ঢাকা, রোববার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ৫ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

এবারের আইপিএলে সাকিব কোন পজিশনে খেলবেন?

মহিউদ্দিন সোয়াত
প্রকাশিত: ০৮ এপ্রিল ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৯:০০ এএম
এবারের আইপিএলে সাকিব কোন পজিশনে খেলবেন?

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) গত দুই আসর ধরে প্লে অফে খেলতে পারছে না কলকাতা নাইট রাইডার্স। নেট রান রেটে পিছিয়ে থেকে দুবারই পঞ্চম স্থানে থেকে টুর্নামেন্ট শেষ করতে হয়েছিল দলটিকে। এ ছাড়া ব্যাটিং পজিশনের তিন নম্বর জায়গাটা বরাবরই বেশ নড়বড়ে কলকাতার। গত আসরে বেশির ভাগ সময় নিতিশ রানাকে এই পজিশনে ব্যাট করতে দেখা গিয়েছিল। তবে ব্যাট হাতে তিনি ধারাবাহিক ছিলেন না। এবার এই পজিশনের জন্য সাকিব আল হাসানকে যোগ্য মনে করছেন ভারতের জনপ্রিয় ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে। সাকিব তিনে খেললে কলকাতা প্লে অফে খেলবে বলেও দাবি করছেন তিনি।

কারণ হিসেবে হার্শা দেখিয়েছেন, ২০১৯ বিশ্বকাপে জাতীয় দলের হয়ে তিন নম্বর পজিশনে নেমে সাকিবের ব্যাটিং ছিল অসাধারণ। এ ছাড়া কলকাতার ওপেনিংয়ে তিনি রেখেছেন শুভমান গিল এবং নিতিশ রানাকে। যেহেতু ব্যাট হাতে সুনিল নারিনের পরিসংখ্যান ভালো নয় তাই তাকে একাদশের বাইরেই রেখেছেন হার্শা।

সাম্প্রতি এক ভিডিও সাক্ষাৎকারে হার্শা বলেন, ‘কলকাতার ব্যাটিং অর্ডারে সাকিব তিন নম্বর পজিশনের জন্য একজন উপযুক্ত ব্যাটসম্যান। ও তিন নম্বরে খেললে চার, পাঁচ এবং ছয় নম্বর পজিশনের ব্যাটসম্যানরা স্বাচ্ছন্দ্যে খেলতে পারবে। তাদের ব্যাটিং অর্ডারটাও তখন সুন্দরভাবে সাজানো যাবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এবং আপনি যদি ৪ ওভারে ৩১ রান দিয়ে উইকেট শূন্য থাকতে চান সেটাও আপনাকে সাকিব দিতে পারবে। এ ছাড়া আমি মনে করি সাকিব তিন নম্বর পজিশনের যোগ্য। কারণ ২০১৯ সালে এই তিন নম্বর পজিশনেই সে অসাধারণ একটি বিশ্বকাপ কাটিয়েছে। তার উপস্থিতি কলকাতার ব্যাটিংকে আরো শক্তিশালী করবে।‘

অন্যদিকে আরেকটি প্রশ্ন উঠেছে কলকাতার স্পিন বোলিংয়ে কাকে এগিয়ে রাখা হবে, সাকিব নাকি নারিন? কে খেলবে কলকাতার সেরা একাদশে? এমন প্রশ্নের জবাবে পরিসংখ্যানের দ্বারস্থ হয়েছেন হার্শা। যেখানে দেখা যাচ্ছে ব্যাট এবং বল উভয় ক্ষেত্রেই নারিন থেকে এগিয়ে সাকিব। আর ব্যাট হাতে নারিনের অফ ফর্মের কারণে সাকিবই কলকাতার সেরা একাদশে প্রথম পছন্দ হার্শার। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সুনিল নারিন মূলত একজন বোলার যে কিনা ব্যাট হাতে শুরুতে উড়ন্ত সূচনা এনে দিতে পারে। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে নারিনের পরিসংখ্যান দেখুন। ২০১৯ সালের পর থেকে ৭.৮৮ ইকোনমিতে বল করেছিল। তারমানে বেশির ভাগে ম্যাচেই নারিন ৪ ওভারে ৩১ রান দিয়ে উইকেট শূন্য থেকেছিল।’

তিনি আরো বলেন, ‘ব্যাট হাতে সে কি করেছে? তার স্ট্রাইক রেট ১৫০ এর ওপরে ছিল কিন্তু তার ব্যাটিং গড় মাত্র ১৫। এর মানে সে গত বছর কলকাতাকে বেশি রান দিতে পারেনি। শুধু মাত্র একটি ইনিংসে সে বেশ রান করেছিল। যেটাতে সে ৬০ রানের একটি ইনিংস খেলেছিল।’

সাকিবকে ৩ নম্বরে খেলানো হবে নাকি অন্য পজিশনে তা কোচের সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করবে। তবে আসন্ন আইপিএলে যে সাকিব কলকাতার জন্য একটি মূল্যবান রত্ন হিসেবে মাঠে নামবে তা বলার দ্বিধা রাখেনা। কারণ ক্রিকেটের সব ফরম্যাটেই একজন অলরাউন্ডারের গুরুত্ব অপরিসীম। আর দলে যদি থাকে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার তবে তো কথাই নাই।