ইনসাইড থট

স্বেচ্ছা পদাবনতি, এত ট্রল কেন?


প্রকাশ: 16/06/2024


Thumbnail

স্বেচ্ছায় ক্যাডার চাকুরী ছেড়ে দেয়ার অনেক নজির রয়েছে। কিন্তু স্বেচ্ছায় পদাবনতি। স্বেচ্ছায় ক্যাডার চাকুরী ছেড়ে নন ক্যাডার চাকুরী গ্রহণ। এসব খবর সচরাচর শোনা যায় না। সম্প্রতি বিসিএস তথ্য ক্যাডারের একজন কর্মকর্তা ক্যাডার চাকুরী ছেড়ে দিয়ে সাব রেজিস্ট্রার হয়েছেন। সাব রেজিস্ট্রার পদটি নন ক্যাডার ভুক্ত। পদোন্নতির সম্ভাবনা সীমিত। কিন্তু এখানে নিজের অর্থনৈতিক উন্নতির অপার সম্ভাবনা। বিয়ের বাজারেও খুব দাম। অফিস কক্ষটিতে একটা আদালত ভাব রয়েছে। সভা কক্ষটি যেন একটি এজলাস। শান শওকত মন্দ নয়। আশে পাশে শুধু টাকা আর টাকা। বোধ করি সেজন্যই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিরাট হৈচৈ। সবাই তাকে নিয়ে ট্রল করছে। অনেকেই বলছেন, তিনি বুদ্ধিমান, তিনি স্মার্ট। টাকার খনির মালিক হবার জন্য তার এ স্বেচ্ছায় পদাবনতি।

স্বেচ্ছায় ক্যাডার চাকুরী অনেকেই ছাড়েন। তিনিও ছেড়েছেন। তাতে অবাক হবার কিছু নেই। তিনি ক্যাডার হবেন নাকি নন ক্যাডার হবেন, সেটি তার একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার। এখানে না জেনে শুনে ট্রল করার কোন যৌক্তিকতা দেখি না। ট্রলকারীদের বক্তব্যের সারাংশ হচ্ছে, তিনি দুর্নীতি করার জন্য সাব রেজিস্ট্রার হচ্ছেন। কারণ সাব রেজিস্ট্রার অফিসের দুর্নীতি সর্বজন বিদিত। বছর দুয়েক আগে টিআইবি'র এক জরিপে দেখা গেছে, ভূমি খাতের দুর্নীতি দেশে ষষ্ঠ স্থান অধিকার করেছে। প্রথম স্থানে রয়েছে পুলিশ বিভাগ। ভূমি খাতে সেবা নিতে এসে দুর্নীতির শিকার হয়েছে ৪৬.৩ শতাংশ খানা। ঘুষ দিয়েছে এমন খানার সংখ্যা ৩১.৫ শতাংশ। গড় ঘুষের পরিমাণ ৭ হাজার ২৭১ টাকা।

এমন তো হতে পারে, ভূমি খাতের এ সব দুর্নীতির কথা শুনে তার বিবেক দংশিত হয়েছে। তিনি দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিহাদ করার জন্য রেজিস্ট্রি অফিসে যোগ দিচ্ছেন! জাতিসংঘের সংজ্ঞায় যাদের বয়স ১৫ থেকে ২৯ বছরের মধ্যে, তাদেরই তরুণ বলা হয়। সেই হিসাবে তিনি বয়সে তরুণ। ‘দুর্জয় তারুণ্য দুর্নীতি রুখবেই’- তিনি হয়ত এ স্লোগানে বিশ্বাস করেন! তিনি হয়ত নিজ কর্মক্ষেত্র থেকে দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলন এগিয়ে নিয়ে যেতে চান! নিজের অর্থনৈতিক উন্নয়ন নাকি দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলনের জন্য তিনি স্বেচ্ছায় পদাবনতি বেছে নিয়েছেন, সেটি এখন একটি মিলিয়ন ডলারের প্রশ্ন। আমরা ভালটাই বিশ্বাস করতে চাই। বিশ্বাস করতে চাই যে, এই তরুণ দুর্নীতির জন্য নয়, দুর্নীতি প্রতিরোধের জন্য স্বেচ্ছায় পদাবনতি বেছে নিয়েছেন।

বর্তমান সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছে। দুদক এ ব্যাপারে খুবই সজাগ। আয়কর বিভাগও পিছিয়ে নেই। সবার প্রত্যাশা, দুদক ও আয়কর বিভাগ স্বেচ্ছায় পদাবনতি গ্রহনকারী কর্মকর্তাকে শুরু থেকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখুক। তাহলে ভবিষ্যতে বোঝা যাবে তিনি কি দুর্নীতির করার মোহে আকৃষ্ট হয়ে স্বেচ্ছা পদাবনতি নিলেন, নাকি দুর্নীতির বিরুদ্ধে জেহাদ করতে সাব রেজিস্ট্রার হলেন।

আবার কেউ কেউ বলছেন, তথ্য ক্যাডারে নাকি ১০ বছরেও পদোন্নতি হয় না। তাতে আর্থিক সংকটে ভুগতে হয়। মর্যাদা সংকটও হয়। শুধু তিনি এক নন, আরো অনেকেই নাকি তথ্য ক্যাডারের চাকুরী ছাড়ার কথা ভাবছেন। বিষয়টি সত্য হলে সেটি ভাবনার বিষয়, দুঃখজনকও বটে। সেক্ষেত্রে সরকারের উচিত ক্যাডার বৈষম্য কমানোর উদ্যোগ নেয়া। উক্ত কর্মকর্তার স্বেচ্ছায় পদাবনতিকে একটি কেস হিস্ট্রি হিসাবে গ্রহণ করে সরকারের উচিত এটির ময়না তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা। 

লেখকঃ প্রবাসী চিকিৎসক, কলামিস্ট 


প্রধান সম্পাদকঃ সৈয়দ বোরহান কবীর
ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেডের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান

বার্তা এবং বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ২/৩ , ব্লক - ডি , লালমাটিয়া , ঢাকা -১২০৭
নিবন্ধিত ঠিকানাঃ বাড়ি# ৪৩ (লেভেল-৫) , রোড#১৬ নতুন (পুরাতন ২৭) , ধানমন্ডি , ঢাকা- ১২০৯
ফোনঃ +৮৮-০২৯১২৩৬৭৭