ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সিরিজ আয়োজন নয়, কাদা ছোড়াছুড়িতে ব্যস্ত তারা

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ বুধবার, ০৯:০৯ এএম
সিরিজ আয়োজন নয়, কাদা ছোড়াছুড়িতে ব্যস্ত তারা

টাইগার ক্রিকেট সমর্থকরা তীর্থের কাকের মতোন চেয়ে ছিল বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের শ্রীলঙ্কা সফরের দিকে। করোনার কারণে দীর্ঘদিন বাদে যেমন এই সিরিজেই টাইগারদের প্রত্যাবর্তনের কথা ছিল ২২ গজে, তেমনি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফেরার কথা ছিল সাকিব আল হাসানের। তাই স্বাভাবিকভাবেই টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ হিসেবে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এই সিরিজ নিয়ে দেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের মাঝে ছিল বাড়তি উত্তেজনা। তবে সেই আশা দিনদিন হতাশায় পরিণত হচ্ছে। করোনা পরবর্তী এই সিরিজ নিয়ে দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ডের পাল্টাপাল্টি অবস্থানে ঝুলে গেছে দ্বিপক্ষীয় এই সিরিজের ভাগ্য। শুধু কি পাল্টাপাল্টি অবস্থান? রীতিমতো অভিযোগের তীরে বিদ্ধ করছে একে অপরকে। ফলে একদিকে যেমন সিরিজ নিয়ে অনিশ্চয়তা বাড়ছে, অন্যদিকে অবনতি হচ্ছে এই দুই দেশের ক্রিকেটীয় সম্পর্কের।

চলতি মাসের শেষদিকেই তিন টেস্টের সিরিজ খেলতে শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার কথা বাংলাদেশের। কিন্তু লঙ্কান বোর্ড এই সফরের আগে বেঁধে দিয়েছে একগাদা শর্ত। এসব শর্তে চটেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। সোমবার সংবাদ সম্মেলন করে পরিষ্কার ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন, এত শর্ত মেনে সফরে যাওয়া সম্ভব নয়; আরো জানিয়েছেন, শ্রীলঙ্কা বোর্ডের দেওয়া এমন শর্ত নাকি ইতিহাসে বিরল! শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের শর্ত হল, বাংলাদেশ দলকে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। কিন্তু বিসিবি বলছে, সর্বোচ্চ ৭ দিনের বেশি কোয়ারেন্টাইনে থাকা সম্ভব নয় টাইগার ক্রিকেটারদের। লঙ্কান বোর্ডকে কড়া বার্তা পাঠিয়ে বিসিবি সভাপতি বলেন, ৭ দিনের কোয়ারেন্টাইনের ব্যাপারেই কথা চলছিল, ১৪ দিনের নয়।

কিন্তু এমন কড়া বার্তার পর সবার ধারণা ছিল একটু হলেও নমনীয় হবে লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড। তবে পাপনের জবাবে উল্টো তোপ দাগিয়েছেন শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের চেয়ারম্যান শাম্মি সিলভা। শ্রীলঙ্কার ‘আইল্যান্ড পত্রিকা’কে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, ‘তারা যদি এটা বলে থাকে, তবে সেটা ভুল। আমি আসলেই বুঝতে পারছি না কেন তারা এক সপ্তাহের কথা বলছে। সাতদিনের কোয়ারেন্টাইনের বিষয়ে বিসিবির সাথে আমাদের কোনো কথা হয়নি।’

টাইগারদের খরচ বহন করলেও দেশের স্বাস্থ্য বিভাগের অনুমোদন ছাড়া কোয়ারেন্টাইনের সময় কোনোমতেই কমানো সম্ভব নয়, পরিষ্কার ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন শাম্মি সিলভা। অর্থাৎ সফরে গেলে এটা নিশ্চিত যে, বাংলাদেশ দলকে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনেই থাকতে হবে। লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড চেয়ারম্যান যোগ করেন, ‘যদি তারা (বাংলাদেশ) শ্রীলঙ্কায় আসার আগে কোয়ারেন্টাইন করেও আসে, তারপরও কলম্বোতে পা রাখার পর হোটেলে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন পালন করতে হবে। আর তার সার্বিক খরচ শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটই বহন করবে।’

অর্থাৎ টাইগারদের আথিতেয়তা জানাতে সমস্যা নেই লঙ্কানদের, তবে এক্ষেত্রে শর্ত মেনেই যেতে হবে। অন্যথায় শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়া হবে না টাইগারদের। বিসিবি সভাপতির বক্তব্যকে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান সরাসরি অস্বীকার করে দেওয়ার মানে কোন এক বোর্ড লঙ্কা সফর নিয়ে মিথ্যাচার করছে। হয় শ্রীলঙ্কা ৭ দিনের কোন শর্তই দেয়নি, বিসিবি সভাপতি মিথ্যা বলছেন, অথবা লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড চেয়ারম্যান আশ্বাস দিয়েও শেষ মুহুর্তে অস্বীকার করছেন।

অবশ্য এখনো বিসিবি লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ডের অভিযোগের ব্যাখ্যা দেয়নি। তবুও দুই বোর্ডের এমন অবস্থানে নিঃসন্দেহে ক্রিকেটীয় সম্পর্কের যে অবনতি ঘটতে যাচ্ছে এই দুই দেশের তা নিশ্চিত। এখন দেখার বিষয় কে নিজেদের অবস্থান থেকে সরে আসে, শ্রীলঙ্কা নাকি বাংলাদেশ। নাকি উভয় বোর্ড অটল অবস্থানে থেকে সফরটাকে বাতিলের খাতায় ফেলে দেবে, আর কাদা ছোড়াছুড়ি করে সম্পর্কের অবনতিটা চরম পর্যায়ে টেনে নিয়ে যাবে।