ইনসাইড গ্রাউন্ড

ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে প্রথমার্ধে সমতায় ফ্রান্স-নেদারল্যান্ডস


প্রকাশ: 11/07/2024


Thumbnail

জিতলেই স্বপ্নেই ফাইনাল। হারলে বিদায়। এমন সমীকরণের ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে ইংল্যান্ড ও নেদারল্যান্ডস। ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালটিতে ম্যাচের শুরুতেই জালের দেখা পেয়ে গেছে ডাচরা। জাভি সিমন্সের গোলে ম্যাচের শুরুতেই এগিয়ে যায় অরেঞ্জ আর্মিরা। তবে সেই স্বস্তি ভেস্তে দিয়ে সমতায় ফিরেছে ইংল্যান্ড। দুদলের আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে উঠেছে সেমির মহারণ।

ইউরোর ফাইনালে যাওয়ার লড়াইয়ে ইংল্যান্ড ও নেদারল্যান্ডসের মধ্যকার ম্যাচের প্রথমার্ধ শেষ হয়েছে ১-১ সমতায়। বুরুশিয়া ডর্টমুন্ডের সিগনাল ইদুনা পার্কে দ্বিতীয় সেমিফাইনালের প্রথম ৪৫ মিনিট ছিল জমজমাট আর উপভোগ্য।।

টানা দ্বিতীয়বারের ইউরোর সেমিফাইনালে খেলছে ইংলিশরা কিন্তু পার্ফমেন্স দিয়ে দর্শকদের মন জয় করে নিতে পারেনি। এদিকে কোনোরকমে গ্রুপ পর্ব পেরোনো নেদারল্যান্ডস নকআউট পর্বে যেন একেবারেই বদলে যাওয়া এক দল।

চলমান ইউরোর নকআউটে ইংল্যান্ড যেখানে এখনো কোনো ম্যাচ ৯০ মিনিটে জিততে পারেনি। অপরদিকে ডাচরা দ্বিতীয় রাউন্ড ও কোয়ার্টার ফাইনাল সহ দুটি ম্যাচই ৯০ মিনিটের মধ্যে জিতে সেমিফাইনালে নাম লিখিয়েছে।

তবে আজ যে সেমিফাইনাল, ফাইনালে স্পেনের প্রতিপক্ষ হওয়ার দৌড়ে দুই দলই যে নিজদের সবটা উজাড় করেই দিবে। এমন ম্যাচে এদিন শুরু থেকেই দুই দলের লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যায়। যেখানে শুরু থেকেই দুইদল আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে মনযোগী থাকে।

এরপর ম্যাচের শুরুর ছয় মিনিট পর্যন্ত দুই দল বলের আধিপত্য ও মাঝমাঠ নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করে। এরপরই ম্যাচের সাত মিনিটে গোলের দেখা পায় নেদারল্যান্ডস। ডি বিক্সের বাইরে থেকে দূরপাল্লার শটে ডাচদেরকে লিড এনে দেন জাভি সিমন্স।  

এরপর পিছিয়ে পড়া ইংল্যান্ড গোল পরিশোধে পাল্টা আক্রমণে মরিয়া হয়ে ওঠে, এর মাঝে ম্যাচের ১৬ তম মিনিটে ইংল্যান্ডের স্ট্রাইকার হ্যারি কেইন বিপক্ষ দলের গোলপোস্টে কিক নেয়ার সময় তাকে ফাউল করে বসে ডাচ ডিফেন্ডার। ফলে পেনাল্টি পেয়ে যায় ইংলিশরা। এরপর পেনাল্টি থেকে ১৮ মিনিটে ইংল্যান্ডকে সমতায় ফেরায় হ্যারি কেইন।

গোল পরিশোধের তিন মিনিট পর ম্যাচের ২১ মিনিটে আবারও দারুণ একটি সুযোগ পায় ইংলিশরা। কিন্তু এবার আর এগিয়ে যেতে পারেনি গ্যারেথ সাউথগেটের দল। ডাচ ডিফেন্ডারের অসাধারণ নৈপুণ্যে নিশ্চিত গোল বঞ্চিত হয় ইংলিশরা। গোল লাইন প্রযুক্তিতে দেখা যায় বল একদম লাইনের মাঝ বরাবর ছিল।

এদিকে প্রথমার্ধের সময় যত কমতে থাকে দুই দলেরই আক্রমণ আরও বাড়তে থাকে। এর মাঝেই ম্যাচের ২৯ মিনিটে গোল বঞ্চিত হয় নেদারল্যান্ডস। বল বাড়ে লেগে ফিরে যাওয়ায় গোল বঞ্চিত হয় কোম্যানের দল।

বল বাড়ে লেগে নেদারল্যান্ডস গোল বঞ্চিত হওয়ার ঠিক তিন মিনিট পর ৩২ মিনিটে ইংল্যান্ডও একইভাবে গোল বঞ্চিত হয়। এবার বল বাড়ে লেগে বাইরে দিয়ে চলে যাওয়ায় লিড নিতে পারেনি ইংল্যান্ড।

এদিকে প্রথমার্ধে বল দখলের লড়াইয়ে বেশ আধিপত্য দেখায় দেখায় ইংল্যান্ড। বলের নিয়ন্ত্রণ, পাস কিংবা গোলপোস্ট বরাবর শট সব বিভাগেই এগিয়ে ছিল গ্যারেথ সাউথগেটের দল। শেষ পর্যন্ত আর কোনো গোল না হওয়ায় ১-১ সমতায় থেকেই বিরতিতে যায় দুই দল।



প্রধান সম্পাদকঃ সৈয়দ বোরহান কবীর
ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেডের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান

বার্তা এবং বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ২/৩ , ব্লক - ডি , লালমাটিয়া , ঢাকা -১২০৭
নিবন্ধিত ঠিকানাঃ বাড়ি# ৪৩ (লেভেল-৫) , রোড#১৬ নতুন (পুরাতন ২৭) , ধানমন্ডি , ঢাকা- ১২০৯
ফোনঃ +৮৮-০২৯১২৩৬৭৭