ইনসাইড পলিটিক্স

নতুন মহাসচিব নিয়ে তৃণমূলের সাথে তারেকের সংলাপ


প্রকাশ: 19/06/2024


Thumbnail

বিএনপিতে এখন পরিবর্তনের হাওয়া বইছে। এই নিয়ে দলের মধ্যে অস্বস্তি এবং সীমাহীন আতঙ্ক। তার মধ্যে তারেক জিয়া তার সিদ্ধান্তে অনড়। তিনি দলের খোলনলচে পাল্টে ফেলার জন্য পরিবর্তনের ধারা অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন। স্থায়ী কমিটির সদস্যদেরকে গত রাতে বলেছেন, যে কোন সময় যে কেউ বাদ পড়তে পারেন। যারা দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না তাদের দলে থাকার দরকার নেই। 

বিএনপিতে এখন তাই কমিটি এবং পদে থাকা না থাকার এক ধরনের আতঙ্ক চলছে। এই আতঙ্কের মধ্যেই লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া তৃণমূলের সঙ্গে ধারাবাহিকভাবে বৈঠক করছেন। এবার তিনি বৈঠক করছেন দলের সম্ভাব্য মহাসচিব কাকে করা যায় তা নিয়ে। 


সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের মহাসচিব থাকতে চান না। এটা তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন। আর বিএনপির পক্ষ থেকে তারেক জিয়া এবং বেগম খালেদা জিয়া তাকে পরবর্তী মহাসচিব চূড়ান্ত না করা পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করে যেতে বলেছেন। এরকম অবস্থায় তারেক জিয়া এখন নতুন মহাসচিব নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করেছেন। কিন্তু নতুন মহাসচিব কে হবে—এই নিয়ে তারেক জিয়া তৃণমূলের মতামত গ্রহণ করছেন। তৃণমূল কাকে পছন্দ করে সেই বিষয়টিকে মূল্যায়ন করা হচ্ছে সবার আগে। 

বিএনপির একজন স্থায়ী কমিটির সদস্য বলছেন যে, বিএনপিতে এখন সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়া পাল্টে গেছে। আগে স্থায়ী কমিটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করত এবং সেই সিদ্ধান্ত তৃণমূলকে জানিয়ে দেওয়া হতো। এখন তৃণমূলের মতামতের আলোকে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। তৃণমূলের পক্ষ থেকে যে মতামত দেওয়া হয় সেই সিদ্ধান্তই কার্যকর করার চেষ্টা করা। তবে একাধিক দায়িত্বশীল নেতা বলেছেন, এগুলো স্রেফ আইওয়াশ। তৃণমূলের কাছ থেকে শুধুমাত্র মতামত নেওয়া হয়। এটি এক ধরনের পলিটিক্যাল স্ট্যান্ডবাজি বলেও মনে করছেন বিএনপির কোনো কোনো নেতা। তবে সেটি যাই হোক না কেন, নতুন মহাসচিব হিসেবে বেশ কিছু নাম সামনে এসেছে এবং আগামী কিছু দিনের মধ্যেই নতুন মহাসচিব হিসেবে কাউকে দেখা যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। 


বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্র বলছে যে, এখন জাতীয় নির্বাহী কমিটি পরিবর্তন সম্পন্ন হচ্ছে। সামনে স্থায়ী কমিটির পুনর্গঠন হবে। এরপর মহাসচিব পরিবর্তন হবে। বিএনপিতে আপাতত কাউন্সিল করা সম্ভব হচ্ছে না বলেই মনে করছেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্য। কারণ বিএনপি যদি কাউন্সিল করে তাহলে অনেকগুলো প্রশ্নের জবাব দিতে হবে। জবাবদিহিতার আওতায় আসতে হবে অনেক সিনিয়র এবং গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে। আর এই কারণেই কাউন্সিল এড়িয়ে যাওয়া হচ্ছে।

তবে বিএনপির নেতারা অবশ্য বলছেন ভিন্ন কথা। তারা বলছেন যে, এখন কাউন্সিল করার মত রাজনৈতিক পরিবেশ নেই। দলের অধিকাংশ নেতাকর্মী হয় মামলার শিকার হচ্ছেন অথবা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। এ রকম অবস্থায় কাউন্সিল করা কোনভাবেই সম্ভব নয়। আর এ কারণেই কাউন্সিল ছাড়াই দলের গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে রদবদল করা হচ্ছে। তবে মহাসচিব কে হবে এ নিয়ে বিএনপির মধ্যে যে আলোচনা গুলো হচ্ছে তাতে নানারকম মতামত পাওয়া যাচ্ছে। তবে বিএনপির নেতারা বলছেন, আসলে মহাসচিব কে হবেন এটি চূড়ান্ত করবেন লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়াই। তিনি যে সিদ্ধান্ত নিবেন সেই সিদ্ধান্তই তৃণমূলের সিদ্ধান্ত হিসেবে চাপিয়ে দেওয়া হবে।


প্রধান সম্পাদকঃ সৈয়দ বোরহান কবীর
ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেডের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান

বার্তা এবং বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ২/৩ , ব্লক - ডি , লালমাটিয়া , ঢাকা -১২০৭
নিবন্ধিত ঠিকানাঃ বাড়ি# ৪৩ (লেভেল-৫) , রোড#১৬ নতুন (পুরাতন ২৭) , ধানমন্ডি , ঢাকা- ১২০৯
ফোনঃ +৮৮-০২৯১২৩৬৭৭