প্রেস ইনসাইড

ডিআরইউ নির্বাচন: সভাপতি নোমানী, সম্পাদক সোহেল

প্রকাশ: ০৭:২২ পিএম, ৩০ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সভাপতি পদে মোরসালিন নোমানী ও সাধারণ সম্পাদক পদে মাইনুল হাসান সোহেল নির্বাচিত হয়েছেন।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) সন্ধ্যায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার মনজুরুল আহসান বুলবুল বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন।

ফলাফল অনুযায়ী ডিআরইউর সাংগঠনিক সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন জিটিভির সিনিয়র রিপোর্টার সাইফুল ইসলাম।

এছাড়া অন্যান্য পদে নির্বাচিতরা হলেন, সহ-সভাপতি দিপু সারোয়ার, যুগ্ম সম্পাদক মঈনুল হাসান, অর্থ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন সুমন, দপ্তর সম্পাদক কাউসার আজম, নারী সম্পাদক মরিয়ম মনি, প্রচার সম্পাদক কামাল উদ্দিন সুমন, তথ্য প্রযুক্তি তোফাজ্জল হোসেন রুবেল, ক্রিড়া মাহবুবুল আলম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক  মিজান চৌধুরী, কল্যাণ সম্পাদক তানভীর আহমেদ।

সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন- মনির মিল্লাত, ইসমাইল হোসেন, মহসিন চৌধুরী, মোজাম্মেল হক তুহিন, কিরন শেখ, আলী ইব্রাহিম। 

উল্লেখ্য, বুধবার (৩০ নভেম্বর) সকাল ৯টা থেকে রাজধানীর সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নসরুল হামিদ মিলনায়তনে ভোটগ্রহণ শুরু হয়, যা চলে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। 

এবারের নির্বাচনে ২০টি পদের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন মোট ৪৩ জন। নির্বাচনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার হিসেবে জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক মনজুরুল আহসান বুলবুলসহ আরও কয়েকজন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক দায়িত্ব পালন করেন।

ডিআরইউ নির্বাচন  


মন্তব্য করুন


প্রেস ইনসাইড

শাহনাজ মুন্নী পেলেন এবারের অনন্যা সহিত্য পুরস্কার

প্রকাশ: ০৬:৫৮ পিএম, ০৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail শাহনাজ মুন্নী পেলেন এবারের অনন্যা সহিত্য পুরস্কার।

সাহিত্যে গভীর জীবনদর্শনের প্রতিফলন ঘটিয়ে এবং ভিন্ন ধারা সৃষ্টি করে এবারের ‘অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার ১৪২৯’ সাংবাদিক, কবি ও কথাসাহিত্যিক শাহনাজ মুন্নী। 

শাহনাজ মুন্নীর অগ্রজ এবং অনুজ কথাসাহিত্যিকদের মতে, ৩০ বছরের সাহিত্যচর্চায় শাহনাজ মুন্নী তিলে তিলে নিজেকে গড়ে তুলেছেন। নারীবাদের ক্ষেত্রে পুরুষকে নারীর প্রতিপক্ষ না করে সমকক্ষ হিসেবে হাজির করেছেন।

শনিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) গল্প, উপন্যাস ও কবিতায় অনন্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁর হাতে এ পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে পাক্ষিক অনন্যা এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে বলা হয়, শাহনাজ মুন্নী তাঁর কবিতায় ক্রুদ্ধ এক অন্ধকারের গল্প বলেছেন, হেঁটেছেন হৃদয়ঘরের বারান্দায়। কলমের মাধ্যমে সৃষ্টি করেছেন নতুন ভুবন। এই বিশাল পথে তাঁর সঙ্গী শুধু শব্দ। এ পর্যন্ত শাহনাজ মুন্নীর প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ২৪টি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, ‘এলো ক্রুদ্ধ অন্ধকার’, ‘বাদুর ও ব্র্যান্ডি’, ‘তৃতীয় ঘণ্টা পড়ার আগেই’, ‘পান সুন্দরী’, ‘নির্বাচিত গল্প’, ‘আমি আর আমিন যখন আজিমপুর থাকতাম’। এবার অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশ পাচ্ছে উপন্যাস ‘স্নানের শব্দ’।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কথাসাহিত্যিক ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হামীম কামরুল হক বলেন, নারী তাঁর স্বতন্ত্র সত্ত্বা নিয়ে চলেন। নারীর দেখা পৃথিবী, অস্তিত্ব তাঁর কর্মে হাজির হয়। একটি মানুষকে সামগ্রিকভাবে দেখার যে ক্ষমতা, তা নারীর থাকে; একজন পুরুষ তা পারেন না। নারীবাদের চর্চায় পুরুষকে কখনো কখনো তীব্র প্রতিপক্ষ হিসেবে হাজির করা হয়। শাহ্‌নাজ মুন্নী নারীবাদের চর্চায় পুরুষকে সমকক্ষ হিসেবে দেখেন। তিনি বলেন, এই সময়ের জটিল আবর্ত শাহ্‌নাজ মুন্নীর লেখায় সহজভাবে উঠে আসে। তাঁর লেখায় গভীর আন্তরিকতা। তিনি একজন লেখকের সামগ্রিক দায়িত্ব পালন করে চলেছেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক আনোয়ারা সৈয়দ হক। তিনি বলেন, অন্যন্যা সাহিত্য পুরস্কার নারী সাহিত্যিকদের অগ্রগতির পথে এগিয়ে নিচ্ছে। একজন নারীর সাহিত্যিক হওয়ার পেছনে অনেক দুঃখ–কষ্ট থাকে। সংসারের প্রাত্যহিক অনেক কাজ ‘দক্ষতার’ সঙ্গে করতে না পারার কারণে অনেক সময় তাঁরা সমাদৃত হতে পারেন না। শাহ্‌নাজ মুন্নী সাহিত্যজগতে এক নতুন ধারা সৃষ্টি করেছেন। তাঁর জীবনদর্শন অনেক গভীর। তিনি তিলে তিলে নিজেকে কবি ও কথাসাহিত্যিক হিসেবে তৈরি করেছেন। শাহ্‌নাজের সাহিত্য পড়ে তিনি নিজে অনুপ্রাণিত হয়েছেন।

পুরস্কার পাওয়ার প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে শাহনাজ মুন্নী বলেন, সাহিত্যে এটা তাঁর প্রথম আনুষ্ঠানিক পুরস্কার। তবে দীর্ঘ সাহিত্যজীবনে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া ও অনুপ্রেরণার অনেক অনানুষ্ঠানিক পুরস্কার জমেছে তাঁর। বাংলাদেশের নারীদের অনেক প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে চলতে হয়, সামাজিক সব দায়িত্ব ও কর্তব্য নারীর ওপর চাপানো হয়। সেসব পালন করে একজন নারী সাহিত্যচর্চায় অংশ নিতে পারেন। শাহ্‌নাজ মুন্নী জানান, তিনি লেখার মাধ্যমে আনন্দ খুঁজে পান। সাহিত্যচর্চা তিনি আজীবন চালিয়ে যেতে চান।

সভাপ্রধানের বক্তব্যে পাক্ষিক অনন্যা ও দৈনিক ইত্তেফাকের সম্পাদক তাসমিমা হোসেন বলেন, ভালো মনের চর্চায় বই পড়ার কোনো বিকল্প নেই। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কারণে এখন অনেক পরিবর্তন এসেছে। অনেকে এখন শুধু দেখতে চান, পড়তে চান না। ছাপার জগতকে বিরাট পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে। অনন্যার কার্যালয়ও আগের জায়গায় নেই। ছাপা সাময়িকীর বদলে অনন্যা চলে এসেছে অনলাইনে। পরিবর্তিত সমাজের সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর জন্যও অনেক পড়তে হবে।

অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন লেখক নূর কামরুন্নাহার। অনুষ্ঠানের শুরুতে আবৃত্তি করেন সাহিনা মিতা এবং গান পরিবেশন করে ‘অনন্যা শীর্ষ দশ পুরস্কার’–প্রাপ্ত ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর মেয়েদের দল ‘এফ মাইনর’।

প্রসঙ্গত, বাংলা ১৪০১ সনে (১৯৯৩ সাল) ‘অনন্যা সাহিত্য পুরস্কার’ প্রবর্তন করা হয়। সাহিত্যে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে প্রতিবছর একজন কৃতী নারী সাহিত্যিক অথবা সাহিত্য- গবেষককে এ পুরস্কার দেওয়া হয়।


শাহনাজ মুন্নী   অনন্যা   সহিত্য পুরস্কার  


মন্তব্য করুন


প্রেস ইনসাইড

রূপপুর নিয়ে প্রশ্ন করায় ক্ষুব্ধ বিজ্ঞানমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান

প্রকাশ: ০৮:০৯ এএম, ০২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ‌কেন্দ্র নি‌য়ে প্রশ্ন করায় সাংবাদিকদের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান। বুধবার সচিবালয়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের করণীয় বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠা‌নে এ ঘটনা ঘ‌টে।

কর্মশালায় সাংবা‌দিকের সাথে মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমানের প্রশ্নোত্তর পর্বে কথাবার্তার একপর্যায়ে এক সাংবাদিক বলেন, ‘রাশিয়ার ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মালামাল সরবরাহে কত দেরি হতে পারে?’

এই প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, এই ব্যাপারে এখন কোনো মন্তব্য করবেন না তিনি। তিনি আরও বলেন, ‘আমি বুঝি না, তোমরা প্রফেশনাল না?’ ওই সময় ক‌য়েকজন সাংবাদিক মন্ত্রী‌কে জানান, সাংবা‌দিক‌দের জন্যও সেই ব্যবস্থা র‌য়ে‌ছে। তখন মন্ত্রী বলেন, ‘ঘোড়ার ডিম আছে তোমাদের ...।’

এ রকম আরও কথাবার্তার সময় একজন সাংবাদিক মন্ত্রী‌কে বলেন, তাঁদের সাবজেক্টের বাইরেও প্রশ্ন করতে হয়। মন্ত্রীকেও (ইয়াফেস ওসমান) পান না। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে জনগণের জানার আগ্রহ আছে। জনসাধারণের আগ্রহের জায়গা থেকে অনেক কিছু জানতে হয়।

তখন মন্ত্রী খে‌পে গি‌য়ে বলেন, ‘আমি একটা কথা পরিষ্কার বলে যাই। ইউ লিসেন টু মি। আপনারা যদি না আসতে চান, চলে যান।’ এ সময় তিনি ধমকের সুরে কথা বলেন। এরপর সেখা‌নে উপ‌স্থিত থাকা সাংবা‌দিকেরাও প্রতি‌ক্রিয়া জা‌নি‌য়ে অনুষ্ঠানস্থল ছাড়‌তে থাকেন।



মন্তব্য করুন


প্রেস ইনসাইড

একত্রিত হওয়া আঞ্চলিকতা নয়, শিকড়ে ফিরে আসা: হারুন হাবীব

প্রকাশ: ০৮:৪৫ পিএম, ২৮ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংবাদিক সমিতি-ঢাকার বার্ষিক সম্মেলন ও প্রীতিভোজ অনুষ্ঠান।

বাংলাদেশ সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন হাবীব বলেছেন, একত্রিত হওয়া আঞ্চলিকতা নয়, শিকড়ে ফিরে আসা। বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংবাদিক সমিতি-ঢাকার বার্ষিক সম্মেলন ও প্রীতিভোজ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশিষ্ট এই সাংবাদিক ও কলামিস্ট এ মন্তব্য করেন। 

গতকাল শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) রাজধানীর পূর্বাচলে সংগঠনের সভাপতি বিএফইউজের সাবেক সভাপতি মোল্লা জালালের সভাপতিত্বে সম্মেলনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক উদয় হাকিম। সাধারণ সম্পাদকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন, চ্যানেল আইয়ের বার্তা সম্পাদক সাকিলা পারভীন, দৈনিক সারাবেলা সম্পাদক আব্দুল মজিদ, সাজ্জাদ হোসেন, খায়রুল আলম, গোলাম মাওলা,আবদুস সেলিম, লতিফুল বারী হামীম, জীবন ইসলাম, তানজিল রিমন প্রমুখ।


জেলা সমিতির নেতাদের মধ্যে বক্তব্য দেন রাজেন্দ্র চন্দ্র দেব মন্টু, খান মুহাম্মদ  সালেক, সৌরভ  জাহাঙ্গীর, নুরুল হাসান খান, হকিকত জাহান হকি, মুহাম্মদ শাহজাদা,এরফানুল হক নাহিদ প্রমুখ। 

অনুষ্ঠানে জাতীয় প্রেসক্লাব নির্বাচনে বিজয়ী যুগ্মসম্পাদক মো. আশরাফ আলী, ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য জুলহাস আলম ও সীমান্ত খোকনকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানানো হয়। এ ছাড়া অনুষ্ঠানে আকস্মিকভাবে উপস্থিত ব্যবস্থাপনা কমিটির বিজয়ী সদস্য শাহনাজ সিদ্দিকী সোমাকেও ফুলেল শুভেচছা জানানো হয়। 

অভিনন্দিত নেতারা  তাদের অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, ময়মনসিংহ মানেই ব্যতিক্রম, অনুকরণীয়। তারা সবাই এ রকম একটি আয়োজনের ভূয়সী প্রংসা করেন। সমিতির সাধারণ সম্পাদক উদয় হাকিম সম্মেলনে আগামী দিনের জন্য গৃহীত বেশ কিছু কর্মসূচির উল্লেখ করেন।

সবশেষে সাদা ভাত, রুই মাছ ভাজি, সাথে শীতের সবজি, মাংস ছাড়াও মাছের মাথা দিয়ে দিয়ে মাসকলাইয়ের ডাল এবং ময়মনসিংহ অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী জিয়াফতি আইটেম 'মিডুরি' দিয়ে আমন্ত্রিত অতিথিসহ সদস‍্যদের আপ্যায়ন করা হয়।


বৃহত্তর ময়মনসিংহ   সাংবাদিক সমিতি   ঢাকা   বার্ষিক সম্মেলন   প্রীতিভোজ   অনুষ্ঠান  


মন্তব্য করুন


প্রেস ইনসাইড

মত প্রকাশের স্বাধীনতায় ভারতের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ

প্রকাশ: ১১:০৫ এএম, ২৭ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

বিশ্বজুড়ে গণতন্ত্রের প্রধান অনুসঙ্গ হিসেবে বিবেচনা করা হয় মতপ্রকাশের স্বাধীনতা। মত প্রকাশের স্বাধীনতার সূচকে বরাবর প্রশ্ন তোলা হয় দক্ষিণ এশিয়ার দুই দেশ বাংলাদেশ ও ভারত নিয়ে। বলা হয় বাংলাদেশে বাকস্বাধীনতা কিংবা মুক্ত গণমাধ্যম চর্চা অনেকটাই পিছিয়ে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে নিজেদের বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে দাবি করে আসা ভারতের তুলনায় বাংলাদেশ মত প্রকাশের স্বাধীনতার দিক থেকে অনেকটাই এগিয়ে।

এর সরাসরি প্রমাণ মেলে সম্প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিয়ে ‘ইন্ডিয়া: দ্য মোদি কোয়েশ্চেন’ নামে দুই পর্বের তথ্যচিত্র নিয়ে তৈরী বিতর্কে। ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসির নির্মাতারা মোদি ও দেশটির মুসলিম সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে উত্তপ্ত সম্পর্কের বিষয়টি তথ্যচিত্রটিতে তুলে ধরতে চেয়েছেন।

তথ্যচিত্রের প্রতিপাদ্য বিষয়, ২০০২ সালে গুজরাটে তিন দিনের নরসংহারের জন্য তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিই দায়ী। বিবিসি বলেছে, পরিকল্পনামাফিক মুসলমান নিধনই মোদিকে পরবর্তীকালে দেশের প্রধানমন্ত্রী হতে সাহায্য করেছে।

প্রথম পর্বের পর মঙ্গলবার তথ্যচিত্রটির দ্বিতীয় পর্বও সম্প্রচারিত হয়। তাতে ২০১৪ সালের পর থেকে ভারতের মুসলমানদের সঙ্গে শাসক দল বিজেপির সম্পর্ক কেমন হয়েছে, কীভাবে উত্তরোত্তর বিষিয়ে উঠেছে, তা বিস্তারিতভাবে চিত্রিত।

তথ্যচিত্রটি প্রকাশের পর থেকেই এ নিয়ে গোটা ভারতে শুরু হয় ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা। ওই তথ্যচিত্র নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষোভ জানিয়েছে নয়াদিল্লি। দুই পর্বের এই ধারাবাহিককে প্রোপাগান্ডা হিসেবে অভিহিত করেছে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

কিন্তু বিবিসির তথ্যচিত্র যাতে ভারতে প্রদর্শিত না হয়, সে জন্য সরকারের পক্ষ থেকে বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়। ইউটিউব ও টুইটারকে দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী ভারতে প্রদর্শন না করার যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়। টুইটারকে বলা হয় তথ্যচিত্রের লিংক মুছে দেওয়ার জন্য। বিভিন্ন রাজ্যে প্রশাসনিক পর্যায়েও ব্যবস্থা গ্রহণের অলিখিত আদেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও দুই পর্বের ওই তথ্যচিত্র দেখানো হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্যে। তা নিয়ে কোথাও কোথাও পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। রাজ্যে রাজ্যে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রসংগঠন তথ্যচিত্র দেখানোর কর্মসূচি নিলে সেখানে ধরপাকর চালিয়েছে পুলিশ। ক্যাম্পাসে ঢোকে নির্বিচারে লাঠিচার্জ করে তারা।

এখানেই এই প্রশ্নটা বড় হয়ে দেখা দিচ্ছে, কেন বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্র বলে যারা নিজেদের দাবি করে থাকে সেই শক্তিশালী ভারত কেন বিবিসির মাত্র আটান্ন মিনিটের (প্রথম পর্ব) একটা তথ্যচিত্রে এত কঠোর প্রতিক্রিয়া জানাল?

সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা সূচকে ভারত-বাংলাদেশ দুইটি প্রতিবেশী দেশই গত বছরের তুলনায় পিছিয়েছে বেশ কয়েক ধাপ। ভারতে সরকারের সমালোচক সাংবাদিকদের রাষ্ট্রবিরোধী তকমা দেবার পাশাপাশি তাঁদের বিরুদ্ধে মানহানি, রাষ্ট্রদ্রোহিতা, আদালত অবমাননা এবং জাতীয় নিরাপত্তার পক্ষে বিপজ্জনক নানা ধারায় অভিযোগ দেওয়া 

এদিকে বাংলাদেশে সংবাদমাধ্যমে সমস্যা ও সংকট থাকলেও সেখানেও সহনশীলতাঁর উদাহরণও রয়েছে। বাংলাদেশের গণমাধ্যমের পরিস্থিতি শোচনীয়, সমস্যা আছে। কিন্তু তার অর্থ এই নয়, বাংলাদেশের প্রেস ফ্রিডম পরিস্থিতি বা রাজনৈতিক পরিস্থিতি আফগানিস্তানের চেয়েও খারাপ।

বাংলাদেশের গণমাধ্যমের সমস্যাগুলো থেকে উত্তরণের জন্য “সাংবাদিক সমাজের লড়াই অব্যাহত আছে এবং সরকারও এসব আন্দোলনে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ইতিবাচক সাড়া দিচ্ছে।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ওমর ফারুক বেনারকে বলেন, “আমাদের দেশে এখন সরকারের দিক থেকে সাংবাদিকদের স্বাধীনতা নিয়ন্ত্রণ করা হয় না।”

তাঁর মতে, “সাংবাদিকতার স্বাধীনতায় কর্পোরেট মালিকদের নিয়ন্ত্রণ আছে। এখানে সাংবাদিকতার স্বাধীনতা বলতে মালিকদের স্বাধীনতা।”

সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের গণতন্ত্র এবং মানবাধিকার পরিস্থিতি সম্পর্কে অনেকগুলো আন্তর্জাতিক প্রতিবেদন বেরিয়েছে। তাঁর কোনোটিতেই কোনরকম নিষেধাজ্ঞা বা প্রতিক্রিয়া জানায়নি বাংলাদেশ। বরং মুক্ত গণমাধ্যমের চর্চার চেষ্টা করেছে। ঐসব বাংলাদেশের অবস্থা ভালো বলা হয়নি,” উল্লেখ করে দেশের মানবাধিকার, রাজনৈতিক স্বাধীনতা, সংবাদক্ষেত্রের স্বাধীনতাসহ সকল সূচক নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। তবে ভারত যেভাবে কঠোর হস্তে নিধনে নেমেছে বাংলাদেশে তেমন চিত্র দেখা যায়নি।

ভারত সাংবাদিকদের জন্য ‘কঠিন জায়গা’

ভারত “সাংবাদিকদের জন্য কঠিন জায়গা” বলে উল্লেখ করা হয় আরএসএফ’র চলতি বছরের সমীক্ষা প্রতিবেদনে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, “ভারতে সাংবাদিকদের এখন পুলিশ, রাজনৈতিক কর্মী, অপরাধী গোষ্ঠী ও স্থানীয় দুর্নীতিগ্রস্ত সরকারি কর্মকর্তাদের আক্রমণসহ সব ধরনের শারীরিক হিংসার মুখোমুখি হতে হচ্ছে।”

২০১৪ সাল থেকে ভারতীয় জনতা পার্টির নেতা নরেন্দ্র মোদীর শাসনামল এবং হিন্দু জাতীয়তাবাদের মূর্ত প্রকাশের ফলে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব হচ্ছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

এতে বলা হয়, সরকারের সমালোচক সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক হয়রানি ও আক্রমণের প্রচার চালিয়ে চলেছে মোদী ভক্তরা।

প্রতিবেদনের সঙ্গে ঐক্যমত্য প্রকাশ করে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালিজম অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনের সিনিয়র অধ্যাপক অঞ্জন বেরা বেনারকে বলেন, ভারতে “গত কয়েকবছরে যেভাবে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ভূলুণ্ঠিত হয়েছে তা দুর্ভাগ্যজনক।”

তাঁর মতে, সংবাদমাধ্যমের মালিকানার কেন্দ্রীভবন, কর্পোরেট সংস্থার নিয়ন্ত্রণ এবং ধর্ম ও সম্প্রদায়ের ভিত্তিতে বিভাজনের রাজনীতি ভারতের গণমাধ্যমের স্বাধীনতার উপর বিরূপ প্রভাব ফেলেছে।

“এর মধ্যে যে সব সংবাদপত্র ও ডিজিটাল মিডিয়া সরকারের সমালোচনা করছে তাদের উপর হস্তক্ষেপ বাড়ছে। বিশেষ করে ডিজিটাল মিডিয়াকে দমন করার ক্ষেত্রে সরকারের ভূমিকা উদ্বেগজনক।”

ভারতে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা “কখনো স্বাস্থ্যকর ছিলনা। ২০১৪ সালের পরে বর্তমান সরকারের আমলে মিডিয়ার বহুত্ববাদী চরিত্রকে বিলোপ করে দেওয়া হয়েছে। কর্পোরেটের মাধ্যমে, বিভাজনের মাধ্যমে ভারতীয় মিডিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। সাংবাদিকদের সব অধিকার কেড়ে নেবার ব্যবস্থা হচ্ছে।

বর্তমানে ভারতে ১৩ জন সাংবাদিক জেলে রয়েছেন বলে উল্লেখ করা হয় আরএসএফের এক প্রতিবেদনে।



মন্তব্য করুন


প্রেস ইনসাইড

নিখোঁজের ৭ ঘন্টা পর নাশকতা মামলা দেখিয়ে সাংবাদিককে গ্রেফতার

প্রকাশ: ০২:৩১ পিএম, ২৪ জানুয়ারী, ২০২৩


Thumbnail

দীপ্ত টিভি ও দৈনিক প্রজন্ম একাত্তরের সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি রঘুনাথ খাঁকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়ার ৭ ঘণ্টা পর গ্রেফতার দেখিয়ে দেবহাটা থানায় নাশকতা মামলা রুজু করেছেন পুলিশ।

সোমবার (২৩ জানুয়ারি) রাতে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দেবহাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ ওবায়দুল্লাহ। এসময় আরও দুইজনকে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ।

গ্রেফতার হওয়া সাংবাদিক রঘুনাথ খাঁর বাড়ি সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার বিষ্ণুপুরের গ্রামে। তিনি সাতক্ষীরা শহরের লস্কারপাড়ার ভাড়া বাড়িতে থাকেন। গ্রেফতার অন্য দুজন হলেন— উপজেলার ঢেবুখালী গ্রামের রেজাউল করিম ও চালতেতলা এলাকার লুৎফর রহমান।এরআগে বেলা ১১টার দিকে সাংবাদিক রঘুনাথ খাঁর স্ত্রী সুপ্রিয়া রানী খাঁ মোবাইল ফোনে জানান, সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সাতক্ষীরা বড়বাজার সড়কের ডে নাইট কলেজ মোড় থেকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয়েছে বলে জানান রঘুনাথ খাঁ,র স্ত্রী সুপ্রিয়া রানী খাঁ।

সুপ্রিয়া রানী খাঁ আর জানান, সংবাদ সংগ্রহ সংক্রান্ত বিষয়ে সোমবার সকালে সাংবাদিক রঘুনাথ খাঁ একটি ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেলযোগে দেবহাটায় খলিশাখালী এলাকায় যান। সেখান থেকে ফিরে আসার পর ডে নাইট কলেজ মোড় থেকে আটক করা হয়। তিনি জানান, খবর পেয়ে তিনি থানাসহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ নিয়েছেন। তবে কোথাও তার খোঁজ পাওয়া যায়নি।

তিনি আরও জানান, গত শনিবার গভীর রাতে একদল লোক তাদের সাতক্ষীরা শহরের কাটিয়াস্থ বাসায় এসে প্রথমে ডাকাডাকি করে। তারা ভয়ে কোন সাড়াশব্দ না দিলে পরে ইটখোলা মেরে চলে যায়।

রঘুনাথ খাঁকে বহনকারী মোটরসাইকেলের চালক আব্দুল কুদ্দুস জানান, তিনি রঘুনাথ খাঁকে বহন করে দেবহাটার খলিষাখালী এলাকায় গিয়েছিলেন। সেখানে রঘুনাথ খাঁ মোবাইলে কিছু ছবি তোলেন। ফিরে এসে তিনি বড়বাজারে বাজার করেন। বাজার নিয়ে ফিরে আসার পথে পিএন স্কুলের সামনে তাদের গতিরোধ করেন আইন প্রয়োগকারী সংস্থার পরিচয়দানকারী লোকজন। পরে তাকে বাইক থেকে নামিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

দেবহাটা থানায় যোগাযোগ করা হলে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) শেখ ওবায়দুল্লা বলেন, দেবহাটার খলিশাখালীতে গতকাল সোমবার সন্ধ্যা পর বোমা ফাটিয়ে নাশকতা সৃষ্টির সময় রঘুনাথ খাঁসহ ৩জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে ককটেল সাদৃশ্য বস্তু উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইন ও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা হয়েছে। এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

উল্লেখ্য, দেবহাটা উপজেলার খলিশাখালী এলাকার প্রায় ১৩২০ বিঘা ব্যক্তি মালিকানাধীন রেকর্ডীয় জমি ভূমিহীনদের নামে একদল দুর্বত্ত ২০২১ সালের ১০ সেপ্টেম্বর দখল করে নেয়। গত ২০২২ সালের ১৫ নভেম্বর ঐ জমি পুনরায় ফিরে দখলে নেয় জমির রেকর্ডীয় মালিকরা। রোববার দিবাগত রাতে ভূমিহীনদের নাম ব্যবহার করে ওই জমি পাল্টা দখলের চেষ্টা করে দুর্বৃত্তরা। সাংবাদিক রঘুনাথ খাঁ বিভিন্ন সময়ে এ সকল তথ্য নিয়ে লেখালেখি করে আসছিলেন।



মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন