ঢাকা, রোববার, ১৩ জুন ২০২১, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

নির্বাচনী ইশতেহারে ক্রীড়াঙ্গন নিয়ে যা আছে

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ২১ ডিসেম্বর ২০১৮ শুক্রবার, ০৪:০০ পিএম
নির্বাচনী ইশতেহারে ক্রীড়াঙ্গন নিয়ে যা আছে

আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে ইতিমধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোর কার্যক্রম বেড়ে গেছে। শুরু হয়েছে রাজকনৈতিক প্রচারণা, গণসংযোগ।

কিছুদিন আগেই নির্বাচনী ইশতেহারও ঘোষণা করেছে তারা। এবারের নির্বাচন সকল ক্ষেত্রেই অনেক দিক থেকেই গুরুত্বপূর্ণ। দেশের ক্রীড়াঙ্গনের তারকাদের অংশগ্রহণ একে একদিকে যেমন ক্রীড়াক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ করেছে তেমনই অনেক চমকও সৃষ্টি করেছে সাধারণ মানুষের মনে।

খেলাধুলা বিশেষত ক্রিকেট-ফুটবল সব সময় বাংলাদেশে একটা ভিন্ন আবহ তৈরি করে রাখে। আর তাই বোধ হয় ‘ক্রিকেট-পাগল জাতি’র মতো বিভিন্ন নামে এদেশের মানুষকে অভিহিত করা হয়। এবং ফি-দিন খেলার প্রতি এই টান আরও বেড়েই চলেছে। সাধারণ মানুষের মাঝে এই ক্রীড়া প্রেম রাজনৈতিক মহলেও সাড়া ফেলেছে। আর তাই ক্রীড়া নিয়ে তাদের বিশেষ চিন্তা থাকে। বাজেটের একটা বড় অংশ ব্যয় হয় ‘ইয়ুথ এন্ড স্পোর্টস ডেভেলপমেন্টে’। 

তবে নিজেদের নির্বাচনী ইশতেহারে রাজনৈতিক দলগুলো বিশেষত শীর্ষস্থানীয় রাজনৈতিক দুই দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) তাদের ইশতেহারে ক্রীড়াঙ্গনবিষয়ক খুব অল্প কথাই বলেছে।  

আওয়ামী লীগ ক্রীড়াঙ্গন বিশষত ক্রিকেট নিয়ে নির্দিষ্ট কিছু লক্ষ্য অর্জনের কথা বললেও বিএনপির ইশতেহারে এই ক্ষেত্রে করা প্রতিশ্রুতি রয়ে গেছে অস্পষ্ট।

১৮ ডিসেম্বর জাতীয় নির্বাচন উপলক্ষে নিজ দলের ইশতেহার ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা। বিগত দুই বছরে ক্রীড়াঙ্গনের উন্নতির দিকে দৃষ্টিপাত করে নতুন করে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। আওয়ামী লীগের ইশতেহারে বলা হয়েছেঃ

১. ক্রিকেটে বাংলাদেশের গৌরব জাগানো অবস্থান আরো সুদৃঢ় করার সাথে সাথে ফুটবল, হকিসহ অন্যান্য খেলাগুলোর আন্তর্জাতিক মান তৈরিতে প্রয়োজনীয় সবকিছু করা হবে,

২. ক্রীড়া ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন, অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি, প্রশিক্ষণ সুবিধা সম্প্রসারণে পরিকল্পিত উদ্যোগ নেওয়া হবে এবং

৩. প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে সর্বোচ্চ স্তর পর্যন্ত প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিশু-কিশোর ও তরুণ-তরুণীদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য বিকাশে খেলাধুলা ও শরীর চর্চাকে শিক্ষা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করা হবে।

একই দিনে নিজেদের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করে বিএনপি। বিএনপির পক্ষে নির্বাচনী ইশতেহার পাঠ করেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তাদের ইশতেহারে ক্রীড়াঙ্গন নিয়ে সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলা না থাকলেও সার্বিকভাবে ক্রীড়াঙ্গনে উন্নয়নের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। বিএনপির ইশতেহারে ক্রীড়াঙ্গন নিয়ে বলা হয়ঃ  

১. আগামী ৫ বছরের মধ্যে খেলাধুলার কয়েকটি ক্ষেত্রে বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশ যাতে একটি গ্রহণযোগ্য স্থান করে নিতে পারে সে লক্ষ্যে পরিকল্পিত ও কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে এবং

২. খেলাধুলায় আন্তর্জাতিক মান অর্জনের জন্য প্রতি জেলায় একটি করে আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর ক্রীড়া একাডেমি প্রতিষ্ঠা করা হবে।

 

বাংলা ইনসাইডার/ডিএম/এমআর