ইনসাইড ইনভেস্টিগেশন

বেনজীরের রত্নভান্ডার: দেশের সামান্যই, বিদেশেই বেশি


প্রকাশ: 29/05/2024


Thumbnail

বেনজীর আহমেদ, সাবেক পুলিশ প্রধান। দেশে তার বিপুল সম্পদের হিসাব নিয়ে যখন মানুষের ভিরমি খাওয়ার অবস্থা, তখন দুর্নীতি দমন কমিশন এবং অন্যান্য গোয়েন্দা সূত্রগুলো বলছে, দেশে তার সম্পদ সামান্যই। এটি হল শুধুমাত্র পিনাট বা বাদাম। বেনজীরের আসল সম্পদ বিভিন্ন দেশে। 

উল্লেখ্য, বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে কালের কন্ঠ এবং অন্যান্য সংবাদপত্রগুলোতে যে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছিল তার প্রেক্ষিতে দুর্নীতি দমন কমিশন এখন পর্যন্ত অনুসন্ধান করে তার এবং পরিবারের যে সম্পত্তি পেয়েছে তার মধ্যে রয়েছে ৬২১ বিঘা জমি, ১৯ টি কোম্পানির শেয়ার, গুলশানে চারটি ফ্ল্যাট, ৩০ টাকার সঞ্চয়পত্র, ৩৩ টি ব্যাংক হিসাব এবং তিনটি বিও হিসাব। 

বিভিন্ন সূত্র বলছে, দুর্নীতি দমন কমিশন দেশে যে সম্পত্তির হদিস পেয়েছে তার চেয়ে কয়েক গুণ বেশি সম্পদ আছে বিদেশে। বেনজীর আহমেদের সম্পদ অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, সিঙ্গাপুর, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং মালয়েশিয়ায় থাকতে পারে বলে দুর্নীতি দমন কমিশন ধারণা করছে। 

বাংলা ইনসাইডারের নিজস্ব অনুসন্ধানে জানা গেছে যে, বেনজীর আহমেদের বিপুল সম্পদদের বড় অংশ রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে। এখানে তিনি গত ১০ বছর ধরে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে। 

বেনজীর আহমেদের এক মেয়ের স্বামী দুবাইতে ব্যবসা করেন বলেও নিশ্চিত তথ্য পাওয়া গেছে এবং সেখানেই তিনি বসবাস করেন। আর বেনজীর আহমেদের দুবাইতে সম্পত্তির মধ্যে বাড়ি, দোকান, রেস্তোরাঁ সহ বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা রয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও বেনজীর আহমেদের পরিবারের নামে সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়াতে বিপুল সম্পদ আছে বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে। বেনজীর আহমেদের স্ত্রীর সিঙ্গাপুর এবং মালয়েশিয়া সম্পদ থাকার কথা নিশ্চিত করেছে একাধিক সূত্র। 

অন্য একটি সূত্র বলছে, যুক্তরাজ্যেও বেনজীর আহমেদের সম্পদ রয়েছে এবং সেখানে তার মেয়ে লেখাপড়া করে। আরেকটি সূত্র থেকে প্রাপ্ত খবরে জানা গেছে, বেনজীর আহমেদের পরিবারের অস্ট্রেলিয়াতেও বেশ কিছু সম্পত্তি রয়েছে। তবে দুর্নীতি দমন কমিশন এখন পর্যন্ত এদের ব্যাপারে নিশ্চিত কোন তথ্য পায়নি।

বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে, বেনজীর আহমেদের এই তথ্যের বিস্তারিত হিসাব তারা সংগ্রহ করছে এবং এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) পক্ষ থেকেও কাজ করা হচ্ছে। সবকিছু মিলিয়ে বেনজীর আহমেদের পরিবারের সম্পত্তি কত তা নিশ্চিত হতে সময় লাগবে বলে মনে করছেন কোন কোন মহল। 

অনেকেই মনে করছেন, বেনজীর আহমেদের সব সম্পদ তার নিজের নামে নয়, অন্যান্য বেনামেও তিনি বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে টাকা বানিয়েছেন। সেই সম্পদ গুলোর হিসাব পাওয়া সত্যি সত্যি দুরূহ হবে।


প্রধান সম্পাদকঃ সৈয়দ বোরহান কবীর
ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেডের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান

বার্তা এবং বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ২/৩ , ব্লক - ডি , লালমাটিয়া , ঢাকা -১২০৭
নিবন্ধিত ঠিকানাঃ বাড়ি# ৪৩ (লেভেল-৫) , রোড#১৬ নতুন (পুরাতন ২৭) , ধানমন্ডি , ঢাকা- ১২০৯
ফোনঃ +৮৮-০২৯১২৩৬৭৭