ইনসাইড থট

প্রতিকূল পরিবেশে বাজেটে নেই আশার দিক নির্দেশনা


প্রকাশ: 08/06/2024


Thumbnail

জাতীয় বাজেট শুধু বার্ষিক আয়-ব্যায়ের হিসাব নয়, বরং বর্তমান প্রেক্ষিতে বাজেট দেশের জনগণের আস্থা এবং বিশ্বাস অর্জনের হাতিয়ার।  সরকারের ভিশন ও লক্ষ্য অর্জনে বাজেট শুধু দিক নির্দেশনার মধ্যেই সীমিত নয় বরং সরকার দেশের প্রবৃত্তি অর্জনে, সম্পদ আহরণে বা অন্যবিধ সমস্যা সমাধানে কি কি উদ্যোগ নিচ্ছেন বা নিবেন এবং দেশবাসীর প্রত্যাশা কিভাবে পূরণ করছেন বা করবেন তার দিক নির্দেশনা থাকবে। 

এবারে বাজেট পেশের পর পরই বাজারে অস্থিরতা লক্ষ্য করা হচ্ছে যার অর্থ সরকারি কর্মচারীরা যে বাজেট তৈরী করেছেন তা জনগণের প্রত্যাশা পূরণে বা আস্থা অর্জনে সফলকাম এখনও  হয়নি। বরং সৎপথে যারা অর্থ উপার্জন করবে তাদের উপর ট্যাক্স ধার্য হয়েছে শতকরা ৩০% ভাগ এবং যারা অসৎ উপায়ে বা ঘুষ-চুরি করে উপার্জন করবে তাদের ট্যাক্স হচ্ছে ১৫% বা অর্ধেক।  জনগণ মনে করে এর মাধ্যমে দুর্নীতি আরো বাড়বে, টাকা পাচার ও আরো বাড়বে।  

বর্তমান প্রতিকূল পরিবেশে বাজেট তৈরী করা মোটেই সহজ নয়। দেশে বড় বড় সমস্যা রয়েছে। যেমন: 

  1. মুদ্রাস্ফীতি কমানো, 
  2. অধিকতর কর্ম সংস্থান বৃদ্ধি, 
  3. রাজস্ব বৃদ্ধি, 
  4. ব্যাংক ঋণ কমানো যাতে crowding-out effect না দেখা দেয়, অর্থাৎ সরকার ব্যাংক থেকে সব ঋণ নিয়ে নিলে ব্যবসায়ীরা কোনও ঋণ পাবে না এবং তারাই তো বিনিয়োগ করে কর্মসংস্থান বাড়ায় তা পারবে না, 
  5. প্রবৃদ্ধি ধরে রাখা বা বাড়ানো, 
  6. বিনিয়োগ বাড়ানো, 
  7. ব্যাংক ব্যবস্থায় আস্থা ফিরানো, 
  8. মানুষের প্রত্যাশা পূরণ ইত্যাদি।

এবারের বাজেটে এগুলো আলোচনায় এসেছে,  তবে বাস্তব ভিত্তিক পদক্ষেপ নেই যারফলে জনমনে এত নিরাশা।

সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত অনেকগুলো বাজেট দিয়েছেন এবং তার বাজেটগুলোতে লক্ষ্য, দিক নির্দেশনা এবং বিভিন্ন বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ তুলে ধরা হয়েছে। তাছাড়া তাতে নতুন নতুন ইনোভেশন বা চমক ছিল। যেমন: জেন্ডার বাজেটটিং, জেলা বাজেট, শিশুদের বাজেট, Public-Private Partnership, decentralization of budget ইত্যাদি। বিশেষ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যা চান, অর্থাৎ জনগণকে এসব চেলেঞ্জ মোকাবিলায় সম্পৃক্ত করা তা তার বাজেটে ছিল। তিনি একাধিক গোষ্ঠীর সাথে আলাপ আলোচনা করে তাদের প্রত্যাশা অনুযায়ী বাজেট প্রস্তুত করতেন। এবারের বাজেট প্রস্তাবনায় তা লক্ষিত হয়নি। এই প্রতিকূল পরিবেশেও কোনও চমক নেই বা আশার দিক নির্দেশনা নেই। 

গেল দেড় বছর ধরে দ্রব্যমূল্য কমানোর জন্য সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও দ্রব্যমূল্যের দাম কমাতে পারছে না আর আগামী ছয় মাসে তা ৯.৭% থেকে ৬.৫% নেমে আসবে তা জনগণ বিশ্বাস করতে পারছে না। তাছাড়া রাজস্ব বৃদ্ধির ক্ষেত্রে যে যুগান্তকারী পরিবর্তন দরকার তা এই বাজেটে অনুপস্থিত। প্রচলিত নিয়মে যারা আয়কর দেয় তাদের উপর আরো অধিকতর করের বোঝা আরোপিত হবে এবং দেশের বৃহত্তর জনগণ এই বাজেটে করের আওতামুক্ত থাকবে এটা দেশের জন্য মঙ্গলকর নয়।

করের পরিধি এবং রাজস্ব বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজন, যারাই জাতীয় পরিচয় পত্র (NID) আছে তাকেই ট্যাক্স রিটার্ন দাখিল করা এবং বর্তমান TIN নম্বর কোম্পানিরগুলোর জন্য বরাদ্দ করা। এ নিয়ম চালু হলে ট্যাক্স বেইস কয়েকগুণ বাড়বে এবং রাজস্ব আয়ের পরিমাণ ও অনেকগুণ বৃদ্ধি পাবে বৈ কি। তাহলে সরকারকে অধিকতর ঋণের বোঝা বহন করতে হবে না। বর্তমান নিয়মে আয়ের শতকরা ২৩% ভাগই ঋণের সুদ বাবদ ব্যয়িত হবে যা দেশের জন্য সুখকর নয়।



প্রধান সম্পাদকঃ সৈয়দ বোরহান কবীর
ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেডের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান

বার্তা এবং বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ২/৩ , ব্লক - ডি , লালমাটিয়া , ঢাকা -১২০৭
নিবন্ধিত ঠিকানাঃ বাড়ি# ৪৩ (লেভেল-৫) , রোড#১৬ নতুন (পুরাতন ২৭) , ধানমন্ডি , ঢাকা- ১২০৯
ফোনঃ +৮৮-০২৯১২৩৬৭৭