ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৬ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

শক্তিশালী কাতারের বিপক্ষে লড়তে চায় বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯ অক্টোবর ২০১৯ বুধবার, ০৫:০৫ পিএম
শক্তিশালী কাতারের বিপক্ষে লড়তে চায় বাংলাদেশ

কাল ঘরের মাঠে ২০২২ বিশ্বকাপ আয়োজকদের আথিতেয়তা দিবে বাংলাদেশ। শক্তি এবং সামর্থ্যে যোজন যোজন পার্থক্য থাকা সেই কাতারের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে আত্মবিশ্বাসী থাকতে চাইছেন কোচ জেমি ডে এবং অধিনায়ক জামাল ভুঁইয়া।   

গত সেপ্টেম্বরে এশিয়ান গেমসেই কাতারকে ১-০ গোলে হারিয়ে চমক দেখিয়েছে বাংলাদেশ। অনূর্ধ্ব -২৩ দল ও মূল জাতীয় দলের মধ্যে পার্থক্য থাকলেও সে জয় থেকে পাওয়া যায় অনুপ্রেরণা। শেষের দিকে একমাত্র গোল করে ম্যাচের মীমাংসা করে দিয়েছিলেন অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া। প্রায় এক বছরের ব্যবধানে তাঁর কণ্ঠেও কাতারকে আবার হারানোর সাহস।

নিজেদের জয়ের অভিজ্ঞতার সঙ্গে ভারতকেও অনুপ্রেরণা মানছেন জামাল, ‘তারা এশিয়ার এক নম্বর দল। আমরা কঠিন একটি ম্যাচ খেলতে যাচ্ছি। সুযোগ পেলে কাজে লাগাতে হবে। ভারত যদি তাদের সঙ্গে ড্র করতে পারে, আমরাও তাদের সঙ্গে ড্র করতে পারি। এমনকি জিতেও যেতে পারি।’

তবে এই মুহুর্তে ফিফা র‍্যাংকিংয়ে ৬২ নম্বরে অবস্থান করছে কাতার। এর ১২৫ ধাপ পেছনে গিয়ে বাংলাদেশকে খুঁজে পাওয়া যায় ১৮৭ তম অবস্থানে। এই তথ্যেও বোঝানো যাচ্ছে না বাংলাদেশ ও কাতারের মধ্যকার শক্তির পার্থক্য। আরেকটি তথ্য দিলে পরিষ্কার হবে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটির শক্তিমত্তা। বর্তমান এশিয়ান কাপের চ্যাম্পিয়নের মুকুটও কাতারের মাথায়।  

এ ছাড়া যেখানে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১-০ গোলে হেরে বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের যৌথ বাছাই শুরু করেছে বাংলাদেশ। সেই আফগানিস্তানকেই দোহায় ৬-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে বাছাইপর্ব শুরু করেছে কাতার।

তবে কাতার জাতীয় দলকেই রুখে দেওয়ার রেকর্ড আছে বাংলাদেশের। সেটি অবশ্য ৪০ বছর আগে। ১৯৭৯ সালে ঢাকায় এশিয়ান কাপ বাছাইয়ে কাতারের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছিল বাংলাদেশ। উল্লেখ্য, সেবারই ইতিহাসে প্রথম ও এখনো পর্যন্ত একমাত্র বারের মতো এশিয়ান কাপের চূড়ান্তপর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছিল বাংলাদেশ।

এরপর আরও দুইবার কাতারের সঙ্গে লড়েছে বাংলাদেশ। ২০০৬ সালে এশিয়ান কাপ বাছাইপর্বে ঢাকায় কাতারের বিপক্ষে বাংলাদেশ হেরেছিল ৪-১ গোলে। দোহাতেও পরের লেগে বাংলাদেশ হেরে যায় ৩-০ গোলে।  

তবে অতীত নিয়ে বেশ একটা ভাবতে চাচ্ছেন না জেমি ডে। ভূটানের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ জয়ের স্বাদ এবং নিজেদের সেরাটা দিয়ে দেখতে চান ম্যাচের শেষ পর্যন্ত। মাঠে নামার আগে অন্তত হেরে বসতে রাজি নন। দিচ্ছেন কাতারকে হারানোর বার্তা, ‘আমরা জানি ম্যাচটি কঠিন হতে যাচ্ছে। প্রতিটা দলের মতোই আমরা জিততে চায়। ভুটানের বিপক্ষে দুটি ম্যাচ জিতে আমরা খুবই আত্মবিশ্বাসী। আগামীকাল আমাদের সেরা খেলাটা খেলতে হবে। তাদেরকে থামানোর জন্য আমরা কঠোর পরিশ্রম করেছি। তাদের দুর্বলতা কাজে লাগাতে হবে।’

বাংলা ইনসাইডার/এসএম