ঢাকা, শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পর্যবেক্ষণ: উপাচার্য যখন যুবলীগের নেতা হতে চান

সৈয়দ বোরহান কবীর
প্রকাশিত: ১৯ অক্টোবর ২০১৯ শনিবার, ১০:০০ পিএম
পর্যবেক্ষণ: উপাচার্য যখন যুবলীগের নেতা হতে চান

আজকের ছোট্ট একটি খবরের দিকে আমার দৃষ্টি আকর্ষিত হয়েছে। সেই খবরটি প্রথমে আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করতে চাই। খবরটি হলো জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মিজানুর রহমান বলেছেন, যুবলীগের নেতৃত্ব পেলে তিনি উপাচার্যের দায়িত্ব ছেড়ে দেবেন। আপাতদৃষ্টিতে খবরটি অত্যন্ত সাদামাটা। কিন্তু এই খবরটি দেখে এবং মর্ম উপলব্ধি করে আমার গা শিউরে উঠেছে। আমরা কি ভয়াবহ একটি অবস্থার দিকে যাচ্ছি তা এই খবরটি পূর্ভাবাস দিয়েছে।

৩ টি কারণে আমার গা শিউরে উঠেছে। ৩টি কারণে আমি আতঙ্কিত। ৩টি কারণে আমি অস্বস্তি অনুভব করছি।

প্রথমত, যুবলীগ নিয়ে যখন সারাদেশে তোলপাড়। যুবলীগের বিরুদ্ধে যখন ক্যাসিনো বাণিজ্য, টেন্ডার বাণিজ্য, যুবলীগ যখন দখল নিয়েছে ফ্রিডম পার্টি, জামাত শিবির। ঠিক তখন একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য যুবলীগের নেতৃত্ব গ্রহণ করতে চান! কেন? 

দ্বিতীয় আমার অস্বস্তির বিষয় হলো, বিভিন্ন সময় ধরে যে অভিযোগগুলো উঠছিল, শিক্ষকরাই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে কলুষিত করছে। শিক্ষকরাই সবচেয়ে বড় মাফিয়া। শিক্ষকরাই শিক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংসের সবচেয়ে বড় কারণ। সেই বিষয়টি উপাচার্যের এই বক্তব্যের মধ্য দিয়ে স্পষ্ট হলো। শিক্ষকদের এ ধরনের মান দেখে আমি অস্বস্তিতে ভুগছি।

তৃতীয় উৎকন্ঠার কারণ হলো, কিছুদিন ধরেই আমরা বলছিলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে দলের ক্যাডারদের দিয়ে। দলের পেটোয়া বাহিনী দিয়ে। তাদের শিক্ষার নূন্যতম মান নেই। ড. মিজানুর রহমানের এই বক্তব্যের মধ্য দিয়ে সেই সত্যটা কি আরেকবার প্রমাণিত হলো না?

বিস্তারিত আলোচনা দেখুন ভিডিওতে:


বাংলা ইনসাইডার