ঢাকা, সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ৭ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

গণতন্ত্রের চর্চা নেই ক্রীড়াঙ্গনে

রায়হানউদ্দিন রাসেল
প্রকাশিত: ১৮ মার্চ ২০১৯ সোমবার, ০৪:০০ পিএম
গণতন্ত্রের চর্চা নেই ক্রীড়াঙ্গনে

গণতান্ত্রিক সরকার দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে রাষ্ট্র। সম্প্রতি ডাকসু নির্বাচনের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশাপাশি স্কুল-কলেজ থেকে গণতন্ত্রের চর্চা করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেষ হাসিনা। শুধু তাই নয় সমাজের সর্বক্ষেত্রে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বও দিয়েছেন তিনি। কিন্তু পরিতাপের বিষয় দেশের ক্রীড়াঙ্গন গণতন্ত্র থেকে যোজন যোজন দূরে। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের অনুমোদিত ৫৩টি ফেডারেশন এবং অ্যাসোসিয়েশনের মধ্যে ৩০টিতেই নেই নির্বাচিত কমিটি। অন্য ২৩টির মধ্যে মেয়াদ শেষ হয়েছে ৫টির। নির্বাচন করার কোন লক্ষণ নেই।

জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সর্বকনিষ্ঠ সদস্য জুজুৎস অ্যাসোসিয়েশন। গত বছর ১৮ অক্টোবর অনুমোদন পায় তারা। প্রায় বছর আগে অনুমোদন পেলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে পারেনি অ্যাসোসিয়েশনটি।

তফসিল ঘোষণা করেও অজানা কারণে পিছিয়ে দেওয়া হয় হকি ফেডারেশনের নির্বাচন। নির্বাচনের জন্য তোড়জোড় শুরু করলেও তা এখন বন্ধ রয়েছে। একই অবস্থা শরীরগঠন ফেডারেশনেরও। কমিশন গঠন পর্যন্ত যেন শেষ নির্বাচনের কাজ।

৫৩ ফেডারেশনের কমিটির চিত্র:

নির্বাচিত কমিটি

নির্বাচিত মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি

অনির্বাচিত কমিটি

ফুটবল, ক্রিকেট, সাঁতার, ব্যাডমিন্টন, হ্যান্ডবল, রোলার স্কেটিং, কারাতে, জিমন্যাস্টিকস, শ্যুটিং, ভলিবল, টেবিল টেনিস, আরচারি, বাশআপ, বক্সিং, দাবা, জুডো  ও ন্যাশনাল প্যারালিম্পিক 

কুস্তি, বাস্কেটবল, শরীরগঠন, রোইং, তায়কোয়ানদো ও খো খো

অ্যাথলেটিকস, হকি ও কাবাডি, গলফ, ক্যারম, মার্শাল আর্ট, ঘুড়ি, রাগবি, ফেন্সিং, বেসবল-সফটবল, উশু, সাইক্লিং, টেনিস, ভারোত্তোলন, বধির, স্কোয়াশ,  কিক বক্সিং, আন্তর্জাতিক তায়কোয়ানদো, ব্যুত্থান, ইয়োগা, সার্ফিং, মাউন্টেনিয়ারিং, বিলিয়ার্ড অ্যান্ড স্নুকার, মহিলা ক্রীড়া সংস্থা, ব্রীজ কান্ট্রি গেমস, সেপাক টাকরো, চুকবল, থ্রোবল ও জুজুৎসু

বেশ কিছু ফেডারেশন ও অ্যাসোসিয়েশন আছে যারা নির্বাচন করতে পারবে কিনা তা বলতে পারছে না। কারণ নির্বাচন করার মতো তাদের সাধারণ পরিষদও নেই।

এই বিষয়ে খোঁজ নিতে গিয়ে জানা যায়, কিছু ফেডারেশন ও অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাচন হয়নি কোন কালেই। অনুমোদন নেওয়া পর্যন্ত শেষ তাদের কাজ। এমন নয়টি ফেডারেশন ও অ্যাসোসিয়েশন আছে যারা শুধু সরকারের অনুদানই নিয়ে থাকেন। কিন্তু কোন ধরনের নিয়ম মানেন না। এমনকি কোন ধরণের প্রতিযোগিতাও আয়োজন করেন না বলে অভিযোগ রয়েছে।

অনুমোদনের জন্য একটি কমিটি জমা দিতে হয় জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের কাছে। সেটা বলা হয় প্রতিষ্ঠাকালীন কমিটি। ২২ বছর ধরে প্রতিষ্ঠাকালীন কমিটি দিয়ে চলছে বাংলাদেশ মার্শাল আর্ট কনফেডারেশন। গত ১৩ বছরেও শেষ হয়নি  বাংলাদেশ ঘুড়ি অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাকালীন কমিটির মেয়াদ। বেসবল-সফটবল অ্যাসোসিয়েশন প্রতিষ্ঠাকালীন কমিটি দিয়ে চলছে ১০ বছর হলো। এই তালিকায় আরো আছে কিক বক্সিং, আন্তর্জাতিক তায়কোয়ানদো, ব্যুত্থান, থ্রোবল ও জুজুৎসু।

এইসব তথ্য জানার পর নিজেই অবাক হয়ে যান ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। তিনি বলেন, ‘অনির্বাচিত কমিটি দিয়ে ভালো করা একেবারে অসম্ভব। যে সব ফেডারেশনে অ্যাডহক কমিটি আছে, এই সবগুলোতেই দ্রুত নির্বাচনের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা ব্যবস্থা নিতে হবে।’

এরপরই নড়েচড়ে বসেছে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ। সংস্থাটির সচিব জানান, ‘মন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশে ফেডারেশনগুলোর নির্বাচনী প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আমরা এরই মধ্যে টেবিল টেনিস ফেডারেশনের নির্বাচন শেষ করেছি। হকি ফেডারেশনের নির্বাচনের জন্য উঠে পড়ে লেগেছি আমরা। এছাড়া শরীর গঠন ফেডারেশনের নির্বাচনের জন্য কমিশন গঠন করা হয়েছে। আশা করি পর্যায়ক্রমে দ্রুত সময়ের মধ্যে সব ফেডারেশনের নির্বাচন প্রক্রিয়া শেষ করে ফেলতে পারবো।’

বাংলা ইনসাইডার/আরইউ/এমআর