ঢাকা, সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

২০০৮ এর পর আওয়ামী লীগে কারা, কেন?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৭ জুলাই ২০২১ মঙ্গলবার, ০৮:৫৯ পিএম
২০০৮ এর পর আওয়ামী লীগে কারা, কেন?

২০০৮ সালের পর কারা আওয়ামী লীগের প্রবেশ করেছে এবং কেন আওয়ামী লীগে প্রবেশ করেছে এই প্রশ্নের উত্তর খোঁজার কাজ শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশনায় সারাদেশে ২০০৮ সালের পর যারা আওয়ামী লীগে ঢুকেছে এবং বিভিন্ন পদ দখল করেছে তাদের তালিকা চিহ্নিত করা হচ্ছে। আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় একজন নেতা বলেছেন যে, আওয়ামী লীগ একটি বড় দল। এই দলটি গণতান্ত্রিক এবং জনবান্ধব। যে কেউ আওয়ামী লীগে ঢুকতে পারে যদি তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করেন এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ মানেন। কিন্তু কেউ যদি নিজের স্বার্থসিদ্ধির জন্য দলে ঢোকেন, মতলববাজির জন্য আওয়ামী লীগের পরিচয় ব্যবহার করেন এবং পদ দখল করেন তাহলে সেরকম আওয়ামী লীগার দরকার নেই। আওয়ামী লীগে ২০০৮ কে মাইলফলক রেখে ২০০৮ সালের পরে যারা আওয়ামী লীগে ঢুকেছেন তাদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। আর এই প্রশ্নে আওয়ামী লীগের মধ্যে ভিন্ন মতামত পাওয়া গেছে। একদল লোক মনে করছেন যে, নতুন করে আওয়ামী লীগে দরকার নেই। আওয়ামী লীগের জনসমর্থন ব্যাপক আছে। যারা এখন আওয়ামী লীগে ঢুকে নেতা বনে যাচ্ছেন তারা আওয়ামী লীগের জন্য ক্ষতিকর এবং এদেরকে এখনই নিবৃত্ত করা দরকার। অবশ্য এর বিভিন্ন মতও রয়েছে। কেউ কেউ মনে করছেন আওয়ামী লীগের দরজা কখনো বন্ধ করা উচিত নয়। বরং সবসময় আওয়ামী লীগের দরজা খোলা রাখা উচিত। শুধু দরকার হলো যাচাই বাছাই করা। যাচাই বাছাই প্রক্রিয়া যদি সঠিক হয় তাহলে এরকম শাহেদ, হেলেনা কিংবা পাপিয়ার মতো ব্যক্তিরা আওয়ামী লীগে ঢুকতে পারে না। আর এ কারণেই আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকদেরকে নতুন করে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তারা ২০০৮ সালের পর যারা আওয়ামী লীগের ঢুকেছেন তাদের তালিকা করবে পাশাপাশি তারা কেন ঢুকেছেন সেটিও খুঁজে বের করা হবে।

আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে, ২০০৮ সালের পর আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ অনেক বেশি। ক্ষমতায় থাকার কারণেই এই অনুপ্রবেশ ঘটেছে এটি বুঝতে আওয়ামী লীগের নেতাদের কোনো অসুবিধা হয়নি। কিন্তু অনেকেই আওয়ামী লীগের ঢুকেছেন বাস্তবতায় এবং আদর্শে। বিশেষ করে বাম রাজনৈতিক সংগঠনগুলো, উদার গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক সংগঠনগুলো গত এক দশকে ক্ষয়িষ্ণু হয়ে গেছে। এই রাজনৈতিক দলগুলোতে যারা যে সমস্ত তরুণ এবং রাজনীতিতে আগ্রহী ব্যক্তিরা আছেন তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মূল দল হিসেবে আওয়ামী লীগকেই চিহ্নিত করেছে এবং আওয়ামী লীগে ঢুকে কাজ করতে চাইছেন। বাংলাদেশে আশির দশক থেকে জাসদ, কমিউনিস্ট পার্টির ন্যাপ থেকে বিপুল পরিমাণ রাজনৈতিক কর্মী আওয়ামী লীগে ঢুকেছে। এই সমস্ত কর্মীরা আওয়ামী লীগে যথেষ্ট যোগ্যতা এবং ভূমিকা রেখেছে। বেগম মতিয়া চৌধুরী আওয়ামী লীগের প্রবেশ করেছেন দুঃসময়ে। নব্বই দশকে আওয়ামী লীগের ঢুকেছেন নুরুল ইসলাম নাহিদ, নুর আলম লেলিনের মত মেধাবী নেতারা। আশির দশকে আওয়ামী লীগে প্রবেশ করেছেন আবদুল মান্নান খানের মতো পরিশ্রমী নেতারা। ছাত্র ইউনিয়ন থেকে আওয়ামী লীগে প্রবেশ একটি স্বাভাবিক এবং নিয়মিত ঘটনা। নব্বইয়ের দশকে দেখা গেছে যে, জাসদ থেকে বিপুল পরিমাণ নেতাকর্মীরা আওয়ামী লীগে প্রবেশ করেছেন। শাহজাহান খান, শফি আহমেদের মত একসময় জাঁদরেল জাসদ ছাত্রলীগ করারা এখন আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃত্বে আছেন। জাসদ থেকে আওয়ামী লীগে আসাকেও আওয়ামী লীগের নেতারা খুব একটা খারাপ চোখে দেখছেন না। এছাড়াও ন্যাপ, গণতান্ত্রিক পার্টি গণতান্ত্রিক পার্টি সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল থেকে আওয়ামী লীগে লোকজন ঢুকতেই পারে। কিন্তু ২০০৮ সালের পর উদ্বেগজনকভাবে ধর্মান্ধ, মৌলবাদী, উগ্রবাদী এবং বিএনপির রাজনীতি থেকে আওয়ামী লীগে প্রবেশ করেছে। এরকম ব্যক্তিদের সংখ্যা এখন আওয়ামী লীগে কম নয়।

এরা আওয়ামী লীগে ঢুকেছে মূলত তিনটি কারণ। প্রথম কারণ হলো যে, গ্রেফতার, হয়রানি ইত্যাদি এড়ানোর জন্য তারা আওয়ামী লীগের আশ্রয় নিয়েছে। দ্বিতীয়ত, আওয়ামী লীগে নব্য গজিয়ে ওঠা এমপিরা তাদের দল ভারী করার জন্য, স্থানীয় পর্যায়ে তাদের শক্তি বাড়ানোর জন্য বিএনপি জামাত থেকে লোকজনকে ভাড়া করে এনেছে। তৃতীয়ত, এরা খোলস পাল্টিয়ে নানা রকম সুবিধা আদায়ের জন্য আওয়ামী লীগে ঢুকেছে। আর যে কারণেই হোক না কেন ২০০৮ সালের পর যারা আওয়ামী লীগের ঢুকেছে তাদেরকে এখন নিরীক্ষার আওতায় আনা হবে এবং যদি নিরীক্ষায় দেখা যায় যে তাদের উদ্দেশ্য আওয়ামী লীগের আদর্শ বাস্তবায়ন নয়, তাদের উদ্দেশ্য অন্য তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এটি হবে আওয়ামী লীগের এ যাবৎকালের সবচেয়ে বড় শুদ্ধি অভিযান এমনটি বলেছেন আওয়ামী লীগের নেতারা।