদের একজন প্রধান বিরোধী দলের নেতা হলেও সাধারণ মানুষের কাছে তার গ্রহণযোগ্যতা এবং জনপ্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করা হয় বিএনপিকে। বিএনপি এখন নেতৃত্ব শূন্যতায় ভুগছে। এই দলের প্রধান নেতা বেগম খালেদা জিয়া রাজনীতিতে আসছেন কি নেই সেই প্রশ্ন। গত দুই বছরের বেশি সময় ধরে তিনি মৌনব্রত পালন করছেন। কোন ইস্যুতেই নেই। বরং তিনি কিভাবে দণ্ড থেকে রেহাই নিয়ে দেশ ত্যাগ করবেন সেটি নিয়েই ব্যস্ত। বিএনপি`র আরেক নেতা তারেক জিয়া একজন দুর্বৃত্ত এবং অর্থলোভী হিসেবে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিত। কাজেই তিনি কখনোই জাতীয় নেতা হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করবে না বলেই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন। অন্যান্য যে রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ আছেন তারা কেউই জাতীয় নেতা নন এবং তাদের এরকম জনপ্রিয়তা নেই যে তারা আওয়ামী লীগের প্রধান নেতাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে রাজনীতি করতে পারে। আর এই নেতৃত্বশূন্যতার কারণেই আন্দোলনের ইস্যু থাকার সত্বেও কোনো আন্দোলন গড়ে উঠছে না বলেই মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

বিষয়: আন্দোলন