ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

মেসির পাশে নেইমার

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ আগস্ট ২০২০ বৃহস্পতিবার, ১০:৫৭ এএম
মেসির পাশে নেইমার

১৯৭০ সালে প্রতিষ্ঠার পর ১৯৯৫ সালে প্রথম চ্যাম্পিয়নস লিগ সেমিফাইনাল খেলে পিএসজি, ২৫ বছরের রজত জয়ন্তীতে। তারও ঠিক ২৫ বছর পর দ্বিতীয়বারের মতো খেলল সেমিফাইনাল, ৫০ বছর উদযাপনের রজত জয়ন্তীতে এসে। কাতারভিত্তিক মালিকানা আসার গত আট বছরে প্রথমবারের মতো শেষ চারে গেল প্যারিসের ক্লাবটি। আর নিজেদের ক্লাব ইতিহাসের এমন এক রাতে জয়ের নায়ক ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার জুনিয়র। জয়ের নায়ক অবশ্য এই রাতে ভাগ বসিয়েছেন সাবেক সতীর্থ লিওনেল মেসির রেকর্ডে।

প্রথমার্ধে কিছু সহজ গোল হাতছাড়া করেছিলেন। তবে গোটা ম্যাচেই ছিলেন অদম্য। গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে সবসময়ের মতো গতকাল রাতেও ছিলেন উজ্জীবিত। তবে কাজটা এত সহজ ছিলনা। নক আউট রাউন্ডের ম্যাচে পিএসজিকে সেমিফাইনালে নিতে হলে নেই জয়ের বিকল্প। অন্যদিকে মিডফিল্ডের অন্যতম অস্ত্র ডি মারিয়া নেই ইনজুরিতে, দলের আরেক তারকা কিলিয়ান এমবাপেও শতভাগ ফিট নন। অর্থাৎ দলের জন্যে জয় ছিনিয়ে আনার গুরু দায়িত্বটা নিজ কাঁধেই তুলে নিতে হয়েছিল নেইমারকে।

সেই দায়িত্ব নেয়াতে অবশ্য ভুল করেননি। পিএসজিকে সেমিফাইনালে তুলতে নেইমার কতটা মরিয়া ছিলেন সে কথাও বলছে পরিসংখ্যান। এ ম্যাচে একাই ১৬টি সফল ড্রিবল করেন নেইমার। চ্যাম্পিয়নস লিগের এ মৌসুমে এক ম্যাচে যা সর্বোচ্চ ড্রিবলিংয়ের রেকর্ড। আর চ্যাম্পিয়নস লিগের ইতিহাসে এক ম্যাচে যুগ্মভাবে সর্বোচ্চ। লিওনেল মেসি আর হাভিয়ের জানেত্তিও সমানসংখ্যক ড্রিবল করেছেন এক ম্যাচে। সর্বশেষ লিওনেল মেসি, ২০০৮ সালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে। তার ৬ বছর আগে ডায়নামো কিয়েভের বিপক্ষে জানেত্তি।

আর আতালান্তার নেইমারকে আটকাতে কতটা বেগ পেতে হয়েছে সেজন্য একটি পরিসংখ্যানই যথেষ্ট। এই ম্যাচে নেইমার একাই আদায় করেছেন ৯টি ফাউল। চ্যাম্পিয়নস লিগের এ মৌসুমে এক ম্যাচে এত বেশিসংখ্যক ফাউল আদায় করতে পারেননি আর কোনো খেলোয়াড়। মজার বিষয় হলো নেইমার এমন খেলার পরও নির্ধারিত সময়ে শেষ মিনিটের আগ পর্যন্ত ১-০ গোলে পিছিয়ে ছিল পিএসজি। মাত্র ৩ মিনিটের ভেলকিতে ২টি গোল আদায় করেছে ফরাসি ক্লাবটি। আর সেই ভেলকিতেও অসামান্য অবদান নেইমারের। গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচের ম্যাচসেরার পুরষ্কারটাও অবশ্য জিতে নিয়েছেন নেইমার। অবশ্য সেই পুরষ্কার নেইমার উপহার দিয়েছেন অতিরিক্ত সময়ে গোল করা চুপো মোটিংকে।

বাংলা ইনসাইডার/এসএম