সোশ্যাল থট

জিয়ার আমলে ২৬টি অভ্যুত্থান ঘটেছিল: জয়

প্রকাশ: ১১:০৯ এএম, ২২ ডিসেম্বর, ২০২১


Thumbnail

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, জিয়াউর রহমানের আমলে (১৯৭৫-৮১) দেশে ২৬টির মতো সামরিক অভ্যুত্থান ঘটেছিল। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় ঘটনাটি ঘটেছিল ১৯৭৭ সালের ২ অক্টোবর। এই অভ্যুত্থানটি সম্পর্কে সবচেয়ে বেশি তথ্য জানা যায়। বাকিগুলো ধোঁয়াশার আড়ালে।

গতকাল মঙ্গলবার (২১ ডিসেম্বর) রাতে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে দেওয়া এক স্ট্যাটাসে তিনি এসব কথা বলেন।

সজিব ওয়াজেদ জয়ের দেওয়া সেই ফেসবুক পোস্টটি নিচে হুবহু তুলে ধরা হলো

জিয়াউর রহমানের আমলে (১৯৭৫-৮১) দেশে ২৬টির মতো সামরিক অভ্যুত্থান ঘটেছিল বলে বিভিন্ন ভাষ্যে জানা যায়। কেউ কেউ বলেন সংখ্যাটি ২১।

এর মধ্যে সবচেয়ে বড় ঘটনাটি ঘটেছিল ১৯৭৭ সালের ২ অক্টোবর। এই অভ্যুত্থানটি সম্পর্কে সবচেয়ে বেশি তথ্য জানা যায়। বাকিগুলো ধোঁয়াশার আড়ালে।

১৯৭৭ সালের অক্টোবরের অভ্যুত্থানে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছিলেন শতাধিক সেনা অফিসার। অনেকে নিহত হয়েছিলেন অভ্যুত্থান দমাতে গিয়ে। আবার বিচারের নামে মেরে ফেলা হয় কয়েক শ সেনাকে। সব মিলিয়ে মোট সংখ্যাটি আড়াই হাজারের মতো হতে পারে।

তাদের মধ্যে ১ হাজার ৩০০ জনের বেশি সেনাকে ফাঁসি ও ফায়ারিং স্কোয়াডের মাধ্যমে হত্যা করা হয়। বাকিদের মৃত্যুর কোনো দালিলিক প্রমাণ নেই। সেই সময় থেকে আজও তারা পরিবারের কাছে নিখোঁজ।

জিয়াউর রহমানের আমলে সামরিক বাহিনীতে অভ্যুত্থানচেষ্টার ঘটনা ও মৃতের সংখ্যা মেলানো খুবই কঠিন। এ নিয়ে খুব বেশি গবেষণা হয়নি।

প্রায় ৪৫ বছরের মাথায় এসে গত ১৬ সেপ্টেম্বর জাতীয় সংসদের চতুর্দশ অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জিয়ার আমলে নিহতদের তালিকা করার নির্দেশ দেন।

তবে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, এ রকম একটি পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি করা কতটা কঠিন? এটি আদৌ কি সম্ভব?

সেই সময়ের বেশির ভাগ প্রত্যক্ষদর্শী জীবিত নেই। আবার অনেক দালিলিক প্রমাণ নষ্ট করারও অভিযোগ আছে। এ বিষয়ে গবেষণা প্রায় হয়নি বললেই চলে।

পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে নথি

এ বিষয়ে দীর্ঘ অনুসন্ধান করেছেন সাংবাদিক ও গবেষক জায়েদুল আহসান পিন্টু। তিনি বলেন, এটা খুব কঠিন কাজ। তবে অসম্ভব নয়। হয়তো এখনও ব্যক্তিগতভাবে কিছু দালিলিক প্রমাণ পাওয়া যাবে। কিছু ঘটনার সাক্ষী ও স্বজন এখনও বেঁচে আছেন। দ্রুত কাজ শুরু করলে হয়তো এখনও সত্যের খুব কাছাকাছি যাওয়া সম্ভব। তবে দেরি করলে বা আরও ১০ বছর পর করলে কিছুই মিলবে না।

জায়েদুল আহসান বলেন, কাজ করতে গিয়ে দেখেছি, ওই ৫ বছরে কমপক্ষে ১৯টি অভ্যুত্থানের ঘটনা ঘটেছিল। তবে নিহতের সংখ্যা কারও কাছে এককভাবে নাই। হয়তো বিচ্ছিন্নভাবে আছে।

জায়েদুল আহসান বলেন, যত দ্রুত সম্ভব একটি তথ্যানুসন্ধানী কমিশন গঠন করা দরকার। যে কমিশন ওই সময়কালের হত্যা, হত্যাকাণ্ড, নির্বিচার হত্যা, বিনা বিচারে হত্যা এবং বিচারের নামে প্রহসনের ট্রাইব্যুনালে হত্যা বা ফাঁসি– এসব কিছুর তথ্য সংগ্রহ করবে। তথ্য সংগ্রহের উপায় হলো দলিল-দস্তাবেজ বা মৌখিক সাক্ষ্য গ্রহণ।

তিনি বলেন, দলিল-দস্তাবেজ দুই সামরিক সরকারের আমলেই (জিয়া ও এরশাদ) নষ্ট করে ফেলা হয়েছে বা পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। তবে এখনও ব্যক্তিগত পর্যায়ে কারও কারও কাছে থাকতে পারে। সেগুলো আহ্বান করা ও সেই সময়ের মানুষের সাক্ষ্য গ্রহণ করা যেতে পারে।

তিনি বলেন, এই তথ্যানুন্ধানী কমিটিকে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন করতে হবে, যাতে তথ্য চেয়ে তারা যে কাউকে তলব করতে বা সমন জারি করতে পারে। তিনি যদি প্রধানমন্ত্রী বা সেনাপ্রধানও হন, তবু কমিশনে এসে তথ্য দিতে বাধ্য থাকেন।

জায়েদুল আহসানের মতে, এই কমিশন দুভাবে গঠিত হতে পারে। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের একজন বিচারপতি বা সাবেক প্রধান বিচারপতি হতে পারেন এটির প্রধান। তার সঙ্গে সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা, আইনজীবী, সাংবাদিক ও গবেষক থাকতে পারেন।

আবার সংসদীয় কমিটিও হতে পারে। সেটা সংসদ ঠিক করবে। সেখানে সংসদ সদস্য, মন্ত্রী থাকতে পারেন। সেটা সর্বদলীয় হতে পারে। আবার দুটি কমিটি একসঙ্গেও হতে পারে। তারা আলাদাভাবে কাজ করে একসঙ্গে বসতে পারে।

তবে লেখক ও গবেষক মহিউদ্দিন আহমদ মনে করেন, সরকার চাইলে এ রকম একটি পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি করা কঠিন হবে না।

তিনি বলেন, সরকার তালিকা করতে চাইলে এটা করা কোনো ঘটনাই না। এটা খুবই সহজ। কারণ এর প্রতিটি ঘটনারই রেকর্ড আছে। সরকার চাইলে সব তথ্যই সরকার পাবে। কারণ ওই সময়ের অনেকেই তো এখনও বেঁচে আছেন। আপনার-আমার কাছে হয়তো কঠিন। আমরা অ্যাক্সেস পাব না। যাদের ফাঁসি দিয়েছে, তাদের রেকর্ড তো জেলখানাতেই আছে।

লেখক ও সাংবাদিক আনোয়ার কবির বলেন, জিয়ার আমলে সশস্ত্র বাহিনীতে চলা হত্যা, গণহত্যা, গণফাঁসি নিয়ে তথ্যানুসন্ধানী কমিশন গঠনের জন্য অনেক দিন ধরেই কথা হচ্ছে। ৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় যাওয়ার পর প্রথম এই কমিশন গঠনের দাবি ওঠে জাতীয় সংসদে। এরপর নানা সময়ে আমার বই ধরে সংসদে বিভিন্ন সংসদ সদস্য দাবি তুলেছেন। কিন্তু কমিশন গঠন হয় না, তথ্যের সন্ধানও হয় না। প্রাণ হারানো সেনার তালিকাও হয় না।

জিয়া   জয়   অভ্যুত্থান  


মন্তব্য করুন


সোশ্যাল থট

সরকারের বদনাম করায় যাত্রীর হাত-পা কেটে ফেলার হুমকি ছাত্রলীগ নেত্রীর, ভিডিও ভাইরাল

প্রকাশ: ০২:২০ পিএম, ২৪ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

সরকারের বদনাম করায় বাসের যাত্রীর হাত-পা কেটে ফেলার হুমকি দিয়েছেন ফাতেমাতুজ জোহরা রিপা নামে এক ছাত্রলীগ নেত্রী। তিনি বাসের এক যাত্রীর বিরুদ্ধে সরকারের বদনাম করার অভিযোগ আনেন। এরপর চিৎকার-চেঁচামেচি করে তার হাত-পা কেটে ফেলার ও ভেঙে ফেলার হুমকি দেন। রিপা বাসে সমালোচনা করার যাত্রীদের বিএনপি জামায়াতের লোক বলেও আখ্যা দেন। ভিডিওটি এরইমধ্যে ভাইরাল হয়ে গেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

সরকারের বদনাম করার অভিযোগ এনে প্রথমে রিপা বাসের এক যাত্রীকে তার ‘বাড়ি কই’ জিজ্ঞেস করেন। এসময় যাত্রীরা রিপার পরিচয় জানতে চাইলে তিনি চিৎকার করে বলেন, ‘আমি কে, এটা বলতে হবে কেন?’

রিপা বলেন, ‘কত বড় সাহস হলে সরকারের বদনাম করে। সবগুলাকে একেবারে গ্রেফতার করাবো।’ তিনি যাত্রীদের ‘তুই’ সম্বোধন করে বলেন, ‘কত বড় সাহস বাসে বসে বসে সরকারের বদনাম করে!’

এসময় প্রতিবাদ করায় এক যাত্রীকে তিনি চিৎকার করে বলেন, ‘তুই চুপ, তোরে একেবারে শেষ করে ফেলবো। সরকারের বদনাম কেন? সরকারের বদনাম করার সাহস হয় কী করে?’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম   ছাত্রলীগ  


মন্তব্য করুন


সোশ্যাল থট

কোথায় আমার ইউএসএ’র সন্তান?

প্রকাশ: ০৯:৫০ এএম, ২৪ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

বিষয়টা হালকাভাবেই নিয়েছিলাম। গতকাল রাতে আমার কাছে একজন একটি আইডি লিংকের পোস্ট শেয়ার করেন। যে লোকের আইডি লিংক পেলাম সেখানে দেখলাম ভদ্রলোকের সকল পোস্টই জিঘাংসামূলক! যাই হোক তার পোস্ট আমার মোটেও কনসার্ন নাহ! আমার কনসার্ন হলো তিনি আমাকে নিয়ে একটি পোস্ট করেছেন যেখানে তিনি বলেছেন আমি অগাধ টাকা, পয়সাসহ আমার স্ত্রীকে গর্ভাবস্থায় ইউএসএ পাঠিয়েছি এবং সেখানে আমার ছেলে জন্মসূত্রে ইউএসএ'র সিটিজেনশিপ পেয়েছে। 

সেখানে এটাও বলা হয়েছে যে, আমার স্ত্রী সেখানে গচ্ছিত আমাদের অঢেল টাকার কোনো সোর্স দেখাতে পারেননি বলে আমার সেই টাকা, পয়সা সেখানে জব্দ করা হয়েছে! এবং আমার স্ত্রী, সন্তানকে ইউএসএ থেকে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে! 

ভদ্রলোক এটাও বলেছেন আমি ডিবিতে ও সিটিটিসিতে দায়িত্ব পালনকালীন অঢেল অর্থের মালিক হয়েছি এবং আমি আমার শ্বশুর ও চাচা শ্বশুরের টাকা নিয়ে বিদেশে গচ্ছিত রেখেছি! একইসাথে অনেক খুনও করেছি!
যদিও একটি বিষয়ের বিপরীতেও তিনি কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেননি এবং তার মত মস্তিষ্ক বিবর্জিতগণ সেই পোস্ট শেয়ারও করে যাচ্ছেন সমানতালে! 

এবার আসেন আপনাকে উন্মুক্ত কিছু প্রশ্ন করি

আমার প্রশ্নসমূহঃ 

১) আমার যে ছেলে ইউএসএ তে জন্ম নিলো তার নাম কি? কবে, কোন হাসপাতালে জন্মগ্রহণ করেছে আমার সেই অজানা সন্তান? প্রমাণ থাকলে দেখান!

(উত্তরঃ আমার ছেলে করোনার প্রথম ওয়েভে পান্থপথের স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসক কাশফিয়া নাজনিনের তত্ত্বাবধানে জন্মগ্রহণ করেছে, অসুস্থ মানসিকতার ব্যক্তির সুবিধার্থে উত্তর জানিয়ে দিলাম এবং আমাকে বিয়ে করার পর আমার স্ত্রী একবারও ইউএসএ তে যাননি) 

২) আমার অঢেল যে অর্থ জমা করা হয়েছে ইউএসএ তে!  সেটা কোথায় জমা করা হয়েছে? ইউএসএ এর কোন স্টেটে আমার এতকিছু, আমাকে বলেন আমি সত্যি সেখানে যেতে চাই

(উত্তরঃ আমি জীবনেও ইউএসএ তে যাইনি এবং সেখানে সেটেলড হওয়ার বিন্দু পরিমাণ ইচ্ছে পোষণ করি না, তা চাইলে আমার মা যখন অস্ট্রেলিয়ায় থাকতেন আমি সেখানেই সেটেলড হতে পারতাম যেটা আমি করিনি! কারণ আমার দেশের বাইরে থাকার অভিসন্ধি কখনোই ছিল না) 

৩) আমার স্ত্রী ও সন্তান ইউএসএ থেকে কবে দেশে ফিরে আসলেন? আমার স্ত্রী ইউএসএ গিয়েছে আমার সাথে বিয়ে হওয়ার ৩ বছর পূর্বে! বিয়ে হওয়ার আগেই তাহলে আমার ইউএসএ তে সন্তান কোন আকাশ থেকে পড়লো হে ছল-চাতুরির আশ্রয় নেয়া শ্রেণিগোষ্ঠী?

(আমার দুই সন্তান একজন এভারকেয়ার তৎকালীন এ্যাপোলো হাসপাতালে এবং আরেকজন স্কয়ার হাসপাতালে জন্মগ্রহণ করেছে আলহামদুলিল্লাহ! ইউএসএ'র সন্তানের ছবি প্রকাশ করা হোক) 

৪) কোন স্টেটে আমার এতকিছু তা দলিল ও প্রমাণ সহকারে প্রকাশ করুন যদি নিজের পরিচয় সত্যিই জানা থাকে! আর যদি না পারেন তাহলে ক্ষমা প্রার্থনা করুন! নাহলে যারা এই সর্বৈব মিথ্যা পোস্ট শেয়ার ও পোস্ট করেছেন, প্রত্যেকের ডিটেইলস আমি রেখেছি এবং প্রত্যেককে আইনের আওতায় আনার জন্য যা যা করা লাগে তা আমি করবো। 

শেষ কথা বলি, পুলিশ বিভাগে চাকরিতে ঢুকবার আগে বা পরে কারো কাছ থেকে ৪ আনা পয়সা নিয়েছি, এটা কেউ প্রমাণ করতে পারলে তাৎক্ষণিক চাকরি ছেড়ে দেবো।

আমার সততার সাথে খেলতে এসেন না! আমি হঠাৎ করে উড়ে এসে জুড়ে বসা কোনো পরিবারের সন্তান নই! আমার দাদা ও নানার উভয় দিক থেকেই বিত্তশালী পরিবারে আমার জন্ম। স্বচ্ছলতা দেখেই বড় হয়েছি। মহান রাব্বুল আলামিনের অশেষ রহমতে কখনো নেইনি শুধু দেয়ার চেষ্টা করেছি। 

মাথায় রাখেন, ইফতেখারকে শতকে, সহস্রে, লাখে তথা কোটিতে কেনা যায় না। ইফতেখারকে শুধু ভালবাসা দিয়ে কেনা যায়। চাকরি করতে চাই ইনশাআল্লাহ! আর এখুনি বলে দেই আমার চাকরি যতদিন চলবে ততদিন আমি এমনই থাকবো ইনশাআল্লাহ! এসব সস্তা খেলা খেলার জন্য আপনাদের মত গন্ধযুক্ত, দুর্নীতিপরায়ণ কাউকে বেছে নিন, আমাকে নয়!

আমার সহজ ও সরল আচরণকে দুর্বলতা ভেবে এই নোংরামি যারা করছেন তাদেরকে ওপেন চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলছি, প্রমাণসহ এসে কথা বলুন। নচেৎ যে গন্ধযুক্ত গর্ত থেকে উদয় হয়েছেন সেখানে ফিরে যান।

(পোস্টটি শেয়ার করে গন্ধযুক্ত, অনৈতিক ব্যক্তিদের দেখার সুযোগ করে দিন)


(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

লেখক : এডিসি, ক্যান্টনমেন্ট ও খিলক্ষেত, ডিএমপি।

ইফতেখারুল ইসলাম   পুলিশ   ইউএসই   অস্ট্রেলিয়া  


মন্তব্য করুন


সোশ্যাল থট

‘একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ কী’

প্রকাশ: ০১:০৩ পিএম, ২০ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

ঘুরে ফিরে সেই প্রশ্নটাতেই ফিরে আসতে হচ্ছে – ‘একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ কী’। আমরা জানি কী হওয়া উচিত। উত্তরটা নর্মেটিভ। ২০১৯ সালে বাংলাদেশের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী আমাদের সবাইকে এই প্রশ্নটা করেছিলেন। এই প্রশ্নের উত্তর কোন বিশ্ববিদ্যালয় কীভাবে দেয় তাতো আমরা জানি; উপাচার্যদের কথাবার্তায় বোঝা যায়, প্রশাসনের কর্মকাণ্ডে বোঝা যায়, এক শ্রেণির শিক্ষকের আচরণে বোঝা যায়। প্রশ্ন হচ্ছে বাংলাদেশে যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট তাঁরা কী ভাবেন, যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিয়োগ দেন তাঁরা কী ভাবেন। সমাজে এই আলোচনার পরিস্থিতি আছে কীনা, বিরাজমান শাসনব্যবস্থা আপনাকে এই প্রশ্ন তুলতে দিচ্ছে কিনা সেটা ভাবুন।


মন্তব্য করুন


সোশ্যাল থট

অবশেষে তসলিমা নাসরিনের ফেসবুক থেকে দূর হয়েছে ‘রিমেম্বারিং’

প্রকাশ: ০৯:১৩ এএম, ১৯ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

তসলিমা নাসরিনের ফেসবুক আইডিতে আর "রিমেম্বারিং" শব্দটি দেখাচ্ছে না। এরপরই নতুন একটি পোস্ট দিয়েছেন  বাংলাদেশি এই লেখিকা। সেই পোস্টে তিনি লিখেছেন, 'পুনরুত্থান'। 

এর আগে, গতকাল মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টার দিকে নির্বাসিত এই লেখিকার ভেরিফায়েড আইডিতে ঢুকে দেখা যায়, ফেসবুক কর্তৃপক্ষ তাকে মৃত হিসেবে দেখাচ্ছে। 

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেওয়া লেখক তসলিমা নাসরিনের এক পোস্টের ভুল ব্যাখ্যা করে ফেসবুক তাকে 'মৃত' বলে মনে করে। আর তাই তার ফেসবুক প্রোফাইলে নামের আগে 'রিমেম্বারিং' দেখায়। পাশাপাশি ফেসবুকের তরফ থেকে লেখা হয়, 'আমরা আশা করি যারা তসলিমাকে ভালোবাসেন, যারা তসলিমাকে স্মরণ করতে চান তারা তার প্রোফাইলে গিয়ে সান্ত্বনা পাবেন।' মূলত তসলিমা নাসরিন কীভাবে তার মৃত্যুকে পর্যবেক্ষণ করতে চান, সে বিষয়ে একটি পোস্ট প্রকাশের পর এদিন তার অ্যাকাউন্টে এই পরিবর্তন দেখা যায়। 

টাইমলাইনে সেই পোস্টে তসলিমা লিখেছিলেন, 'আমি চাই আমার মৃত্যুর খবর প্রচার হোক চারদিকে। প্রচার হোক যে আমি আমার মরণোত্তর দেহ দান করেছি হাসপাতালে, বিজ্ঞান গবেষণার কাজে। কিছু অঙ্গ প্রতিস্থাপনে কারও জীবন বাঁচুক। কারও চোখ আলো পাক। প্রচার হোক, কিছু  মানুষও যেন  প্রেরণা পায় মরণোত্তর দেহ দানে। অনেকে কবর হোক চান, পুড়ে যাক চান, কেউ কেউ চান তাঁদের শরীর পোড়া ছাই প্রিয় কোনও জায়গায় যেন ছড়িয়ে দেওয়া হয়। কেউ কেউ আশা করেন তাঁদের দেহ মমি করে রাখা হোক। কেউ আবার বরফে ডুবিয়ে রাখতে চান, যদি ভবিষ্যতে প্রাণ দেওয়ার পদ্ধতি আবিষ্কার হয়! অসুখ বিসুখে আমি আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের ওপর নির্ভর করি এবং জীবনের শেষদিন পর্যন্ত  করবো। কোনও প্রাচীন চিকিৎসা পদ্ধতিতে আমার বিন্দুমাত্র বিশ্বাস নেই, ঠিক যেমন বিশ্বাস নেই কোনও কুসংস্কারে। জীবনের একটি মুহূর্তেরও মূল্য অনেক। তাই কোনও মুহূর্তই  হেলায় হারাতে চাই না। মরার পর আমরা কিন্তু কোথাও যাই না। পরকাল বলে কিছু নেই। পূনর্জন্ম বলে কিছু নেই। মৃত্যুতেই জীবনের সমাপ্তি। আমার জীবন আমি সারাজীবন অর্থপূর্ণ করতে চেয়েছি। মৃত্যুটাও চাই অর্থপূর্ণ হোক।'

জীবিত থাকার পরও মৃত দেখানোয় ফেসবুকের প্রতি বেশ ক্ষোভ প্রকাশ করেন তসলিমা নাসরিন। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে একাধিক টুইট করেন তিনি। একই সঙ্গে সেখানে ফেসবুকের প্রতি নিজের আইডি ফেরত দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি। এক টুইটে ফেসবুককে মেনশন করে তিনি লেখেন, আমি খুবই প্রাণবন্ত আছি। কিন্তু তোমরা আমার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট স্মরণীয় করে দিয়েছ। কী দুঃসংবাদ! এটা কীভাবে করতে পারলে তোমরা? দয়া করে আমার অ্যাকাউন্ট ফিরিয়ে দাও।

তসলিমা নাসরিন  


মন্তব্য করুন


সোশ্যাল থট

আমি জীবিত, বললেন তসলিমা নাসরিন

প্রকাশ: ০৯:৩৫ পিএম, ১৮ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে তসলিমা নাসরিনকে মৃত দেখানোয় ফেসবুক কর্তৃপক্ষের প্রতি তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভারতে নির্বাসিত এ বাংলাদেশি লেখিকা। আরেক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে নিজেকে জীবিত উল্লেখ করে একাধিক টুইটে আইডি ফেরত দিতে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের প্রতি তিনি আহ্বান জানিয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) বিকেল ৫টার দিকে নির্বাসিত এই লেখিকার ভেরিফায়েড আইডিতে ঢুকে দেখা যায়, ফেসবুক কর্তৃপক্ষ তাকে মৃত দেখাচ্ছে।
 
জীবিত থাকার পরও মৃত দেখানো ফেসবুকের এ আচরণে বেশ ক্ষুব্ধ হয়েছেন তসলিমা নাসরিন। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে তিনি একাধিক টুইট করেছেন। সেখানে ফেসবুকের প্রতি নিজের আইডি ফেরত দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

এক টুইটে ফেসবুককে মেনশন করে তিনি লিখেছেন, ‘আমি খুবই প্রাণবন্ত আছি। কিন্তু তোমরা আমার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট স্মরণীয় করে দিয়েছ। কী দুঃসংবাদ! এটা কীভাবে করতে পারলে তোমরা? দয়া করে আমার অ্যাকাউন্ট ফিরিয়ে দাও।’

আরেক টুইটে তিনি বলেছেন, ফেসবুক আমাকে মেরে ফেলেছে। আমি জীবিত আছি। এমনকি আমি অসুস্থ কিংবা শয্যাশায়ী কিংবা হাসপাতালেও ভর্তি নই, কিন্তু ফেসবুক আমার অ্যাকাউন্ট স্মরণীয় করে রেখেছে।

এর আগে, ‘রিমেম্বারিং তসলিমা নাসরিন’ ট্যাগ যুক্ত করে বাংলাদেশি এই লেখিকার প্রোফাইলে ফেসবুক লিখেছে, ‘আমরা আশা করি যারা তসলিমা নাসরিনকে ভালোবাসেন, তারা তাকে স্মরণ ও সম্মানিত করার জন্য তার প্রোফাইল পরিদর্শন করে সান্ত্বনা খুঁজে পাবেন।’

তসলিমা নাসরিন   ফেসবুক  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন