ইনসাইড গ্রাউন্ড

অপেক্ষা বাড়লো ডাচদের, শেষ মিনিটের নাটকীয়তায় ইউরোর ফাইনালে ইংল্যান্ড


প্রকাশ: 11/07/2024


Thumbnail

জিতলেই স্বপ্নেই ফাইনাল। হারলে বিদায়। এমন সমীকরণের ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ইংল্যান্ড ও নেদারল্যান্ডস। যেখানে ম্যাচের শেষ মিনিটের নাটকীয়তায় নেদারল্যান্ডসকে ২-১ ব্যাবধানে হারিয়ে ইউরোর ফাইনালে চলে গেল ইংল্যান্ড। রেফারি যখন ম্যাচের শেষ বাঁশি বাজাবেন ঠিক সেই সময় অলি ওয়াটকিংসের গোলে ইউরোর ফাইনালে স্পেনের সঙ্গী হল ইংল্যান্ড। আর চলমান ইউরোর নক আউটে নব্বই মিনিটে প্রথম জয়টা ইংল্যান্ডকে ফাইনালে তুলে দিল।

১৯৬৬ সালের ফিফা বিশ্বকাপের শিরোপা জিতেছিল ইংল্যান্ড এরপর আর কোনো বড় শিরোপা জিততে পারেনি। চলমান ইউরোয়ও তারা এবার নিজেদের সামর্থ্য দিয়ে খেলতে পারছিল। সেই দলটাই চলমান ইউরোর ফাইনালে চলে গেল।

অন্যদিকে ১৯৮৮ সালে ইউরো ট্রফির পর ৩৬ বছর শিরোপা খরায় নেদারল্যান্ডস তাদের অপেক্ষা আরও দীর্ঘায়িত করে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিল।

টানা দ্বিতীয়বারের ইউরোর সেমিফাইনালে খেলছে ইংলিশরা কিন্তু পার্ফমেন্স দিয়ে দর্শকদের মন জয় করে নিতে পারেনি। এদিকে কোনোরকমে গ্রুপ পর্ব পেরোনো নেদারল্যান্ডস নকআউট পর্বে যেন একেবারেই বদলে যাওয়া এক দল।

তবে আজ যে সেমিফাইনাল, ফাইনালে স্পেনের প্রতিপক্ষ হওয়ার দৌড়ে দুই দলই যে নিজদের সবটা উজাড় করেই দিল। এমন ম্যাচে এদিন শুরু থেকেই দুই দলের লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যায়। যেখানে শুরু থেকেই দুইদল আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে মনযোগী থাকে।

এরপর ম্যাচের শুরুর ছয় মিনিট পর্যন্ত দুই দল বলের আধিপত্য ও মাঝমাঠ নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করে। এরপরই ম্যাচের সাত মিনিটে গোলের দেখা পায় নেদারল্যান্ডস। ডি বিক্সের বাইরে থেকে দূরপাল্লার শটে ডাচদেরকে লিড এনে দেন জাভি সিমন্স।  

এরপর পিছিয়ে পড়া ইংল্যান্ড গোল পরিশোধে পাল্টা আক্রমণে মরিয়া হয়ে ওঠে, এর মাঝে ম্যাচের ১৬ তম মিনিটে ইংল্যান্ডের স্ট্রাইকার হ্যারি কেইন বিপক্ষ দলের গোলপোস্টে কিক নেয়ার সময় তাকে ফাউল করে বসে ডাচ ডিফেন্ডার। ফলে পেনাল্টি পেয়ে যায় ইংলিশরা। এরপর পেনাল্টি থেকে ১৮ মিনিটে ইংল্যান্ডকে সমতায় ফেরায় হ্যারি কেইন।

গোল পরিশোধের তিন মিনিট পর ম্যাচের ২১ মিনিটে আবারও দারুণ একটি সুযোগ পায় ইংলিশরা। কিন্তু এবার আর এগিয়ে যেতে পারেনি গ্যারেথ সাউথগেটের দল। ডাচ ডিফেন্ডারের অসাধারণ নৈপুণ্যে নিশ্চিত গোল বঞ্চিত হয় ইংলিশরা। গোল লাইন প্রযুক্তিতে দেখা যায় বল একদম লাইনের মাঝ বরাবর ছিল।

এদিকে প্রথমার্ধের সময় যত কমতে থাকে দুই দলেরই আক্রমণ আরও বাড়তে থাকে। এর মাঝেই ম্যাচের ২৯ মিনিটে গোল বঞ্চিত হয় নেদারল্যান্ডস। বল বাড়ে লেগে ফিরে যাওয়ায় গোল বঞ্চিত হয় কোম্যানের দল।

বল বাড়ে লেগে নেদারল্যান্ডস গোল বঞ্চিত হওয়ার ঠিক তিন মিনিট পর ৩২ মিনিটে ইংল্যান্ডও একইভাবে গোল বঞ্চিত হয়। এবার বল বাড়ে লেগে বাইরে দিয়ে চলে যাওয়ায় লিড নিতে পারেনি ইংল্যান্ড।

এদিকে প্রথমার্ধে বল দখলের লড়াইয়ে বেশ আধিপত্য দেখায় দেখায় ইংল্যান্ড। বলের নিয়ন্ত্রণ, পাস কিংবা গোলপোস্ট বরাবর শট সব বিভাগেই এগিয়ে ছিল গ্যারেথ সাউথগেটের দল।

শেষ পর্যন্ত আর কোনো গোল না হওয়ায় ১-১ সমতায় থেকেই বিরতিতে যায় দুই দল।

এরপর দ্বিতীয়ার্ধে সমতায় থেকে খেলা শুরু করে দুই দল। যেখানে অনেকটা ধীরগতিতেই শুরু করে ইংল্যান্ড ও নেদারল্যান্ডস। দ্বিতীয়ার্ধের ১৫ মিনিট পেরিয়ে গেলেও ম্যাচ ঠিক অতটা জমিয়ে তুলতে পারেনি কোন দলই। এই সময়ে আক্রমণ কিংবা পাল্টা আক্রমণ দেখা যায়নি ম্যাচে।

এরপর ম্যাচের ৬৪ মিনিটে ডি বক্সের খানিকটা দূরে ফ্রি কিক পায় নেদারল্যান্ডস। সেই ফ্রি কিক থেকে দারুণ একটা গোলের সুযোগ তৈরি করেছিল কোম্যানের দল। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় ইংলিশ গোলকিপার। এ যাত্রায় আর লিড নেওয়া হয়নি ডাচদের।

এদিকে ম্যাচের বয়স যত বাড়তে থাকে দুই দল আক্রমণ আরও বাড়াতে থাকে। কিন্তু জোরালো আক্রমণ করতে না পারায় বারবার ব্যার্থ হতে থাকে দুইদল।

এরপর ম্যাচের ৭৬ মিনিটে আবারো নেদারল্যান্ডসকে লিড বঞ্চিত করে ইংলিশ গোলকিপার। এর তিন মিনিট পর ম্যাচের ৮৯ মিনিটে নেদারল্যান্ডসের জালে বল জড়ায় ইংল্যান্ড। কিন্তু অফসাইডের কারণে এগিয়ে যাওয়া হয়নি ইংলিশদের।

এরইমাঝে ম্যাচের ৮০ মিনিটে ইংলিশ অধিনায়ক হ্যারি কেইনকে উঠিয়ে নেন দলটির কোচ গ্যারেথ সাউথগেট।

এদিকে ম্যাচের বয়স যত বাড়তে থাকে দুই দলই প্রতিপক্ষের রক্ষণ ভাঙ্গার জন্য মরিয়া হয়ে যায়। কিন্তু কাজের কাজ করতে পারছিল না ইংল্যান্ড কিংবা নেদারল্যান্ডস। ছোট ছোট কিছু আক্রমণ করলেও সফলতা মিলছিল না কারোরই।

ম্যাচে যখন নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ার পথে অর্থাৎ অতিরিক্ত সময় যখন চোখ রাঙানি দিচ্ছে সেই সময় দারুণ একটি সুযোগ হাতছাড়া করে ইংলিশরা। ফলে আর এগিয়ে যাওয়া হয়নি।

কিন্তু এরপরে এলো কাঙ্খিত মুহূর্তটা, ম্যাচের শেষ বাঁশি বাজার এক মিনিট আগে কাঙ্খিত গোলের দেখা পেল ইংলিশরা।

শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলের জয় নিয়ে ইউরোপ ফাইনালে চলে গেল ইংল্যান্ড। আর হেরে ৩৬ বছরের অপক্ষা আরও বাড়িয়ে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিল নেদারল্যান্ডস।



প্রধান সম্পাদকঃ সৈয়দ বোরহান কবীর
ক্রিয়েটিভ মিডিয়া লিমিটেডের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান

বার্তা এবং বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ২/৩ , ব্লক - ডি , লালমাটিয়া , ঢাকা -১২০৭
নিবন্ধিত ঠিকানাঃ বাড়ি# ৪৩ (লেভেল-৫) , রোড#১৬ নতুন (পুরাতন ২৭) , ধানমন্ডি , ঢাকা- ১২০৯
ফোনঃ +৮৮-০২৯১২৩৬৭৭