ঢাকা, শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৯ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সংকট বাড়ছে আওয়ামী লীগে

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৪ জুলাই ২০২১ শনিবার, ০৬:০০ পিএম
সংকট বাড়ছে আওয়ামী লীগে

টানা ১২ বছরের বেশি ক্ষমতায় রয়েছে আওয়ামী লীগ। কিন্তু তারপরও আওয়ামী লীগ ভালো নেই। বরং নানা রকম সংকট এবং সমস্যা ক্রমশ পুঞ্জিভূত হয়ে উঠছে। আওয়ামী লীগের মধ্যে সংকট বাড়ছে। আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন যে, দ্রুততম কাউন্সিল অধিবেশনের মাধ্যমে সাংগঠনিক পুনর্গঠনই এই সংকট উত্তরণের প্রধান উপায়। তবে করোনা প্রকোপের কারণে আওয়ামী লীগের নেতারা এখনও জানেনা যে, কাউন্সিল কবে কিভাবে করা হবে। সাম্প্রতিক সময়ে আওয়ামী লীগের সংকট বহুমুখী হয়ে দাঁড়িয়েছে। 

১. সরকারের সঙ্গে দূরত্ব: আওয়ামী লীগের তৃতীয় মেয়াদে যারা সরকারের গেছেন বা মন্ত্রী হয়েছেন তাদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের এক ধরনের দূরত্ব হয়েছে। অধিকাংশ মন্ত্রী হয়েছেন রাজনৈতিক সংশ্রবহীন ব্যক্তি। যারা দলের বিষয় নিয়ে চিন্তাভাবনা করছেন না এবং দলের সঙ্গে তারা খুব একটা সম্পর্ক রাখছেন না। ফলে অনেক বিষয়েই আওয়ামী লীগের নেতারা অন্ধকারে থাকছেন। কিন্তু জনগণের কাছে যখন বিষয়গুলো সমালোচিত হচ্ছে তখন তাদেরকে এর জবাবদিহি করতে হচ্ছে। ফলে আওয়ামী লীগের নেতাদের জন্য এটি একটি নাজুক পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। কারণ আওয়ামী লীগের নেতারা যার জন্য দায়ী না সেই বিষয়গুলো তাদেরকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুরে বলতে হচ্ছে।

২. এমপিদের বিকল্প আওয়ামী লীগ গঠন এবং অভ্যন্তরীণ কোন্দল: আওয়ামী লীগের সাম্প্রতিক সংকটের একটি বড় বিষয় হলো যে, এমপিদের বিকল্প আওয়ামী লীগ গঠন এবং আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল। প্রায় প্রতিটি নির্বাচনী এলাকায় এখন একাধিক আওয়ামী লীগের অস্তিত্বের সন্ধান পাওয়া গেছে। বিশেষ করে এমপিরা তাদের পছন্দের লোকজনকে নিয়ে কমিটির করছে। দলে যারা ত্যাগী পরীক্ষিত তাদেরকে বাদ দেয়া হচ্ছে। এরকম একটি পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল ক্রমশ সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে। এই বিষয়টির ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ না করা হলে পরিস্থিতি উদ্বেগজনক হয়ে যাবে বলেই মনে করছেন আওয়ামী লীগের নেতারা।

৩. দলের চেইন অব কমান্ড নষ্ট: আওয়ামী লীগের সাম্প্রতিক সময়ে চেইন অব কমান্ড একটি বড় ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতারা ফ্রিস্টাইলে কথাবার্তা বলছেন। কেন্দ্রীয় নেতাদের বিরুদ্ধে সমালোচনাসূচক বক্তব্য রাখছেন। দলের ভেতরে কোনো চেইন অব কমান্ড থাকছে না। এটি আওয়ামী লীগের মতো একটি দলের জন্য উদ্বেগজনক বলেই মনে করছেন নেতাকর্মীরা। বিশেষ করে যদি দলের সিনিয়র নেতাদেরকে শ্রদ্ধা না করা হয়, দলের উপর থেকে নির্দেশনাগুলো নিচে মানা না হয় তাহলে সংগঠন চালানো অত্যন্ত দুরূহ হয়ে পড়বে বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের নেতারা। 

৪. বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের অক্ষমতা: সাম্প্রতিক সময়ে আওয়ামী লীগের একটি বড় সংকটে হিসেবে এসেছে যে দলের বিরুদ্ধে, নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে যারা নির্বাচন করেছেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করতে পারা। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরিষ্কারভাবে বলেছিলেন যে, যারা নৌকা প্রতীকের বিরোধিতা করবে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত খুব কম বিদ্রোহী প্রার্থীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বরং তারা দলের ভেতরে আরও জাঁকিয়ে বসেছে। এটি আওয়ামী লীগের জন্য একটি বড় সংকট হয়ে দাঁড়িয়েছে। 

৫. মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি: আওয়ামী লীগের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিগুলো দলের জন্য একটি বড় মাথা ব্যাথা হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনা সংক্রমণের কারণেই হোক আর যে কারণেই হোক মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিগুলোর সম্মেলন অনুষ্ঠান করা যাচ্ছে না এবং এটি না করার ফলে দলের সংকট আরো বাড়ছে। আওয়ামী লীগের নেতারা নিজেরাই স্বীকার করছেন যে, দল ক্ষমতায় থাকলেও সাংগঠনিকভাবে আওয়ামী লীগ ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়ছে। আর এই দুর্বলতাগুলো এখনো কাটিয়ে উঠতে না পারলে সামনে দু`বছরের মধ্যেই আওয়ামী লীগকে নির্বাচনের প্রস্তুতিতে যেতে হবে এবং সেই সময়ে আওয়ামী লীগ একটা কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে পারে।