ঢাকা, সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

মিলানের অভিশপ্ত ৯ নাম্বার জার্সি!

খেলাধুলা ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৪ জুলাই ২০২১ শনিবার, ০৯:০০ এএম
মিলানের অভিশপ্ত ৯ নাম্বার জার্সি!

সম্প্রতি চেলসি থেকে মিলানের টিকেট কেটে ফরাসী স্ট্রাইকার অলিভিয়ের জিরুদ পেয়েছেন মিলানের নাম্বার নাইন জার্সি। বেশ সম্মানের ব্যাপার, মিলানের নাম্বার নাইন শার্ট গায়ে চড়িয়েছেন ভ্যান বাস্তেন, ডোনাডুনি, লাউড্রপ, ক্লাইভার্ট, জর্জ উইয়াহ, ডি ক্যানিও, ব্যাজ্জিও, ইনজাগির মতো কিংবদন্তী ফরোয়ার্ডরা। একটি দলের নয় নম্বর বলতে বোঝায় দলের ‘টার্গেট ম্যান’ বা আক্রমণের মূল লক্ষ্য। যাকে ঘিরে দলের সকল আক্রমণ তৈরি হবে। প্রতিপক্ষকে ধ্বংস করে দেওয়ার জন্য একজন ‘নম্বর নাইন’ই যথেষ্ট। এই নয় নম্বর জার্সিকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিলেন রোনালদো নাজারিও ডি লিমা। এ জার্সিতে কী করা যায়, কিংবা কী করা উচিত তার অনন্য উদাহরণ ‘ফেনোমেনন’। নয় নম্বর জার্সি দেওয়াই হওয়া বেছে বেছে সেরা স্ট্রাইকারকে। অথচ এই নয় নম্বর জার্সি দিন দিন অপয়া হয়ে উঠছে কোনো এক দলে। যেমন ধরুন এসি মিলান। 

তবে জিরুকে একটু টেনশানেই থাকতে হবে হয়ত কারণ ধারণা করা হয় ইনজাগির পর থেকেই মিলানের বিখ্যাত নাম্বার নাইন শার্টটা অভিশপ্ত হয়ে উঠেছে। সুপার পিপোর অবসরের পর ১০ বছরে মিলানের নাম্বার নাইন গায়ে উঠেছে ১০ জনের। এই দশজনের মাঝে আছেন মারিও মানজুকিচ, গঞ্জালো হিগুয়াইন, লুইজ আদ্রিয়ানো, ফার্নান্দো তোরেসের মত অভিজ্ঞ এবং প্রমাণিত স্ট্রাইকাররা। আবার আছে ক্রিস্টফ পিয়াটেক, আলেক্সান্ডার পাতো, আন্দ্রে সিলভা, জিয়ানলুকা লাপাদুলা, মাত্তিয়া দেস্ত্রোর মত উঠতি তারকারা। কিন্তু এই দশজন ফরোয়ার্ড মিলানের ৯ নাম্বার গায়ে দিয়ে মোট মিলিয়ে দশ বছরে করেছেন মাত্র ৪৪ গোল! অথচ এদের অনেকেই মিলানে আসার আগে ও পরে দারুণ পার্ফর্মেন্স দেখিয়েছেন। আবার যেমন আছেন পিয়াতেক, যিনি মিলানের ১৯ নাম্বার গায়ে দিয়ে এক মৌসুমে বেঞ্চ থেকে ৯ গোল করেছেন, কিন্তু ৯ নাম্বার গায়ে দেওয়ার পর ১৮ ম্যাচ স্টার্ট করে করলেন ৪ গোল। আছেন অ্যালেক্স পাতো, ব্রাজিলের ভবিষ্যত ভাবা হচ্ছিল তাঁকে যখন তিনি মিলানের ৭ নাম্বার গায়ে খেলছিলেন। ৯ নাম্বার গায়ে দেয়ার সাথে সাথেই পড়ে গেলেন দীর্ঘ ইঞ্জুরিতে এরপর চীন, ব্রাজিল ঘুরে খেলছেন এখন আমেরিকায়।

জুভেন্টাস থেকে সাইন করা মাত্রি, রোমা থেকে সাইন করা দেস্ত্রো এদেরও মোটামুটি ক্যারিয়ার হাওয়ায় মিলিয়ে গেছে। আন্দ্রে সিলভা, লাপাদুলা এরা `অভিশাপ` কাটিয়ে পরে ভাল করেছেন। কিন্তু মিলানের নাম্বার নাইন গায়ে এক মৌসুমে দুই অংকের গোলের দেখা পাওয়া সর্বশেষ স্ট্রাইকার পিপো ইনজাগিই এখনো। 
ইনজাগির পর মিলান গোলস্কোরার পায় নি, এমন কিন্তু নয়। বালোতেল্লি, এল শারাওয়ি, কারলোস বাক্কা, পাজ্জিনি, কাট্রোন এবং অবশ্যই ইব্রাহিমোভিচ। অনেকগুলো ভাল স্কোরার তারা পেয়েছে। কিন্তু কেউই ৯ নাম্বার নেননি, এমনকি ইব্রাও না।

এদিকে চেলসিতে বেশ ভাল সময় কাটিয়েই মিলানে যাচ্ছেন জিরু। চেলসি তাকে কিনেছিল ব্যাক আপ হিসেবে। চার মৌসুমে চারজন ম্যানেজার এসেছেন গেছেন - কন্টে, সারি, ল্যাম্পার্ড, টুখেল, প্রত্যেকেই জিরুকে অগ্রাহ্য করে শুরু করেছিলেন কিন্তু পরে তাকে নিতে বাধ্য হয়েছেন। এর প্রতিদান জিরু দিয়েছেন ইউরোপা লিগের টপ স্কোরার, চ্যাম্পিয়নস লিগের তৃতীয় সর্বোচ্চ স্কোরার হয়ে। এমনকি ল্যাম্পার্ডের সিজনে চেলসির টপ ফোরে যাওয়ার পিছে বেশ বড় অবদান আছে জিরুর। কিন্তু মিলানের ৯ নাম্বারের অভিশাপ কি কাটাতে পারবেন? সময়ই বলে দেবে।