ঢাকা, রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

ইংল্যান্ডে ছাদে ঘেরা স্টেডিয়াম নেই কেন?

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১ জুন ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৪:১৬ পিএম
ইংল্যান্ডে ছাদে ঘেরা স্টেডিয়াম নেই কেন?

ইংল্যান্ডের নামের পাশে বৈচিত্রময় শব্দটা খুবই মানানসই। অনেকের কাছে পছন্দের শহরের তালিকায় ইংল্যান্ডের নাম রয়েছে। তবে এইবার ইংল্যান্ডের নামের পাশে যুক্ত হতে পারে ‘বৃষ্টিস্নাত’ দেশ। বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসরে ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে ইংল্যান্ডের এমন পরিচয় হলে খুব একটা অবাক হওয়ার মতো কিছু হবে না। কেননা প্রিয় দলের খেলা উপভোগ করতে পারেননি হাজারও ক্রিকেটপ্রেমী। তাদের না যেন কত যন্ত্রণা ভোগ করতে হয়েছে। ক্রিকেটপ্রেমীরা  নিজের অর্থ খরচ করে প্রিয় দলের খেলার ক্রিকেট কেটেছেন, সকল ব্যস্ততাকে ছাপিয়ে প্রিয় দলের খেলা দেখার জন্য স্টেডিয়াম প্রাঙ্গণে উপস্থিত হয়েছেন। কিন্তু বৃষ্টি যদি বাঁধা সৃষ্টি করে তাহলে তো কষ্ট পাওয়ারই কথা।    

ইংল্যান্ডের অনুষ্ঠিত ক্রিকেট বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসরে এখন পর্যন্ত ১৫ ম্যাচের দুইটি ম্যাচ ভেসে গেছে বৃষ্টির কবলে পড়ে। বাংলাদেশ বনাম শ্রীলঙ্কার ম্যাচেও বৃষ্টির কারণে ভেস্তে যাওয়ার সম্ভবনা প্রবল।

স্বভাবত ক্রিকেট প্রেমীদের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে। ক্রিকেট স্টেডিয়াম ছাদে ঢাকা নয় কেন? যদি পুরো স্টেডিয়ামটিই ছাদ দিয়ে ঢাকা থাকতো তাহলে বৃষ্টির কবলে পড়তে হতো না। ইংল্যান্ডে কেন ছাদযুক্ত স্টেডিয়াম নেই? এই সব প্রশ্ন ভক্তদের মনে উদয় হতেই পারে। তাহলে প্রশ্ন জাগতে পারে ক্রিকেটে কি আদৌ ছাদে ঢাকা স্টেডিয়াম আছে? আচ্ছা কেমন হতো যদি স্টেডিয়াম ছাদে ঢাকা থাকত। ছাদে ঢাকা স্টেডিয়ামে কি ম্যাচ আয়োজন করা সম্ভব?   

ক্রিকেটপ্রমীদের এমন প্রশ্নের জবাব আছে। বাস্তবে এমন স্টেডিয়াম তৈরি হয়েছে অস্ট্রেলিয়ায়। মেলবোর্নের ডকল্যান্ডে তৈরি করা হয়েছে এমন স্টেডিয়াম। যেখানে বৃষ্টি বাগড়া হয়ে দাঁড়াতে পারবে না। কারণ ছাদ দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে সম্পূর্ণ স্টেডিয়ামটিই।  

অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নের ডকল্যান্ডে অবস্থিত টেলস্ট্রা বর্তমানে স্পন্সরের জন্য স্টেডিয়ামটি মারভেল স্টেডিয়াম নামে পরিচিত। মারভেল স্টেডিয়ামে এখন পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ান ঘরোয়া ক্রিকেট লিগ বিগ ব্যাশ ক্রিকেট লিগ আয়োজিত হয়েছে। কেবল ঘরোয়া ক্রিকেটই নয়, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটও আয়োজিত হয়েছে এখানে। ২০০০ সালে নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার পর ১৬ আগস্ট অস্ট্রেলিয়া আর দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে এই স্টেডিয়ামের। আর ২০০৬ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি দক্ষিণ আফ্রিকা আর অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ওয়ানডে ম্যাচটিই এখানে আয়োজিত শেষ ওয়ানডে ম্যাচ। পরবর্তী এখানে ঘরোয়া ক্রিকেট ছাড়া আর কোনো ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজিত হয়নি।

অস্ট্রেলিয়ায় ছাদে ঘেরা স্টেডিয়াম থাকলে ইংল্যান্ডে থাকবে না কেন? ইংল্যান্ড পিছিয়ে থাকবে কেন? ইংল্যান্ডে যদি অস্ট্রেলিয়ার মতো ছাদ ঘেরা স্টেডিয়াম থাকতো তাহলে কোন ম্যাচ পরিত্যাক্ত হতো না। আর পয়েন্ট ভাগাভাগি হতো না। আর বাংলাদেশও খেলতে পারত শ্রীলঙ্কার সাথে।

ব্রিস্টলে বৃষ্টির কারণে বাংলাদেশ সময় দুপুর সাড়ে তিনটায় টাইগারদের সাথে লঙ্কানদের ম্যাচ হওয়ার কথা থাকলেও বৃষ্টির কারণে মাঠে নামতে পারেনি কোন দল। তাইতো বৃষ্টির কারণে ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

বাংলা ইনসাইডার/এসআরএস