ঢাকা, শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ৪ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ইউরোতে গোল্ডেন বল জয়ে এগিয়ে যারা

মহিউদ্দিন সোয়াত
প্রকাশিত: ০৯ জুন ২০২১ বুধবার, ০৮:০০ পিএম
ইউরোতে গোল্ডেন বল জয়ে এগিয়ে যারা

আর দু`দিন পর রোনালদোর পর্তুগালের শিরোপা ধরে রাখার চ্যালেঞ্জে শুরু হবে ইউরো মিশন।২০১৬’র ফাইনালে বেঞ্চের একজন হয়ে জিতেছিলেন পরম আরাধ্য দেশের হয়ে শিরোপা। এবার যে তার শেষ ইউরো তা বলাই যায়। তবে পর্তুগিজ সুপার স্টার কিন্তু একা নন, তাকে চ্যালেঞ্জ জানাতে তৈরি হয়ে আছেন আরও ক’জন ফরোয়ার্ড। চলুনদেখে নেওয়া যাক এবারের আসরে বাজিমাত করার অপেক্ষায় থাকা ফরোয়ার্ডদের।

ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো

বয়স ৩৬, ইউরোয় এটাই তার শেষ আসর বলা যায়। রজার মিলারের পদাঙ্ক মেনে যদিও ৪০ বছর বয়সে ২০০৪-এর ইউরো খেলেনও, পুরো ৯০ মিনিট নয় হবে আরও কম। তবে এই প্রশ্ন তোলা থাকল, আপাতত বর্তমানেই থাকা যাক। বড় আসরগুলোতে সেরা তারকাদের ওপর নজর থাকে যেমন চাপও থাকে তেমন। তাদের জন্য ভালো কিছু করাও কঠিন করে তোলে বিপক্ষ। সবশেষ ইউরোতে দল জিতলেও রোনালদো করেছিলেন মাত্র ৩ গোল। এবার পরিস্থিতিও ভিন্ন, রোনালদো একাই নন তার দলে। ব্রুনো ফার্নান্দেজ, রিকার্দো কুয়ারেসমা, বার্নার্দো সিলভাসহ তরুণ প্রতিভাবান ফুটবলার আছেন দলটিতে। তবু রোনালদো তার আসনেই থাকবেন। জুভেন্তাসের হয়ে এই মৌসুমে সর্বোচ্চ ৩৬ গোলের কৃতিত্ব গড়েছেন। এছাড়া আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বোচ্চ গোলস্কোরার হওয়ার দৌড়ে ইরানের আলি দাইয়ের (১০৯) চেয়ে মাত্র ৬ গোল পেছনে রোনালদো।

রবার্ট লেভানডোস্কি

দুর্দান্ত ছন্দ আর ফর্ম নিয়ে এই আসর শুরু করছেন পোল্যান্ড স্ট্রাইকার রবার্ট লেভানডোস্কি। বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে কদিন আগেই বুন্দেসলিগায় ভেঙেছেন গার্ড মুলারের রেকর্ড। জার্মান কিংবদন্তি বায়ার্নের হয়ে এক মৌসুমে ৪০ গোল করেছিলেন। লেভা ২৯ ম্যাচে করছেন ৪১ গোল। করোনার ধাক্কা না থাকলেও গতবারের ব্যালন ডি অর-ও নিশ্চিতভাবেই জিততে এই পোলিশ। তবে সেই আক্ষেপ মেটাতে পারেন ইউরো দিয়ে। এই আসরে দারুণ কিছু করলে গতবারের না পাওয়ার আক্ষেপ মিটে যেতে পারে লেভার জন্য। বড় আসরে জ্বলে উঠতে পারেননি তিনি। যেমন গত ইউরোতে মাত্র ১ গোল করেছিলেন। এবার এই গেরো কাটিয়ে উঠতে চাইবেন লেভা।

করিম বেনজেমা

এবারের ইউরোর আগে সম্ভবত সেরা খবরটি ছিল করিম বেনজেমার ফ্রান্স দলে ফেরা। ২০১৫ সালের পর থেকে জাতীয় দল ব্রাত্য এই স্ট্রাইকার আবারও বড় মঞ্চে ফিরছেন। সবশেষ ২০১৪ বিশ্বকাপ খেলেছিলেন বেনজেমা। এরপর সাড়ে ৫ বছরের অপেক্ষা। তবে ক্যারিয়ারের সেরা ফর্ম নিয়েই জাতীয় দলে ফিরেছেন এই ফরাসি। গত তিন মৌসুম ধরে রিয়াল মাদ্রিদের সেরা স্কোরার হয়েছেন। গত মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে করেছেন ৩০ গোল। তাই ফিরে আসার মঞ্চ ইউরোকে নিজের মতো করে সাজাতে চাইবেন বেনজেমা। রিয়াল তারকার ফিরে আসায় আগে থেকেই ফেভারিট বর্তমান রানার্সআপ ফ্রান্সের শিরোপা জয়ের সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়েছে।

রোমেলু লুকাকু

দু’বছরেরও বেশি সময় ধরে ফিফা র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষ দল বেলজিয়াম। আশির দশকের অন্যতম সেরা ফুটবল শক্তিকে যারা এই উচ্চতায় তুলেছেন তাদের একজন রোমেলু লুকাকু। দেশের ৯৩ ম্যাচে ৬০ গোল করে বেলজিয়ামের সর্বোচ্চ গোলস্কোরার হয়ে গেছেন ইতিমধ্যেই। লেভানডোস্কি, বেনজেমাদের মতো ক্যারিয়ারের সেরা ফর্মে থেকে ইউরো শুরু করতে যাচ্ছেন লুকাকু-ও। ২৮ বছর বয়সী এ স্ট্রাইকার দশ বছর পর ইন্তার মিলানের লিগ শিরোপা জয়ে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। লিগে দলের পক্ষে করেছেন সর্বোচ্চ ২৪ গোল আর সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ৩০টি। ২০১৮ বিশ্বকাপে বেলজিয়ামের তৃতীয় হওয়ার পেছনে লুকাকুর অবদান ছিল চার গোল। এবারের ইউরো বাছাইয়ে ৫ ম্যাচেই করেছেন ৭ গোল। এবার মূল আসরে ঝলকের অপেক্ষা।

হ্যারি কেইন

ইংল্যান্ড দলে স্ট্রাইকারদের নেতা হ্যারি কেইনের ইউরো ফল হতাশাজনক হতে পারে। টটেনহ্যাম হটস্পার তারকাকে নতুন মৌসুমে নতুন দল হাতছানি দিচ্ছে। কিন্তু সেই চিন্তা ইউরোর মধ্যে আনলেই নিজের ও ইংল্যান্ডের সর্বনাশ। তাই ক্লাব চিন্তা বাদ দিয়ে ইউরো নিয়ে ভাবতে হবে কেইন-কে। ফিরিয়ে আনতে হবে ২০১৮ বিশ্বকাপের পারফরম্যান্স। ৬ গোল দিয়ে আসরের সেরা গোলদাতা হয়েছিলেন। এবারের ইউরো বাছাইপর্বে ১২ গোল করে সর্বোচ্চ গোলস্কোরার হয়েছেন। এছাড়া সদ্য শেষ হওয়া মৌসুমে হতাশাজনক পারমফর্ম করা স্পার্সদের হয়ে ২৩ গোল করেছেন।

জেরার্দো মরেনো

এবারের ইউরোয় তারকায় ঠাঁসা দল গড়া থেকে সরে এসেছে স্পেন। তবে লুইস এনরিকের দলে প্রতিভার শেষ নেই। তাদের একজন জেরার্দো মরেনো। ভিয়ারিয়ালের হয়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে হারিয়ে ইউরোপা লিগ জয়ে পেনাল্টি থেকে গোল করেছেন মোরেনো। তার আগেই ফাইনালে গোলসহ সাত গোল করেছেন আসরে। সদ্য শেষ হওয়া মৌসুমে একমাত্র লিওনেল মেসির কাছেই হেরেছেন। ২৩ গোল নিয়ে ছিলেন ৩০ গোল করা মেসির পেছনে। এই ইউরোয় তরুণ স্ট্রাইকারদের মধ্যে স্পটলাইটটা তার দিকেই রেখেছেন মরেনো।

বিষয়: ইউরো-২০২০