ঢাকা, বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, ৭ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

টাইগারদের দুঃস্বপ্নে ডুবিয়েছিল উইন্ডিজরা

মহিউদ্দিন সোয়াত
প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৮:৫৮ এএম
টাইগারদের দুঃস্বপ্নে ডুবিয়েছিল উইন্ডিজরা

২০১১ সাল ক্রিকেট বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপের ১৯তম ম্যাচ, বাংলাদেশ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বাংলাদেশ টসে জিতে ব্যাটিং এর সিধান্ত নেয়। যা তাদের জন্য কাল হয়ে দাড়ায়। ঐ ম্যাচে সুলেমান বেন, কেমার রোচ এবং ড্যারেন সামির অসাধারণ বোলিংয়ে মাত্র ৫৮ রানে অল আউট হয়ে যায় বাংলাদেশ। সে ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ জয় পায় ৯ উইকেট এবং ২২৬ বল হাতে রেখে।

অনেকে মাঠে প্রবেশ করার আগেই ম্যাচ শেষ হওয়া ঐ ম্যাচের পুনরাবৃত্তি কি আদৌ হতে পারে এক দশক পর বাংলাদেশ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে? সবাই অনেক সহজ ভাবেই উত্তর দিবে না। এর কারণ বলতে বললে সবাই বলবে বাংলাদেশ এখন আগে থেকে অনেক পরিবর্তন হয়ে গেছে। দলে রয়েছে অনেক অভিজ্ঞ খেলোয়াড়। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আছে বাংলাদেশের দলে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে এমন নাজেহাল হওয়ার প্রশ্নই জাগেনা।

অন্যদিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ বাংলাদেশে এসেছে অনভিজ্ঞ দল নিয়ে। আর প্রশ্নটা তৈরি হয় এখানেই। এই অনভিজ্ঞ দলই মাঝে মাঝে কাল হয়ে দাড়ায় অনেক দলের জন্য। যেমনটা দেখেছিল ২০১৮ সালের টেস্টে বাংলাদেশ। সেদিন ওয়েস্ট ইন্ডিজ বাংলাদেশকে মাত্র ৪৩ রানে অলআউট করে গড়ে দিয়েছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে কম রানে অলআউট হওয়ার রেকর্ড। যা আজ পর্যন্ত কেও ভাঙতে পারেনি।

তো কোন দলকেই হালকা ভাবে নেয়ার কোন সুযোগই নাই বাংলাদেশের। কারণ মাঝে মধ্যে দুর্বল দলও ঘুরে ধারাতে পারে। শুধু ওয়েস্ট ইন্ডিজকেই না, যে কোন দলকেই দুর্বল ভাবার কোন কারণ নেই। যখন কোন দল তার বিপক্ষ দলের সাথে খেলে, তখন তাদের খেলার ভিডিও দেখে। আর সেই ভিদিওতে থাকে বিপক্ষ দলের অভিজ্ঞ দলের খেলোয়াড়। তবে যদি দলে সফরে অনভিজ্ঞ দল আসে, তবে খেলোয়াড়দের পক্ষে তাদের বিপক্ষে খেলাটা একটু কঠিন হয়ে যায়। তাই এইবার বাংলাদেশ দলকে একটু সতর্কতার সাথে খেলতে হবে।  

এবার বাংলাদেশ সফরে এসেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। যদিও করোনার কারণে মূল একাদশের অনেকেই নেই। তারপরও দলের নাম তো ওয়েস্ট ইন্ডিজ। খেলার মাঠে কখন কি করে বলা তো যায় না। তাই সতর্কতার বিকল্প নাই। হয়তো একদশক আগের সেই দুঃস্বপ্নের মুহূর্তই টাইগারদের ভিতর বাড়তি সচেতনতা তৈরি করে দেবে।