ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ৪ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন কেলেঙ্কারি

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২ অক্টোবর ২০২১ মঙ্গলবার, ০৭:০০ পিএম
আওয়ামী লীগের মনোনয়ন কেলেঙ্কারি

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের মনোনয়ন দিতে গিয়ে রীতিমত কেলেঙ্কারিতে পড়েছে আওয়ামী লীগ। সারাদেশে তৃণমূলের মধ্যে এই মনোনয়ন নিয়ে নানারকম অস্থিরতা এবং উদ্বেগ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বিভিন্ন বিতর্কিত ব্যক্তিদেরকে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দেয়ার পর আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে মনের পরিবর্তন করা হয়েছে। মনোনয়ন নিয়ে এরকম বিতর্কের পর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, যদি কোন মনোনয়নে বিতর্কিত কাউকে পাওয়া যায় এবং সে ব্যাপারে তথ্য-প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে মনোনয়ন পরিবর্তন করা হবে। এর ফলে আওয়ামী লীগের সভাপতির কাছে মনোনয়ন প্রাপ্ত বিতর্কিতদের নিয়ে বিভিন্ন রকম অভিযোগের স্তূপ জমা হচ্ছে।

সম্প্রতি সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ রুনিখাই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া হিসেবে ইকবাল হোসেন ওরফে ইমদাদ ছাত্রজীবনে শিবিরের উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গত রোববার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন তালিকায় ইকবাল হোসেনের নাম আসে, এটা নিয়ে এখন আওয়ামী লীগের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। শুধু এরকম নয়, বহু বিতর্কিত ব্যক্তিরাই আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বা মনোনয়নের জন্য আবেদন করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা পেতে যুদ্ধাপরাধীদের সন্তান এবং আত্মীয়রা তৎপর হচ্ছেন এমন কথা এখন আওয়ামী লীগেই শোনা যাচ্ছে। এছাড়াও ধর্ষণ মামলার আসামি, দলীয় নেতাকর্মীদের হত্যার মদদদাতা, আগে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়া, সরকারি অর্থ লোপাট সহ বিভিন্ন অভিযোগে যারা অভিযুক্ত হয়েছেন তারাও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বলে বিভিন্ন জায়গা থেকে অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগের একাধিক নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন যে, মনোনয়নের নামের তালিকাগুলো এসেছে তৃণমূল থেকে। যথাসম্ভব যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে, তারপরও ভুল হতে পারে। তবে যেসব ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্টভাবে অভিযোগ প্রমাণিত হবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আওয়ামী লীগের একজন মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য বলেছেন, যুদ্ধাপরাধীদের কোন সন্তান, দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত কোন ব্যক্তি, অতীতে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন এমন কোন ব্যক্তি এবং ধর্ষণ, নারী নির্যাতন বা অন্যান্য ফৌজদারি অপরাধে অভিযুক্ত কোন ব্যক্তি মনোনয়ন পাবেন না।

কিন্তু বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ-খবর নিয়ে দেখা গেছে যে, এরকম সুনির্দিষ্ট নীতিমালা থাকা স্বত্বেও অনেক ফাঁকফোকর দিয়ে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন অনেক দুর্বৃত্ত এবং যুদ্ধাপরাধীরা। বিভিন্ন এলাকায় খবর নিয়ে জানা গেছে যে, আওয়ামী লীগের এবারের মনোনয়ন নিয়ে তৃণমূল থেকে নানা রকম নয়ছয় করা হয়েছে। বিশেষ করে তৃণমূলের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ এমন কিছু ব্যক্তির নাম পাঠিয়েছেন যাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ রয়েছে। বান্দরবানের লামা উপজেলার রুপসীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান চেয়ারম্যান ছাচিং প্রু মার্মা। তার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট ৬টি অভিযোগ করা হয়েছে। এই অভিযোগগুলো হলো- ধর্ষণ, টাকার বিনিময়ে রোহিঙ্গাদের ভোটার করা, জন্ম সনদ বাণিজ্য, ভূমিহীনদের ঘর দিতে ঘুষ নেওয়া, সাংবাদিক নির্যাতন, রাস্তার ক্ষতিপূরণের টাকা আত্মসাৎ, সৌর বিদ্যুৎ প্যানেল বিতরণের বাণিজ্য। সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার হাজরার বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান শাহনেওয়াজ ডালিম। তিনি গদাইপুর চেয়ারম্যানের রাজাকার এবং যুদ্ধাপরাধী মামলার আসামি মৃত্যু মোজাহার সরদারের ছেলে বলে জানা গেছে। আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেছেন যে, সব অভিযোগই সত্যি নয়। কিছু কিছু অভিযোগ সত্যি। যেখানে সত্যি সেখানে মনোনয়ন পরিবর্তন করা হবে। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলেছেন যে, সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপি যেহেতু দলীয়ভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন না সেইজন্য নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নেয়ার প্রতিযোগিতা বেশি হচ্ছে। আর এই প্রতিযোগিতায় যুদ্ধাপরাধীর সন্তান এবং বিতর্কিতরা আসতে পারেন। আমরা যাচাই-বাছাই করছি। তবে যদি কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ প্রমাণিত হয় তার মনোনয়ন বাতিল করা হবে।