ঢাকা, রোববার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ২২ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ইতিহাস জিদানের পক্ষে, বাস্তবতা গার্দিওলার

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ বুধবার, ০৭:৫৯ পিএম
ইতিহাস জিদানের পক্ষে, বাস্তবতা গার্দিওলার

ইনজুরিতে ধুঁকতে থাকা ১৩ বারের চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ী রিয়াল মাদ্রিদের মাঠে আজ রাতে আথিতেয়তা পাবে গত দুই মৌসুম ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ জয়ী দল ম্যানচেস্টার সিটি। বার্নাব্যুতে সিটিকে সামলানোর আগে জিদানকে দিতে হয়েছে বেশ কঠিন পরীক্ষা। দলের তারকা ইডেন হ্যাজার্ডের ইনজুরির সাথে লিগের শীর্ষস্থান হারানো রিয়ালের জন্য আজকের লড়াইটা বেশ কঠিন হবে বলেই ধারনা করা হচ্ছে। বাংলাদেশ সময় রাত দুইটায় শুরু হবে ম্যাচটি।  

চ্যাম্পিয়নস লিগের চারবারের দেখায় কখনোই রিয়ালকে হারাতে পারেনি ম্যান সিটি। সবশেষ ২০১৬ সালের সেমিফাইনালে ম্যানসিটির সর্বোচ্চ অর্জনের ইতি এই রিয়ালের হাতেই ঘটে। নিজেদের মাঠে গোলশূন্য ড্র করার পর রিয়ালের মাঠে গিয়ে ১-০ গোলে হেরে আসে সিটি। আর রিয়াল ওঠে ফাইনালে। এই হারের জন্য সিটি ব্রাজিলের মিডফিল্ডার ফার্নান্দোকে এখনো দোষারোপ করে হয়তো। তাঁর আত্মঘাতী গোলটা না হলে সিটিই হয়তো ফাইনালে উঠত!

সেসব পরাজয়গুলোই আজ সিটিকে প্রেরণা দেবে রিয়ালের বিপক্ষে প্রথম জয় তুলে নেওয়ার। প্রেরণা আরেক জায়গা থেকেও পাবে সিটি। আর্থিক অনিয়মের দায়ে সিটিকে আগামী দুই মৌসুমের জন্য চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। গত কয়েক বছরে সম্ভাব্য সব ধরনের শিরোপা জেতা হয়ে গেলেও এই একটা ট্রফি এখনো জেতা হয়নি সিটির। ফলে এবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার জন্য মরিয়া থাকবেন আগুয়েরো-স্টার্লিংরা।

তবে যে যাই বলুক, মাঠের থেকেও মাঠের ডাগ আউটে দুই দলের কোচের উপরেই বেশি নজর থাকবে দর্শকদের। জিদান-গার্দিওলার লড়াইটাই যেন আজকের ম্যাচের প্রাণ। একজনকে খেলোয়াড় হিসেবে ফুটবল ইতিহাসেরই অন্যতম সেরা ধরা হয়, অন্যজনকে কোচ হিসেবে। প্রথমবারের মতো সেই পেপ গার্দিওলা ও জিনেদিন জিদান একে অপরের মুখোমুখি হচ্ছেন।

গার্দিওলা ক্লাব বদলালেও জিদান আছেন রিয়াল মাদ্রিদেই। চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচটা দুই দলের হলেও আদতে ডাগ আউটের দিকেই নজর থাকবে সবচেয়ে বেশি। কোচ হিসেবে জিদান-গার্দিওলার যৌথভাবে জয় করা উচলের সংখ্যা পাঁচটা। তবে একদিকে যেমন জিদান ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন ২০১৬-১৮ সালে টানা তিনবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতে, অন্যদিকে গার্দিওলা এই শিরোপা ছুয়ে দেখেননি শেষ ৯ বছরে!

চ্যাম্পিয়নস লিগের নক আউট পর্বের ১২ টাইয়ে এখনও পর্যন্ত কেউ তাকে হারাতে পারেনি। এই রেকর্ড তো যে কোনো কোচের জন্যই ইর্ষনীয়। চ্যাম্পিয়নস লিগে গার্দিওলার রেকর্ডটা সে তুলনায় সাদা-কালো। ৯ বছর আগে সবশেষ ইউরোপ সেরার পুরস্কারটি তুলে ধরার ভাগ্য হয়েছিল তার।

সম্ভাব্য একাদশ

রিয়াল মাদ্রিদ

কোর্তোয়া (গোলকিপার), কারভাহাল, ভারান, রামোস (অধিনায়ক), মার্সেলো, ভালভার্দে, কাসেমিরো, ক্রুস, ইস্কো, বেল, বেনজেমা।

ম্যান সিটি

এডারসন (গোলকিপার), ওয়াকার, ফার্নান্দিনহো, লাপোর্তে, মেন্ডি, ডি ব্রুইন, রদ্রি, বের্নার্দো, স্টার্লিং, মাহরেজ, আগুয়েরো।

বাংলা ইনসাইডার/এসএম