ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৯, ৯ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ভুল আম্পায়ারিং, সুপার ওভারে জয়ী চিটাগং

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২ জানুয়ারি ২০১৯ শনিবার, ০৫:৫৯ পিএম
ভুল আম্পায়ারিং, সুপার ওভারে জয়ী চিটাগং

সুপার ওভারে জয় পায় চিটাগং! বিপিএলের এই মৌসুমে প্রথমবারের মতন কোন ম্যাচ সুপার ওভারে গড়ায়। 

সুপার ওভারে ব্যাট করতে নেমে ছক্কা ও চারের মারে চিটাগং ১১ রান করে এক ওভারে। জবাবে ২ উইকেট হারিয়ে দশ রান করে খুলনা। ২ রানে জয় পায় চট্টগ্রাম।

দুপুরে টসে হেরে খুলনাকে ব্যাট করতে আমন্ত্রণ জানায় মুশফিকুর রহিম। দলীয় অর্ধশতকের আগেই সাজঘরে ফিরে যান খুলনার দুই ওপেনার স্টার্লিং (১৮) ও জুনায়েদ সিদ্দিকি(২০)।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৭৭ রান যোগ করেন অধিনায়ক  মাহমুদউল্লাহ ও মালান। ৪৩ বলে ৪৫ রান করা মালানকে সাজঘরে ফিরিয়ে দেন পেসার আবু জায়েদ। তারপর কার্লোস ব্র্যাফেট (১২) ও মাহমুদউল্লাহকেও (৩৩) হারায় খুলনা। মাত্র ৬ রান করে নাজমুল হাসান শান্তকেও ফিরে যেতে হয়। মাহিদুল ও আরিফুল যথাক্রমে ৪ ও ৯ রান করে অপরাজিত ছিলেন। ভাইকিংসের হয়ে সানজামুল ইসলাম সর্বোচ্চ ২উইকেট নেন।

১৫২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ১২ রানের মাথায় শাহজাদকে হারায় চট্টগ্রাম। অপর ওপেনার ডেলপোর্ট তরুণ ইয়াসির আলির সাথে জুটি গড়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু ৫১ রানের মাথায় তাকে ফেরত পাঠায় তাইজুল। ব্যাক্তিগত ৪১ রান করে ইয়াসির আলিও সাজঘরে ফিরে যায়।  পরের ওভারেই ব্র্যাফেটের শিকার হন সিকান্দার রাজা। অধিনায়ক মুশফিক দলের হাল ধরেন মোসাদ্দেক হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে। কিন্তু শরিফুল হকের বলে মোসদ্দেক (১২) বোল্ড হন। তার পরের ওভারেই ব্র্যাফেটের ২য় শিকার হন মুশফিক (৩৪)।

শেষ ওভারের নাটক

শেষ ওভারে ১৯ রান দরকার চট্টগ্রামের। মাঠে চট্টগ্রামের পক্ষে নাঈম হাসান ও রবি ফ্রাইলিঙ্ক। মাহমুদউল্লাহ নিয়ে আসেন আরিফুল হককে। প্রথম বল ডট কিন্তু পরের বলেই ছয় মারেন নাঈম হাসান। ৩য় বলে আবারও ব্যাট তুলে মারতে গিয়ে নাজমুল সোসেইনের তালুবন্দী হন নাঈম। এরপর বুই বলে ২ ছয় হাঁকান ফ্রাইলিঙ্ক। লেগ আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে মাঠ। নো-বলকে কেন্দ্র করে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন ফ্রাইলিঙ্ক। শেষ বলে ১ রান নিতে গিয়ে রান আউট হোন। ম্যাচ টাই হয়। নিয়ম অনুযায়ী ম্যাচ সুপার ওভারে গড়ায়। 

শেষ ওভারে তিনটি ছয় ও দুইটি উইকেট আর সেই সাথে নো-বল বিতর্ক নিয়ে শেষ হয় ম্যাচ।