ঢাকা, বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

৭৫ শতাংশ ফুটবলার করোনা আক্রান্ত

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮ আগস্ট ২০২০ শনিবার, ১২:১২ পিএম
৭৫ শতাংশ ফুটবলার করোনা আক্রান্ত

আগামী ৮ অক্টোবর সিলেটে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে আবারও বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব শুরু করবে বাংলাদেশ। তবে তার আগে শঙ্কার কালো মেঘে ঢাকা পড়েছে ফুটবলারদের ভবিষ্যৎ। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) করোনা পরীক্ষার বেঁধে দেওয়া নিয়মের পর প্রায় ৭৫ শতাংশ ফুটবলারকেই করোনা আক্রান্ত পাওয়া গেছে। ফলে স্কোয়াড গঠন করাই হয়ে দাঁড়িয়েছে অনিশ্চিত। শুধু করোনা আক্রান্তই নয়, করোনা পরীক্ষার ফলাফল নিয়েও বিভ্রান্তি যেন বেড়েই চলেছে।

জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের ক্যাম্পে যোগ দেওয়ার আগেই নিজস্ব উদ্যোগেও করোনাভাইরাস পরীক্ষার নির্দেশনা দিয়েছিল বাফুফে। বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়রই দাবি করেছেন ব্যক্তিগতভাবে করানো পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছিল তাদের। ক্যাম্পে ডাক পাওয়া ৩৬ ফুটবলারের মধ্যে ৩১ জন নিজেদের উদ্যোগে করোনা পরীক্ষা করিয়েছিলেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে করা বাফুফের কোভিড-১৯ রিপোর্টের সঙ্গে অমিল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে ব্যক্তি উদ্যোগে করা পরীক্ষার ফলের। বাফুফের সর্বশেষ দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ক্যাম্পে যোগ দেওয়ার কথা থাকা ২৪ ফুটবলারের মধ্যে ১৮ জনই কোভিড-১৯ রোগে ভুগছেন।

নতুন করে আক্রান্তদের সবাই এখন অবস্থান করছেন গাজীপুরের সারা রিসোর্টে। সেখানেই বাংলাদেশ দলের অনুশীলন ক্যাম্প শুরু হয়েছে ৫ আগস্ট থেকে। বাফুফের করোনা পরীক্ষার এই হযবরল অবস্থা নিয়ে স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠেছে। আর এমন অবস্থায় এই ফুটবলারদের ভবিষ্যৎ কি তাও জানা যায়নি। অবশ্য কোচ জেমি ডে এখনো দেশে না আসলেও জানিয়েছেন নতুন করে ফুটবলার নেওয়ার ইচ্ছে নেই তার, আক্রান্তদের সুস্থ হওয়ার অপেক্ষা করবেন তিনি।

গতকাল (শুক্রবার) আরও ৭ জনের পরীক্ষা করিয়ে ক্যাম্পে যোগ দেওয়ার কথা ছিল। ছুটির দিন থাকায় শনিবার ৭ সিনিয়র ফুটবলার রিপোর্ট করবেন। তাদের করোনা পরীক্ষার পর বোঝা যাবে, শেষ পর্যন্ত কয়জন করোনামুক্ত ফুটবলার থাকেন। তবে শুক্রবার পর্যন্ত ৭৫ ভাগ ফুটবলার করোনা পজিটিভ হলেও ক্যাম্প যথারীতি চলবে বলে জানিয়েছেন বাফুফে সাধারণ সম্পাদক মো. আবু নাইম সোহাগ। আর যে ১৮ জনের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে, তাদের আগামী সোমবার আবারও পরীক্ষা করা হবে বলে জানিয়েছে দেশে ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

বাংলা ইনসাইডার/এসএম